অভিষেক যদি ত্রিপুরা আর গোয়া জিতিয়ে দেখাতে পারেন, তাহলে ওঁকে নেতা বলে মেনে নেব: কল্যাণ

বুধবার অভিষেকের বক্তব্যকে দলীয় শৃঙ্খলাভঙ্গ বলে দাবি করে কল্যাণ বলেছিলেন, ‘দলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদকের পদটি সর্বক্ষণের। তাই এই পদে যিনি বসেন, তাঁর ব্যক্তিগত মত থাকতে পারে না।
অভিষেক যদি ত্রিপুরা আর গোয়া জিতিয়ে দেখাতে পারেন, তাহলে ওঁকে নেতা বলে মেনে নেব: কল্যাণ
কল্যান বন্দ্যোপাধ্যায় , অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ফাইল চিত্র

তৃণমূলের শীর্ষ নেতৃত্বের অন্তর্কোন্দল এবার প্রকাশ্যে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ছাড়া যদি ত্রিপুরা, গোয়ায় জিতে আসতে পারেন, তবেই অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে নেতা বলে মানা হবে। এমনই মন্তব্য করলেন তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়।

প্রসঙ্গত, তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক তথা ডায়মন্ড হারবারের সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের দু’মাস রাজনৈতিক ও ধর্মীয় সমাবেশ বন্ধ রাখার ‘ব্যক্তিগত’ মতামত ঘিরে কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় ও তৃণমূলের রাজ্য সম্পাদক তথা মুখপাত্র কুণাল ঘোষের মধ্যে জোর তরজা চলছে।

বুধবার অভিষেকের বক্তব্যকে দলীয় শৃঙ্খলাভঙ্গ বলে দাবি করে কল্যাণ বলেছিলেন, ‘দলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদকের পদটি সর্বক্ষণের। তাই এই পদে যিনি বসেন, তাঁর ব্যক্তিগত মত থাকতে পারে না। আমারও ব্যক্তিগত মত আছে অনেক বিষয়েই। দলীয় শৃঙ্খলার কারণেই তা প্রকাশ্যে বলি না। এই ধরনের মন্তব্য আসলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারেরই বিরোধিতা করা। রাজ্য সরকারকেই আসলে চ্যালেঞ্জ করা হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন - ‘বর্ষবরণের দিনে ডায়মন্ড ফুটবল প্রতিযোগিতার আয়োজন হয়েছিল সেখানে কয়েক হাজার মানুষ ছিলেন। মুম্বইয়ের গায়ককে এনে জলসা হয়েছিল। সেখানে কী সংক্রমণের সম্ভাবনা ছিল না?’

বৃহস্পতিবার কুণাল ঘোষ সাংবাদিক বৈঠক করে নিশানা করেছিলেন কল্যাণের দিকে। তার জবাবে শ্রীরামপুর থেকে কল্যাণ বললেন, ‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ছাড়া কাউকে নেতা মানি না। যে যার পদে আছে, সেই পদকে সম্মান করি। কিন্তু নেতা বলে মানি না।’ পাশাপাশি অভিষেককে উদ্দেশ্য করে কল্যাণের কটাক্ষ, ‘অভিষেক বন্দোপাধ্যায় ত্রিপুরা আর গোয়ায় জিতিয়ে দেখাতে পারলে ওঁকে নেতা বলে মানব!’

এ নিয়ে জলঘোলা শুরু হতেই কল্যাণের বিরুদ্ধে পাল্টা তোপ দাগেন কুণাল। বলেন ‘দলের সর্বাধিনায়িকা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তারপরই রয়েছেন অভিষেক। তাঁর মতো নেতা কিছু বললে দলের সৈনিক হিসেবে আমাদের চুপ করে শোনা উচিত।' তাঁর মতে, কোনও মন্তব্যের আগে সবদিক ভেবে দেখা উচিত।

কুণালকে সরাসরি নিশানা করে কল্যাণ বলেন, ‘জেল থেকে মমতাকে আক্রমণ করিনি। প্রিজন ভ্যান থেকেও কিছু করিনি। কবে দলে আছেন, কবে নেই, জানি না।' তাঁর সাফ কথা, 'কেউ আমার ব্যক্তিগত চরিত্র হনন করলে, নিয়ম ভাঙা হচ্ছে কি না, সেটা আমাকেও দেখতে হবে।’

কল্যান বন্দ্যোপাধ্যায় , অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়
বর্ষবরণের দিনে ফুটবল প্রতিযোগিতা, জলসায় কী সংক্রমণের সম্ভাবনা ছিল না? অভিষেককে খোঁচা কল্যানের

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in