'নাগপুরের নিয়ন্ত্রণে ফ্রেন্ডলি ম্যাচ খেলছে তৃণমূল-বিজেপি' - কটাক্ষ মহম্মদ সেলিমের

সোমবার হাজরা মোড়ের সভায় সেলিম বলেন, মূল্যবৃদ্ধি, বেকারত্ব, অপুষ্টির মত গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রাসঙ্গিক বিষয় থেকে মানুষের নজর ঘোরাতে 'ফ্রেন্ডলি ম্যাচ' খেলছে দুই দল।
সোমবার হাজরা মোড়ে সিপিআই(এম)-এর সমাবেশ
সোমবার হাজরা মোড়ে সিপিআই(এম)-এর সমাবেশছবি সংগৃহীত

তৃণমূল এবং বিজেপির মধ্যে আসলে কোনও যুদ্ধই হচ্ছে না। মূল্যবৃদ্ধি, বেকারত্ব, অপুষ্টির মত গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রাসঙ্গিক বিষয় থেকে মানুষের নজর ঘোরাতে 'ফ্রেন্ডলি ম্যাচ' খেলছে দুই দল। পুরো বিষয়টা নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে নাগপুর থেকে। সোমবার সন্ধ্যায় দক্ষিণ কলকাতার এক জনসভা থেকে এইভাবেই তৃণমূল এবং বিজেপিকে তীব্র কটাক্ষ করলেন সিপিআই(এম) রাজ্য সম্পাদক মহম্মদ সেলিম।

সোমবার হাজরা মোড়ে সিপিআই(এম) কলকাতা জেলা কমিটির তরফে একটি সমাবেশের ডাক দেওয়া হয়। মহ: সেলিম ছাড়াও সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন আইনজীবী তথা সিপিআই(এম) সাংসদ বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য, কলকাতা জেলা কমিটির সম্পাদক কল্লোল মজুমদার, AIDWA রাজ্য সম্পাদক কনীনিকা ঘোষ প্রমুখ।

সভাস্থল থেকে সেলিম বলেন - পাড়ার ফ্রেন্ডলি ম্যাচে যেমন টিম ভাগ করে খেলা হয়, তেমনই নাগপুর থেকে দল ভাগ করে দেওয়া হয়েছে। একদিকে মুকুল তো অন্যদিকে শুভেন্দু। আসলে রাজ্যে কোনও বিরোধী দল নেই, বিরোধী সাজিয়ে বসিয়ে দেওয়া হয়েছে। ভোট এলেই মিডিয়াকে দিয়ে 'তৃণমূল বনাম বিজেপি' প্রচার করা হয়। পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগেও ঠিক সেটাই শুরু হয়েছে। এই দুই দলের আবর্জনা পরিষ্কার করে রাজ্যকে বাঁচাতে পারে কেবল লালঝান্ডাই।

সারা রাজ্যজুড়ে ভয়াবহ আকার নিচ্ছে ডেঙ্গু। প্রতিদিনই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্ত এবং মৃতের সংখ্যা। ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে প্রশাসনিক ব্যর্থতার কথা তুলে ধরে সেলিম বলেন, "পুলিশ অফিসার থেকে শুরু করে ডাক্তার, সাধারণ মানুষের মৃত্যু হয়েছে ডেঙ্গুতে। সরকারের কোনও হুঁশ আছে? তৃণমূল-বিজেপি পরস্পরকে গালিগালাজ করছে। মুখ্যমন্ত্রী বলছেন, 'একটু একটু ডেঙ্গু হচ্ছে।' কলকাতার মেয়রের যেখানে মশা মারার কথা, সেখানে তিনি বীরভূমে গেছেন 'বাঘ' মারতে!"

শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতি সহ চাকরিপ্রার্থীদের আন্দোলনের উপর পুলিশ, প্রশাসনের ভূমিকার তীব্র নিন্দা করে সিপিআই(এম) নেতা বলেন - হাজরার সমাবেশ দেখলেই পুলিশ বাধা দেয়। 'চোর ধরো' স্লোগান শুনলেই আক্রমণ করে। আরে, চোর ধরা তো পুলিশেরই কাজ! অপরাধীদের পাহারা দিয়ে প্রতিবাদীদের কামড়ানো পুলিশের কাজ নাকি? সংসদে জুমলা, দাঙ্গাবাজ শুনলেই যেমন বিজেপি রেগে যায়, একইভাবে রাজ্যে 'চোর ধরো' বললে তৃণমূল রেগে যায়।

সভাস্থল থেকে বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য বলেন - রাজ্যে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কৃষি, শিল্পের উন্নতির মাধ্যমে বামফ্রন্ট সরকার যে অর্থনৈতিক ও সামাজিক অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে চেয়েছিল, তৃণমূল এসে তা ধ্বংস করেছে। অর্থনৈতিক ও সামাজিক অধিকার ক্রমশ কেড়ে নিয়ে ভোটকে প্রহসন বানিয়ে সংসদীয় ব্যবস্থাকে কালিমালিপ্ত করা হচ্ছে। দেশের বহু মানুষের আত্মত্যাগ, রক্ত-ঘামের বিনিময়ে সংবিধানে মানুষের যে অধিকার প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে, তাকে রক্ষা করাই আজকের চ্যালেঞ্জ।

সোমবার হাজরা মোড়ে সিপিআই(এম)-এর সমাবেশ
টাকার বিনিময়ে যাঁরা চাকরি পেলেন, তাঁরা গ্রেফতার কবে হবেন? - আদালতের প্রশ্নের মুখে CBI
সোমবার হাজরা মোড়ে সিপিআই(এম)-এর সমাবেশ
TET: টেট পাস তালিকায় মমতা ব্যানার্জী, দিলীপ ঘোষ সহ একাধিক নেতার নাম! 'কাকতালীয়' - সাফাই পর্ষদের

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in