আদালতে ভর্ৎসনার জের, ৮ মাস পর হাঁসখালির নির্যাতিতার পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দিল রাজ্য

আট মাস আগেই হাঁসখালিকাণ্ডে নির্যাতিতার পরিবারকে আর্থিক ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু, সেই দায়িত্ব পালন করেনি রাজ্যের লিগাল সার্ভিসেস অথরিটি (SLSA)। এর জেরে সোমবার, আদালতে ভৎসনার মুখে পড়ে SLSA।
হাঁসখালির নির্যাতিতার ঘর (ডানে)
হাঁসখালির নির্যাতিতার ঘর (ডানে)ফাইল চিত্র -

কলকাতা হাইকোর্টের ধমক খেয়ে, হাঁসখালিকাণ্ডে নির্যাতিতার পরিবারের হাতে রাতারাতি ৫ লক্ষ টাকা তুলে দিয়েছে রাজ্যের লিগাল সার্ভিসেস অথরিটি (SLSA) বা রাজ্য সরকার।

আট মাস আগেই হাঁসখালিকাণ্ডে নির্যাতিতার পরিবারকে আর্থিক ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু, সেই দায়িত্ব পালন করেনি রাজ্যের লিগাল সার্ভিসেস অথরিটি (SLSA)। এর জেরে সোমবার, আদালতের ভর্ৎসনার মুখে পড়ে SLSA।

এর জেরে ২৪ ঘন্টা না পেরোতেই রাতারাতি নির্যাতিতার পরিবারের হাতে ৫ লক্ষ টাকা তুলে দেয় রাজ্যের সংস্থাটি। মঙ্গলবার, হাই কোর্টের প্রধান বিচারপতির এজলাসে সংস্থাটি জানিয়েছে, সোমবারই ক্ষতিপূরণ হিসাবে ওই পরিবারকে ৫ লক্ষ টাকা দিয়েছে তারা।

চলতি বছরের ৪ এপ্রিল নদিয়ার হাঁসখালিতে এক তৃণমূল নেতার ছেলের জন্মদিনের পার্টিতে নবম শ্রেণির এক ছাত্রীকে গণধর্ষণের অভিযোগ ওঠে। এই ঘটনার পরদিনই (৫ এপ্রিল) ওই কিশোরীর মৃত্যু হয়। এই ঘটনা রাজ্য–রাজনীতিতে শোরগোল ফেলে দেয়। এমনকি তিনটি জনস্বার্থ মামলাও দায়ের করা হয়।

ধর্ষণের ঘটনায় অর্থসাহায্য পাওয়ার আলাদা প্রকল্পও রয়েছে। কিন্তু ঘটনার আট মাস পরও রবিবার পর্যন্ত সে টাকা পায়নি নির্যাতিতার পরিবার। সোমবার, বিষয়টি কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি প্রকাশ শ্রীবাস্তব এবং বিচারপতি রাজর্ষি ভরদ্বাজের ডিভিশন বেঞ্চে তোলা হলে অসন্তোষ প্রকাশ করেন তাঁরা।

রাজ্যের লিগ্যাল সার্ভিসের আইনজীবীকে ভর্ৎসনা করে প্রধান বিচারপতি বলেন, '‌এই ধরণের বিষয়ের ক্ষেত্রে রাজ্যের লিগাল সার্ভিসেস অথরিটিকে আরও দায়িত্বশীল হতে হবে। কিছু অস্পষ্ট শব্দ বলে বিষয়টিকে আড়াল করার চেষ্টা করা হচ্ছে। আপনাদের জন্য কত মানুষকে ভুগতে হচ্ছে।'

তিনি প্রশ্ন তুলে বলেন, 'কোনো নির্দিষ্ট নির্দেশনা ছাড়াই আদালতে কেন হাজির হয় SLSA? এই ধরনের অপ্রয়োজনীয় পদ্ধতির সাথে প্রক্রিয়াটি চলতে পারে না। যখন এই ঘটনায় অর্থসাহায্য পাওয়ার আলাদা প্রকল্পও রয়েছে, সেখানে কেন প্রক্রিয়াটি বিলম্বিত হচ্ছে? মঙ্গলবারের মধ্যে SLSA-কে আদালতে এসে জানাতে হবে, তাঁরা কী পদক্ষেপ নিচ্ছে।'

আর, এই মন্তব্যের পরই নড়েচড়ে বসে রাজ্যের লিগাল সার্ভিসেস অথরিটি।

হাঁসখালির নির্যাতিতার ঘর (ডানে)
SSC-র ২২৩ জন অবৈধ শিক্ষকের সঙ্গে অনুব্রত মণ্ডলের সম্পর্ক খতিয়ে দেখছে ED

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
logo
People's Reporter
www.peoplesreporter.in