Chemotherapy: ক্যান্সার চিকিৎসায় প্রয়োজন হবে না কেমোথেরাপির - নতুন গবেষণায় দাবি গবেষকদের

গবেষণাটি তাৎপর্যপূর্ণ এই কারণে যে, এই ফলাফল এমন এক চিকিৎসার প্রতিশ্রুতি দেবে বলে দাবি করেছে, যা ব্যবহার করে ক্যান্সার রোগীদের কেমো এবং রেডিয়েশন থেরাপির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থেকে রক্ষা করা যাবে।
Chemotherapy: ক্যান্সার চিকিৎসায় প্রয়োজন হবে না কেমোথেরাপির - নতুন গবেষণায় দাবি গবেষকদের
ছবি প্রতীকীছবি সংগৃহীত

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ক্লিভল্যান্ড ক্লিনিকের ১১ জন বিজ্ঞানীর একটি দল এবং এলাহাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়ের (AU) একজন গবেষক সাম্প্রতিক এক গবেষণার পর দাবি করেছেন তাঁরা এমন একটি উপায় খুঁজে পেয়েছেন যাতে ক্যান্সার কোষগুলিকে মেরে ফেলার জন্য কেমোথেরাপি এবং রেডিয়েশন থেরাপির আর প্রয়োজন হবে না।

ক্লিভল্যান্ড ক্লিনিকের ক্যান্সার বায়োলজির অধ্যাপক ইয়াং লির নেতৃত্বে এবং এলাহাবাদ ইউনিভার্সিটির বায়োকেমিস্ট্রি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মুনিশ পান্ডের সহায়তায় এই দলের গবেষণাপত্র মর্যাদাপূর্ণ জার্নাল 'অনকোজিন বাই নেচার'-এ প্রকাশিত হয়েছে।

গবেষণাটি তাৎপর্যপূর্ণ এই কারণে যে, এই ফলাফল এমন এক চিকিৎসার প্রতিশ্রুতি দেবে বলে দাবি করেছে, যা ব্যবহার করে ক্যান্সার রোগীদের কেমো এবং রেডিয়েশন থেরাপির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থেকে রক্ষা করা যাবে। ইঁদুরের ওপর এই সফল পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর এখন এটিকে মানবদেহে প্রয়োগের প্রচেষ্টা জোরদার করা হচ্ছে।

পান্ডে জানিয়েছেন: "এই গবেষণা ক্যান্সার রোগীকে স্বস্তি দিতে পারে, বিশেষ করে যারা কেমোথেরাপির মধ্য দিয়ে যায়। কেমোথেরাপিতে রেডিয়েশন এবং অন্যান্য ওষুধ ব্যবহার করা হয় যার বহু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া আছে। যা প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে উদ্দীপিত করে গুরুতর ব্যথা এবং অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে। দলটি এর আগে miR-21 এর জন্য নকআউট ইঁদুর তৈরি করেছে এবং এটি ইউএস (PNAS) জার্নালে 'প্রসিডিংস অফ দ্য ন্যাশনাল একাডেমি অফ সায়েন্সেস'-এ প্রকাশিত হয়েছিল। মাইক্রোআরএনএ-21 (স্মল নন-কোডিং আরএনএ) স্তন্যপায়ী কোষে সবচেয়ে প্রচুর পরিমাণে মাইক্রোআরএনএগুলির মধ্যে একটি, যা অ্যাপোপটোসিস (প্রোগ্রাম সেল ডেথ) এবং অনকোজেনিক প্রভাব নিয়ন্ত্রণ করে।

ডঃ পান্ডে এই প্রসঙ্গে জানিয়েছেন, "আমি আমেরিকান বিজ্ঞানীদের সাথে কাজ করেছি এবং ক্যান্সারের চিকিৎসায় কেমোথেরাপি এবং ওষুধের বিকল্প উদ্ভাবন করেছি। যা ক্যান্সারের চিকিৎসার সময় ক্যান্সার কোষের পাশাপাশি স্বাভাবিক কোষকে ক্ষতিগ্রস্ত করে। এই সফল পরীক্ষাটি ক্লিভল্যান্ড ক্লিনিকের ১১ জন বিজ্ঞানীর একটি দল ইয়াং লি-র নেতৃত্ব করেছে। আমাদের দল ইঁদুরের উপর পরীক্ষা করার সময় ইঁদুরের মধ্যে এর অ্যান্টি-সেন্স ইনজেকশন দিয়েছিল যাতে miR-21 অকার্যকর হয়।" এর পরে দেখা যায় যে ইঁদুরের শরীরে যে টিউমার তৈরি হয়েছিল তা ধীরে ধীরে ছোট হয়ে যায় এবং কিছু ক্ষেত্রে টিউমার সম্পূর্ণ অদৃশ্য হয়ে যায়।

পান্ডে আরও জানিয়েছেন, আমেরিকায় গত এক বছর ধরে এই পরীক্ষা চলেছে। তবে এটি এখনো মানুষের শরীরে ব্যবহার করা হয়নি। এখন এটি মানবদেহে প্রয়োগ করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

(Except for the headline, this story has not been edited by People's Reporter and is translated and published from a syndicated feed.)

ছবি প্রতীকী
স্তন ক্যান্সারের নিরাময়ে নতুন মৌলের সন্ধান, দাবি গবেষকদের

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in