TMC নেতা খুনে ৮ দলীয় নেতা-কর্মীর যাবজ্জীবন সাজা ঘোষণা চুঁচুড়া আদালতের

বুধবার, চুঁচুড়ার ফাস্ট ট্র্যাক কোর্টের বিচারপতি কাজি আবুল হাসেম ৮ অভিযুক্তকে দোষী সাব্যস্ত করেন। শুক্রবার তাঁদের বিরুদ্ধে সাজা ঘোষণা হয়।
প্রতীকী ছবি
প্রতীকী ছবি

তৃণমূলের গোষ্ঠীকোন্দলের জেরে খুন হন প্রাক্তন উপপ্রধান। এই ঘটনায় অভিযুক্ত তৃণমূলেরই ৮ নেতা ও কর্মীকে শুক্রবার যাবজ্জীবন কারাবাসের সাজা দিল চুঁচুড়া আদালত।

বুধবার, চুঁচুড়ার ফাস্ট ট্র্যাক কোর্টের বিচারপতি কাজি আবুল হাসেম ৮ অভিযুক্তকে দোষী সাব্যস্ত করেন। শুক্রবার তাঁদের বিরুদ্ধে যাবজ্জীবনের সাজা ঘোষণা হয়। এছাড়াও দোষীদের বিরুদ্ধে ২০ হাজার টাকা জরিমানা ধার্য করা হয়েছে। অন্যথায় একমাসের অতিরিক্ত হাজতবাসের নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

প্রসঙ্গত, ২০১৩-২০১৮ সাল পর্যন্ত ধনিয়াখালির কুমরুলের গোপিনাথপুর - ২ নম্বর পঞ্চায়েতের উপপ্রধান ছিলেন মৃত্যুঞ্জয় বেরা। গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরে ২০১৮ সালে তাঁকে পিটিয়ে খুন করার অভিযোগ ওঠে তৎকালীন পঞ্চায়েত প্রধান চিত্তরঞ্জন সাঁতরা ও তাঁর দলবলের বিরুদ্ধে।

২০১৮ সালের মে মাসে পঞ্চায়েত নির্বাচনে গোপিনাথপুর - ২ পঞ্চায়েতে জয়ী হয়েছিল তৃণমূল। সেসময় বিরোধীদের মনোনয়ন পত্র জমা দিতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল তৃণমূলের বিরুদ্ধে। জেতার পর পঞ্চায়েত কার দখলে থাকবে সেই নিয়ে চিত্তরঞ্জন সাঁতরা ও মৃত্যুঞ্জয় বেরার মধ্যে শুরু হয় গোষ্ঠীকোন্দল।

সূত্রের খবর, ২০১৮ সালের ২৩ মে দুপুর ৩টে নাগাদ কুমরুল আলুপট্টিতে আক্রান্ত হন মৃত্যুঞ্জয়। তাঁকে রড ও শাবল সহ ধারালো অস্ত্র দিয়ে নৃশংসভাবে পিটিয়ে মারার অভিযোগ ওঠে। গুরুতর জখম অবস্থায় তাঁকে প্রথমে তারকেশ্বর গ্রামীণ হাসপাতাল ও সেখান থেকে হাওড়ার একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। ২৫ মে মৃত্যু হয় তাঁর।

এই ঘটনার জেরে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল গোটা এলাকা। নিহত তৃণমূল নেতার স্ত্রী শিপ্রা বেরা ধনিয়াখালি থানায় ১৩ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন। ঘটনার তদন্তে নেমে পুলিশ পলাতক অভিযুক্তদের মধ্যে মূল অভিযুক্ত চিত্তরঞ্জনকে সাঁতরাগাছি থেকে গ্রেফতার করে। অন্ধ্রপ্রদেশ থেকে গ্রেফতার হন সুরজিৎ সাঁতরা, বিশ্বজিৎ সাঁতরা ও বিশ্বজিৎ ঘোষ নামের তিন অভিযুক্ত। হাওড়ার উলুবেরিয়া থেকে গ্রেফতার হন অরূপ সিং। এছাড়াও অভিযুক্ত বিদ্যুৎ রায়, দীপু বাউড়ি এবং কাজি মহম্মদ বাদশাকেও গ্রেফতার করে পুলিশ। তবে এখনও পর্যন্ত ফেরার ৫ জন অভিযুক্ত।

শুক্রবার, আসামীদের সাজা ঘোষণার পর তাঁদের ফাঁসির দাবিতে মৃত্যুঞ্জয়ের ছবি নিয়ে বিক্ষোভ দেখায় তাঁর অনুগামীরা। দোষীদের বক্তব্য, "আমরা তৃণমূল করি। তারকেশ্বরের বিধায়ক রামেন্দু সিংহ রায় আমাদের ফাঁসিয়েছে। তাঁর কথাতেই খুন করেছি।"

প্রতীকী ছবি
স্কুল শিক্ষকদের প্রাইভেট টিউশন নিয়ে কড়া রাজ্য! ৪৫ স্কুলের ২০০ শিক্ষককে নোটিশ দিয়ে তলব

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in