West Bengal: ছড়ানো হচ্ছে ভুয়ো ভিডিও ফুটেজ - রাজ্যের সীমান্তবর্তী সব জেলায় উচ্চ সতর্কতা

"স্বার্থান্বেষী" গোষ্ঠী সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা সৃষ্টিতে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভুয়া ভিডিও ছড়াচ্ছে। যে ৩০-সেকেন্ডের ক্লিপ ব্যবহার হচ্ছে তা গত ১৬ মে ঢাকার পল্লবী এলাকায় এক সম্পত্তি সংক্রান্ত বিরোধের ঘটনা।
West Bengal: ছড়ানো হচ্ছে ভুয়ো ভিডিও ফুটেজ - রাজ্যের সীমান্তবর্তী সব জেলায় উচ্চ সতর্কতা
মমতা ব্যানার্জিফাইল ছবি সংগৃহীত

বাংলাদেশে দুর্গাপূজার সময় হিন্দুদের উপর হামলার পর সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা সৃষ্টির লক্ষ্যে কিছু ভুয়ো ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। এর প্রেক্ষিতে পশ্চিমবঙ্গের স্বরাষ্ট্র দপ্তর সমস্ত জেলা, বিশেষ করে বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী এলাকাগুলিতে উচ্চ সতর্কতা জারি করেছে।

বাংলাদেশের একটি বিশেষ ভিডিও যা সোশ্যাল মিডিয়ায় ঘুরে বেড়াচ্ছে তার একটি শিরোনাম হচ্ছে "কিভাবে হিন্দু মহাজোটের কর্মী যতন সাহা নোয়াখালীর একটি মন্দিরে খুন হন"। বনগাঁ জেলার বিজেপির সাধারণ সম্পাদক দেবদাস মণ্ডলের মতো বেশ কয়েকজন বিজেপি নেতা মঙ্গলবার মৃত ব্যক্তির পক্ষে বিচার চেয়ে ওই ভিডিও শেয়ার করেছেন।

এই প্রসঙ্গে বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান মঙ্গলবার বলেন যে, "স্বার্থান্বেষী" একটি গোষ্ঠী সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা সৃষ্টির জন্য সোশ্যাল মিডিয়ায় ভুয়া ভিডিও প্রচার করছে। ভিডিওটি উল্লেখ করে খান ব্যাখ্যা করেছেন যে, ৩০-সেকেন্ডের যে ক্লিপটি ব্যবহার করা হচ্ছে, তা গত ১৬ মে ঢাকার পল্লবী এলাকায় একটি সম্পত্তি সংক্রান্ত বিরোধের ঘটনা।

মঙ্গলবার টেকনোলজিক্যাল মডার্নাইজেশন অফ আরএবি (র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ন) শীর্ষক এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেন - "একটি স্বার্থান্বেষী গোষ্ঠী এটি প্রচার করছে। এই ফুটেজকে নোয়াখালীতে যতন কুমার সাহা হত্যার ফুটেজ বলছে, যিনি সাম্প্রতিক সংঘর্ষে মারা গেছেন। এটা সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা সৃষ্টির উদ্দেশ্যে করা হচ্ছে। আমরা এই ধরনের কর্মকাণ্ডের নিন্দা জানাই।"

রাজ্যের স্বরাষ্ট্র দপ্তরের একজন ঊর্ধ্বতন আধিকারিক বলেন, অফিসারদের সব সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টের উপর নজর রাখতে বলা হয়েছে। কারণ আশঙ্কা রয়েছে যে কিছু অশুভ শক্তি "হিন্দুদের উপর হামলা" শব্দবন্ধ ব্যবহার করে বাংলায় ঝামেলা সৃষ্টির চেষ্টা করতে পারে।

তিনি আরও বলেন, "সমস্ত ইউনিটকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে যে, যে সমস্ত ভিডিও ফরোয়ার্ড করা হচ্ছে সেগুলির উপর কড়া নজরদারি রাখা হোক। এমনকি সাম্প্রদায়িক আক্রমণের ছোট ছোট বিষয়গুলিও সর্বোচ্চ স্তরে অবিলম্বে রিপোর্ট করতে হবে।"

যে কোনও পোস্ট যা ঘৃণা, মিথ্যা বা গুজব ছড়াচ্ছে তাকে কঠোরভাবে মোকাবিলা করতে হবে, কারণ কিছু গোষ্ঠী এবং ব্যক্তিরা সোশ্যাল মিডিয়ায় সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষ ছড়ানোর এবং আইন-শৃঙ্খলার সমস্যা সৃষ্টির জন্য সম্মিলিত প্রচেষ্টা শুরু করেছে।

বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক অস্থিরতার কথা বিবেচনা করে গোয়েন্দা বিভাগ ইতিমধ্যেই রাজ্যের সব এসপি এবং পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সতর্ক থাকার জন্য একটি বিশেষ বার্তা পাঠিয়েছে।

ডিজি, এডিজি (আইন-শৃঙ্খলা) এবং সমস্ত এসপি এবং কমিশনারদের কাছে পাঠানো একটি বিস্তারিত সতর্কতায় এডিজি (গোয়েন্দা শাখা) বলেছেন, "জুমার নামাজ শেষ হওয়ার পর বাংলাদেশের নোয়াখালী জেলা এবং চট্টগ্রাম জেলায় কিছু ঘটছে বলে জানা গেছে। নোয়াখালীর ইস্কন মন্দিরও ভাঙচুর করা হয়েছে।

গত ১৩ অক্টোবর থেকে, সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলিতে বাংলাদেশে দুর্গাপূজার প্যান্ডেল ভাঙচুরের পোস্টে ভরে গেছে।

ওই সতর্ক বার্তায় জানানো হয়েছে, "ভারত-বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী জেলাগুলি অতি সংবেদনশীল হয়ে উঠেছে এবং ভারতের বিভিন্ন হিন্দু মৌলবাদী সংগঠনের নেতারা সক্রিয় হয়ে উঠেছে। তারা প্রেস বিবৃতি প্রকাশ করছে এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে বাংলাদেশের সংখ্যালঘু জনগণের উদ্দেশ্যে অবিলম্বে ত্রাণের জন্য পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছে।”

(Only the headline and picture of this report may have been reworked by the People’s Reporter staff; the rest of the content is translated and published from a syndicated feed.)

মমতা ব্যানার্জি
Cumilla: হিংসার ঘটনায় মূল অভিযুক্তকে শনাক্ত করা হয়েছে, দাবি বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in