Rampurhat Case: রাজ্য পুলিশে আস্থা নয়, বগটুই-কাণ্ডে সিবিআই তদন্তের নির্দেশ কলকাতা হাইকোর্টের

আদালতের নির্দেশে স্পষ্ট করে বলা হয়েছে, ২২ মার্চ সিট গঠন করার পর থেকে গতকাল অর্থাৎ ২৪ মার্চ হাইকোর্টে এই মামলার শুনানি শেষ হওয়া পর্যন্ত কোনো উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ নেয়নি তদন্তকারী দল।
Rampurhat Case: রাজ্য পুলিশে আস্থা নয়, বগটুই-কাণ্ডে সিবিআই তদন্তের নির্দেশ কলকাতা হাইকোর্টের
বগটুই-কাণ্ডে সিবিআই তদন্তের নির্দেশ হাইকোর্টেরগ্রাফিক্স - নিজস্ব

রামপুরহাটের বগটুই গ্রামে হওয়া গণহত্যার ঘটনায় রাজ্য পুলিশের তদন্তের উপর নির্ভর করতে পারছেনা কলকাতা হাইকোর্ট। সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিল প্রধান বিচারপতি প্রকাশ শ্রীবাস্তবের ডিভিশন বেঞ্চ। আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী ৭ এপ্রিলের মধ্যে প্রাথমিক রিপোর্ট জমা দিতে হবে সিবিআইকে।

এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত যাদের গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ, সেই ধৃতদের সিবিআইয়ের হাতে তুলে দিতে হবে। রাজ্য পুলিশ এই ঘটনার আর কোনো তদন্ত করতে পারবে না। দুপুরের মধ্যেই রামপুরহাট পৌঁছে সিটের কাছ থেকে তদন্তের সমস্ত নথি বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ সিবিআইকে। হাইকোর্টের নজরদারিতে চলবে সিবিআই তদন্ত । এমনই নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট।

আদালতের নির্দেশে স্পষ্ট করে বলা হয়েছে, ২২ মার্চ সিট গঠন করার পর থেকে গতকাল অর্থাৎ ২৪ মার্চ হাইকোর্টে এই মামলার শুনানি শেষ হওয়া পর্যন্ত কোনো উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ নেয়নি তদন্তকারী দল। তাছাড়া সোমবার রাতে যখন এই ভয়ঙ্কর হত্যালীলা হয়, পুলিশ কিছু দূরেই ছিল, তা সত্ত্বেও পুলিশ তাঁদের বাঁচাতে আসেনি বলে অভিযোগ উঠেছে। এরপর আর রাজ্যের তদন্তের উপর নির্ভর করা যায় না।

সোমবার সন্ধ্যায় রামপুরহাট ১ নম্বর ব্লকের বড়শাল গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান তথা তৃণমূল নেতা ভাদু শেখ খুন হন। ভাদু শেখের বাড়ি বগটুই গ্রামে। তাঁর মৃত্যুর পরই অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে বটগুই গ্রাম। পরপর বেশ কয়েকটি বাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেওয়ার অভিযোগ ওঠে ভাদু শেখের অনুরাগীদের বিরুদ্ধে। অগ্ধিদগ্ধ বাড়িগুলি থেকে কমপক্ষে ১০টি সম্পূর্ণ ঝলসানো মৃতদেহ উদ্ধার করে দমকল বাহিনী। একাধিক বাড়িতে ভাঙচুর চালানো হয়েছে বলেও অভিযোগ স্থানীয়দের। এই ঘটনায় স্বতঃপ্রণোদিত মামলা গ্রহণ করেছিল কলকাতা হাইকোর্ট। তারই রায় ঘোষণা হয়েছে আজ।

এর আগে শুনানিতে আদালত নির্দেশ দিয়েছিল - অবিলম্বে কেন্দ্রীয় ফরেনসিক দলকে ঘটনাস্থলে এসে তথ্য সংগ্রহ করতে হবে। ঘটনাস্থল সিসি ক্যামেরায় মুড়ে ফেলতে হবে। জেলা আদালতের বিচারকের নজরদারিতে সিসিটিভি মনিটরিং করা হবে। আদালতের আগামী নির্দেশ ছাড়া সিসি ক্যামেরায় রেকর্ড যেন বন্ধ করা না হয়। কোথাও সাক্ষীর নাম প্রকাশ করা যাবে না। রাজ্য পুলিশের ডিজি এবং আইজিকে গ্রামবাসী এবং সাক্ষীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। জেলা জজের সঙ্গে আলোচনা করে সুরক্ষার ব্যবস্থা করতে হবে। কোনভাবে সাক্ষীদের হুমকি বা ভয় দেখানো যাবে না। ভিডিওগ্রাফি নজরদারিতে মৃতদেহগুলির ময়নাতদন্ত করতে হবে।

বগটুই-কাণ্ডে সিবিআই তদন্তের নির্দেশ হাইকোর্টের
Rampurhat Massacre: 'মুখ্যমন্ত্রী গোটা রাজ্যে বিলি-বাটোয়ারা করে খাপ পঞ্চায়েত চালাচ্ছেন' - সেলিম

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in