'বেঁচে থাকতে রাজীবকে হাওড়ায় ঢুকতে দেব না' - হুঁশিয়ারি প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়ের

এদিন তিনি বলেন, 'কয়েকজন ঠিক নির্বাচনের আগে দল ছেড়ে পালিয়ে গিয়েছিলেন। তাঁদের হাওড়ায় ঢুকতে দেব না। যত বড়ই মাতব্বর হও।'
'বেঁচে থাকতে রাজীবকে হাওড়ায় ঢুকতে দেব না' - হুঁশিয়ারি প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়ের
প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়, রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ফাইল চিত্র

গত বিধানসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে যেভাবে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে বিষোদগার করে দল ছেড়েছিলেন রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়, তা যেন ভুলতে পারছেন না তৃণমূলের অন্য তাবড় নেতা-মন্ত্রীরা। তাই শেষ পর্যন্ত যখন তিনি দলে ফিরলেন, তখন দলীয় নেতাদের হুঁশিয়ারির মুখে পড়তে হল তাঁকে। হাওড়ায় ঢুকতে দেব না বলে সতর্কবার্তা শোনালেন হাওড়ার সাংসদ প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়। এর আগে ‘অভিমানী কল্যাণ’ ক্ষোভ উগরে দিয়েছিলেন। এবার মুখ খুললেন সাংসদ প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়।

নির্বাচনের আগে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়ার হিড়িক পড়ে গিয়েছিল। কিন্তু নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশের পর যখন দেখা যায়, বিজেপি মুখ থুবড়ে পড়েছে, তখন ফের একে একে প্রায় সবাই ঘরে ফিরতে শুরু করেন। কেউ প্রকাশ্যে অথবা কেউ দলীয় নেতাদের সঙ্গে আড়ালে, দলে ফেরার জন্য চেষ্টা চালিয়ে যেতে থাকেন। চার বছর আগে দল ছেড়ে যাওয়া মুকুল রায় তৃণমূলের ফেরেন। রাজীবও ফিরতে চাইছেন বলে কানাঘুষো শোনা যাচ্ছিল অনেক আগে থেকে। চার্টার্ড প্লেনে দিল্লি গিয়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন তিনি। শেষে কয়েকদিন আগে ত্রিপুরায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপস্থিতিতে দলের পতাকা হাতে তুলে নেন প্রাক্তন বনমন্ত্রী।

রবিবার বিকালে হাওড়ার ডুমুরজলায় ইন্ডোর স্টেডিয়ামে বিজয়া সম্মিলনীর আয়োজন করে হাওড়া জেলা তৃণমূল কংগ্রেস। জেলা তৃণমূল সভাপতি কল্যাণ ঘোষের নেতৃত্বে ওই সভায় সবাই পুরভোটে একত্রিত হয়ে বিজেপির বিরুদ্ধে লড়াইয়ের আহ্বান জানান। সেখানেই প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায় দলবদলু নেতাদের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দেন।

এদিন তিনি বলেন, 'কয়েকজন ঠিক নির্বাচনের আগে দল ছেড়ে পালিয়ে গিয়েছিলেন। তাঁদের হাওড়ায় ঢুকতে দেব না। যত বড়ই মাতব্বর হও। ভেবেছিল দিদি হেরে যাবে। তাই বাড়ি চলে গেল, প্লেনে উড়ে গেল। হেরে গিয়ে ফিরে দিদির ছবি নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছ। কোনও কারণেই আমি মানতে পারব না। প্রয়োজনে দল যদি বলে দল ছেড়ে চলে যান, আমি পদত্যাগ করে মমতাদির পায়ের সামনে হাঁটু গেড়ে বসে থাকব।' তিনি সরাসরি বলেন, 'রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়কে হাওড়ায় ঢুকতে দেব না। আমি মানসিক ভাবে ওঁকে মানব না। আমি বেঁচে থাকতে হাওড়ায় আসতে দেব না।'

এর আগে কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়ও বলেছিলেন, 'দলের শীর্ষ নেতৃত্ব যা সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তা আমায় মেনে নিতে হবে।'

প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়, রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়
'টপ টু বটম করাপ্টেড' রাজীবকে দলে নেওয়ায় ক্ষুব্ধ কল্যাণ, 'কেউ কথা রাখেনি' কবিতা দিয়ে খোঁচা মমতাকেও

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in