বেশিরভাগ মিডিয়া সরকারের গুণগানে ব্যস্ত, সমালোচনা করলেই 'দেশবিরোধী' তকমা - দাবি দলিত লেখকের

RSS-কে নিয়ে ৭২ পৃষ্ঠার সমালোচনামূলক লেখা বইটিতে একাধিক বিষয় জায়গা পেয়েছে। বইটিতে ধর্মান্তকরণ বিরোধী আইন, সংখ্যাগরিষ্ঠের শাসন, যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামো ও গণতন্ত্রের উপর হুমকি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়েছে।
দেবানুর মহাদেব
দেবানুর মহাদেবফাইল চিত্র - সংগৃহীত

স্কুল-সিলেবাস বিতর্কের মাঝে নতুন করে কর্ণাটকে আলোড়ন তুলেছেন দলিত লেখক দেবানুর মহাদেব (Devanur Mahadeva)। তাঁর লেখা বই ‘আরএসএস – আলা মাট্টু আগলা’ (RSS – the depth and breadth) ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছে। ইতিমধ্যেই কন্নড় ভাষায় কয়েক হাজার কপি বিক্রি হয়েছে। বইটি বেস্ট সেলারের তকমা পেয়েছে। শুধু তাই নয়- ইংরাজি, হিন্দি ছাড়াও একাধিক ভারতীয় ভাষায় বইটি অনুবাদের কাজ চলছে।

মূলত, রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ (RSS)-কে নিয়ে ৭২ পৃষ্ঠার সমালোচনামূলক লেখা এই বইটিতে একাধিক বিষয় জায়গা পেয়েছে। বইটিতে ধর্মান্তকরণ বিরোধী আইন, সংখ্যাগরিষ্ঠের শাসন, যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামো ও গণতন্ত্রের উপর হুমকি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়েছে। যেখানে বলা হয়েছে, আরএসএস ভারতে চতুর্বর্ণ প্রথা চাপিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছে।

তবে, দলিত লেখক দেবানুর মহাদেবের এই বই লেখার পর বেজায় ক্ষেপেছে বিজেপি। এই ইস্যুতে মহাদেবের কঠোর সমালোচনা করেছেন মাইসুরু-কোদাগুর বিজেপি সাংসদ প্রতাপ সিমহা। তিনি বলেন, ‘বইটি কংগ্রেসের সেবক হিসাবে লিখেছেন তিনি (দেবানুর মহাদেব)। 'আরএসএস - আলা মাত্তু আগালা' বইটিতে তেমন কিছুই নেই। দেখে মনে হচ্ছে, রাহুল গান্ধীর বক্তৃতার উপর ভিত্তি করে লেখক বইটি লিখেছেন। সে জন্যই বোধ হয় বইটির প্রচার করছেন বিরোধী নেতা সিদ্দারামাইয়া।’

এদিকে, দলিত লেখক মহাদেবের সমর্থনে মুখ খুলেছেন কংগ্রেস নেতা সিদ্দারামাইয়া। তিনি বলেন, ‘আরএসএস সম্পর্কে লেখক ভুল কী বলছেন? কেউ সত্য বলার সাহস দেখালে আরএসএস-এর রাগ হয়। তারা সত্য পছন্দ করে না। এটি মত প্রকাশের স্বাধীনতার মৌলিক অধিকারকে বাধাগ্রস্ত করার একটি প্রচেষ্টা।’

সংবাদ মাধ্যম ‘The Indian Express’-এ দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে লেখক মহাদেব কিছু চিন্তাভাবনা তুলে ধরেছেন। যেখানে দেশের বর্তমান পরিস্থিতি সম্পর্কে লেখকের উদ্বেগ ফুটে উঠেছে।

বইটিতে আপনি উল্লেখ করেছেন যে, দেশের পরিস্থিতি জরুরি অবস্থার চেয়ে খারাপ এবং গণতন্ত্রের স্তম্ভগুলি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বিস্তারিত বলতে পারবেন?

উত্তরে দলিত লেখক মহাদেব জানান, 'আপনাকে খুব বেশি ভাবতে হবে না। আজকের মিডিয়ার অবস্থা দেখুন। ইন্দিরা গান্ধীর আমলে, জরুরী অবস্থার সময়ও মিডিয়ার ঢল নেমেছিল। কিন্তু, সেসময় হতাশা বিস্তার করেছিল মিডিয়া হাউসগুলিতে। অনেকেই সঠিক সময়ের অপেক্ষা ছিল। এসময় কিছু সংখ্যক মিডিয়া সিস্টেমের বিরুদ্ধে গিয়ে কাজ করায়, তাদের বীরের মর্যাদায় ভূষিত করা হয়েছিল।

কিন্তু আজ, অধিকাংশ মিডিয়া হাউসই ক্ষমতায় থাকা সরকারকে প্রশ্নবিদ্ধ না করে তাঁদের প্রশংসা ও কার্যকলাপকে সমর্থন জানাতে ব্যস্ত। আর কেউ ব্যবস্থার বিরোধিতা করলে তাকে দেশবিরোধী বলে তোপ দাগা হচ্ছে। এটি নিশ্চয়ই আপনি (মিডিয়া) আমার চেয়ে বেশি ভালো জানেন।’

আপনি যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোয় হুমকির কথাও বলেছেন। আপনি কি এটিকে সমাজের জন্য গভীর উদ্বেগের বিষয় বলে মনে করেন?

জবাবে লেখক বলেন, বইটিতে আমি এটি নিয়ে খুব বেশি আলোচনা করিনি তবে লক্ষণগুলি তুলে ধরা হয়েছে। আপনি যদি এটির সাথে একমত না হন, তাহলে আপনি নিজের মত তুলে ধরতে পারেন। আমি বিতর্কসভার জন্য প্রস্তুত আছি।

বইটি ইতিমধ্যে ৬ জন প্রকাশক ছেপেছে- এর কারণ কী? বইটি কেমন সাড়া ফেলেছে? এটা কি অন্য ভাষায় অনূদিত হচ্ছে?

উত্তরে দলিত লেখক বলেন, ‘প্রথম দিকে ৬ জন প্রকাশক ছিল। এখন আরও কয়েকজন এগিয়ে এসেছে। ৩ জন প্রকাশক প্রত্যেকে ৫ হাজার করে কপি ছেপেছে। সবই মাত্র দুই দিনে বিক্রি হয়ে গেছে। বইটির মূল্য তাঁরা ৪০ টাকা রেখেছে।’

বইটির প্রথম সংস্করণ প্রকাশিত হয়েছিল ৩০ জুন। যে ছয়জন প্রকাশক বইটি ছেপেছে তাঁদের মধ্যে রয়েছে- অভিরুচি প্রকাশনা (Abhiruchi Prakashana), নাদে-নুদি (Nade-Nudi), গৌরি মিডিয়া ট্রাস্ট (Gouri Media Trust), জনস্পন্দনা ট্রাস্ট (Janaspandana Trust), মানভা বন্দুত্বভা বেদিকে (Manava Bandutva Vedike) এবং ভারতীয় পরিবর্তন সংঘ (Bharatiya Parivarthana Sangha)।

শুধু তাই নয়, হায়দরাবাদ, তামিলনাড়ুসহ একাধিক জায়গা থেকে বেশ কিছু প্রকাশক ইংরেজি, হিন্দি, তেলেগু এবং তামিল সহ অন্যান্য ভাষায় বইটি ছাপার জন্য এগিয়ে আসছেন। বইটির তেলেগু সংস্করণ প্রকাশের প্রস্তাব দিয়েছে হায়দ্রাবাদ-ভিত্তিক ‘বুক ট্রাস্ট’। তামিলনাড়ুর একজন প্রকাশক বইটির তামিল সংস্করণ প্রকাশ করার ইচ্ছে প্রকাশ করেছেন। এছাড়া, তিন থেকে চারজন প্রকাশক আছেন যারা বইটি ইংরেজিতে প্রকাশ করতে চান৷

দেবানুর মহাদেব
Tamil Nadu: প্রশ্নপত্রে 'নিচু জাতি' নিয়ে প্রশ্ন, বিপাকে পেরিয়ার বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in