Farmers Protest: দাবী আদায় না হলে ১ ফেব্রুয়ারি থেকে 'মিশন উত্তরপ্রদেশ' অভিযানের ডাক SKM-এর

মোর্চার পক্ষ থেকে শনিবার জানানো হয়েছে সরকার যদি তাদের দাবির প্রতি সমর্থন না জানায় তবে আগামী ১ ফেব্রুয়ারি থেকে 'মিশন ইউপি' আন্দোলন শুরু করে আবার লড়াইয়ের ময়দানে নামা হবে।
Farmers Protest: দাবী আদায় না হলে ১ ফেব্রুয়ারি থেকে 'মিশন উত্তরপ্রদেশ' অভিযানের ডাক SKM-এর
সাংবাদিক সম্মেলনে সংযুক্ত কিষাণ মোর্চার নেতৃত্বছবি আইএএনএস ট্যুইটার হ্যান্ডেলের সৌজন্যে

আগামী ১ ফেব্রুয়ারি থেকে ‘মিশন উত্তরপ্রদেশ’ অভিযানে নামছে সংযুক্ত কিষাণ মোর্চা (এসকেএম)। মোর্চার পক্ষ থেকে শনিবার জানানো হয়েছে সরকার যদি তাদের দাবির প্রতি সমর্থন না জানায় তবে আগামী ১ ফেব্রুয়ারি থেকে 'মিশন ইউপি' আন্দোলন শুরু করে আবার লড়াইয়ের ময়দানে নামা হবে।

এসকেএম নেতা রাকেশ টিকাইতের নেতৃত্বে, কৃষকদের এক প্রতিনিধি দল ২১ জানুয়ারি থেকে উত্তরপ্রদেশের লখিমপুর খেরিতে তিন দিনের সফরে যাবে এবং ৪ অক্টোবরের হিংসার ঘটনায় নিহত ও আহতদের পরিবারের সাথে দেখা করবে। ইতিমধ্যে বকেয়া বিষয়গুলির সন্তোষজনক মীমাংসা না হলে, টিকায়েত এবং এসকেএম সেখানে শিবির করবে এবং ১ ফেব্রুয়ারি থেকে 'মিশন ইউপি' শুরু করবে।

এসকেএম নেতা যুধবীর সিং শনিবার এক সাংবাদিক সম্মেলনে বলেন, "এখনও পর্যন্ত কোনো অগ্রগতি হয়নি। ন্যূনতম সমর্থন মূল্য (এমএসপি) নিয়ে কোনও কমিটি গঠন করা হয়নি। হরিয়ানায় কৃষকদের বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহার করার বিষয়ে কিছু পদক্ষেপ রয়েছে, তবে দিল্লি সহ অন্যান্য রাজ্যে সেই বিষয়ে খুব বেশি অগ্রগতি হয়নি। বিদ্যুৎ বিলের বিষয়ে আমাদের দাবি নিয়ে কোনো আলোচনা হয়নি,"

এদিন সিঙ্ঘু সীমান্ত অঞ্চলে সারাদিনব্যাপী বৈঠকের পর সংযুক্ত কিষাণ মোর্চার নেতৃত্ব জানিয়েছেন, "আমাদের কাছে ১ ফেব্রুয়ারি থেকে মিশন ইউপি চালু করা ছাড়া কোনো বিকল্প নেই।"

৪০টি কৃষক সংগঠনের যৌথ মঞ্চ সংযুক্ত কিষাণ মোর্চা গত বছরের ৯ ডিসেম্বর তাদের ১৫ মাস-ব্যাপী আন্দোলন স্থগিত করার ঘোষণা করে। ২০২০ সালে পাশ করা তিনটি বিতর্কিত কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে এই আন্দোলন শুরু হয়েছিলো।

উল্লেখ্য, লখিমপুর খেরিতে গত বছরের ৪ অক্টোবর কৃষক এবং একজন সাংবাদিক সহ প্রায় ৬ জনকে একটি দ্রুতগামী গাড়ির দ্বারা চাপা দেওয়া হয়েছিল। এই ঘটনায় মূল অভিযুক্ত কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী অজয় ​​মিশ্র টেনির ছেলে। কৃষকদের পক্ষ থেকে টেনি ও তার ছেলের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানালেও এখনও কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি।

এসকেএম ২৩ এবং ২৪ ফেব্রুয়ারি শ্রমিক সংগঠনগুলির সর্বভারতীয় ধর্মঘটে সমর্থন জানানোর কথা ঘোষণা করেছে। কারণ তাদের দাবিগুলির মধ্যে এমএসপি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে এবং শ্রমিক সংগঠনগুলির পক্ষেও কৃষকদের আন্দোলনকে সমর্থন জানানো হয়েছিলো।

কৃষকদের এদিনের পর্যালোচনা সভায় আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। জানানো হয়েছে এসকেএম একটি অরাজনৈতিক সংগঠন হিসাবে তাদের আন্দোলন অব্যাহত থাকবে। টিকায়েত জানিয়েছেন, ইতিমধ্যেই "যে সংগঠনগুলি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার ঘোষণা করেছে তারা এসকেএমের অংশ হবে না।" উল্লেখ্য, পাঞ্জাবের বেশ কয়েকটি সংগঠন, যারা SKM-এর অংশ ছিল, তারা সেই রাজ্যে রাজনৈতিক দল/দল গঠন এবং নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার ঘোষণা করেছে।

কৃষকদের দাবির মধ্যে ছিল আন্দোলন চলাকালীন কৃষকদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার এবং একই সময়ে শহীদ কৃষকদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেওয়া। সেই বিষয়েও এখনও কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে তিনটি কৃষি আইন বাতিল হওয়ার পর স্থগিত হওয়া আন্দোলনের ভবিষ্যত কর্মপন্থা সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নিতে এসকেএম শনিবার এই পর্যালোচনা সভা করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে।

সাংবাদিক সম্মেলনে সংযুক্ত কিষাণ মোর্চার নেতৃত্ব
Farmers Protest: ৬ সপ্তাহ পরেও তৈরি হয়নি MSP কমিটি, সিঙ্ঘু সীমান্তে ফের বৈঠকে SKM

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in