Suvendu Adhikari: শুভেন্দু অধিকারীর বিজেপিতে থাকা নিয়ে জোরালো সন্দেহ প্রকাশ আরও এক দলীয় নেতার

বুধবার তৃণমূলের মুখপত্র জাগো বাংলা-তে একটি নিবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে প্রবীর ঘোষালের। যেখানে তিনি জানিয়েছেন 'কেন বিজেপি করা যায় না।' লিখেছেন, 'ওখানে কাজ করার থেকে টাকা চাওয়ার লোক বেশি।'
Suvendu Adhikari: শুভেন্দু অধিকারীর বিজেপিতে থাকা নিয়ে জোরালো সন্দেহ প্রকাশ আরও এক দলীয় নেতার
শুভেন্দু অধিকারীফাইল ছবি সংগৃহীত

শুভেন্দু অধিকারীর বিজেপিতে থাকা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করলেন আরও এক বিজেপি নেতা। এবার সংশয় প্রকাশ করলেন প্রবীর ঘোষাল, যিনি বিধানসভা নির্বাচনের আগে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন এবং হুগলির উত্তরপাড়া থেকে প্রার্থী হয়ে পরাজিত হয়েছিলেন।

বুধবার কোন্নগরে নিজের অফিসে সাংবাদিক বৈঠক করেন প্রবীর ঘোষাল। সেখানেই শুভেন্দু অধিকারীর বিজেপিতে থাকা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন তিনি। তিনি বলেছেন, "শুভেন্দু অধিকারীকে বিজেপির পুরোনো কর্মীরা সহ‍্য করতে পারেন না। হাওড়ার ঘটনাতেই তা ধরা পড়েছে। এই রকম অবস্থায় শুভেন্দু অধিকারী কতদিন বিজেপিতে থাকতে পারবেন তা নিয়ে সন্দেহ আছে।"

প্রসঙ্গত, গত সপ্তাহেই হাওড়া সদরের বিজেপি সভাপতি সুরজিৎ সাহা শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে প্রকাশ‍্যে ক্ষোভ উগরে দিয়েছিলেন। 'চোর' বলে কটাক্ষ করে বলেছিলেন, ৬ মাস আগে বিজেপিতে আসা নেতার কাছ থেকে বিজেপির আদর্শ শিখবেন না তিনি। শুভেন্দু অধিকারীও শীঘ্রই তৃণমূলে যাবেন বলে চ‍্যালেঞ্জ করেছেন তিনি।

সুরজিৎ সাহা কার্যত বুঝিয়ে দিয়েছিলেন হাওড়া বিজেপির অন্দরে শুভেন্দু-বিরোধী হাওয়া বইছে। যদিও এই মন্তব্যের জন্য বিজেপি থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে সুরজিৎ সাহাকে।

নিজের সাংবাদিক বৈঠকে এই ঘটনার কথাই উল্লেখ করেছেন প্রবীর ঘোষাল। তবে প্রবীর ঘোষালেরও তৃণমূলে প্রত‍্যাবর্তন নিয়ে জোরালো জল্পনা তৈরি হয়েছে রাজনৈতিক মহলে। এর কারণ বুধবার তৃণমূলের মুখপত্র জাগো বাংলা-তে প্রকাশিত তাঁর একটি নিবন্ধ। যেখানে তিনি জানিয়েছেন 'কেন বিজেপি করা যায় না।' লিখেছেন, 'ওখানে কাজ করার থেকে টাকা চাওয়ার লোক বেশি।'

এই নিবন্ধ প্রকাশের পরই বিজেপি নেতার ফের দলবদল নিয়ে জল্পনা শুরু হয়, যা দূর করতেই সাংবাদিক বৈঠক করেন তিনি। বিজেপি ছাড়ার কথা ঘোষণা না করলেও তিনি জানিয়েছেন, মানসিকভাবে তিনি বিজেপিতে নেই‌।

শুভেন্দু অধিকারী
BJP নেতা শুভেন্দু অধিকারী ও তাঁর ভাইয়ের বিরুদ্ধে ত্রাণ সামগ্রী চুরির অভিযোগ, FIR দায়ের

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in