রাজ্যে পরপর নৃশংস ধর্ষণের ঘটনায় বাকরুদ্ধ হাইকোর্ট, চারটি ধর্ষণকাণ্ডে তদন্তের দায়িত্বে দময়ন্তী সেন

কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে দেগঙ্গা, মাটিয়া, ইংরেজবাজার, বাঁশদ্রোণীর ধর্ষণ মামলার তদন্ত করে দেখবেন দময়ন্তী। তবে এই দায়িত্ব নিতে না-চাইলে সরাসরি তা আদালতকে জানাতে পারেন দময়ন্তী, জানিয়েছে আদালত।
রাজ্যে পরপর নৃশংস ধর্ষণের ঘটনায় বাকরুদ্ধ হাইকোর্ট, চারটি ধর্ষণকাণ্ডে তদন্তের দায়িত্বে দময়ন্তী সেন
চারটি ধর্ষণকাণ্ডে তদন্তের দায়িত্বে দময়ন্তী সেনফাইল ছবি সংগৃহীত

ফের গুরুত্বপূর্ণ মামলার তদন্তের দায়িত্বে নিয়ে আসা হল আইপিএস দময়ন্তী সেনকে। কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে তিনি দেগঙ্গা, মাটিয়া, ইংরেজবাজার, বাঁশদ্রোণীর ধর্ষণ মামলার তদন্ত করে দেখবেন। তবে এই নজরদারির দায়িত্ব নিতে না-চাইলে সরাসরি তা আদালতকে জানাতে পারেন দময়ন্তী, এমনটাই জানিয়েছে আদালত।

বর্তমানে কলকাতা পুলিশের স্পেশাল কমিশনার পদে রয়েছেন দময়ন্তী সেন। তাঁর পুরনো রেকর্ড বলছে, তিনি অনেক বেশি নিরপেক্ষভাবে তদন্ত করেন। তার প্রেক্ষিতেই কলকাতা হাইকোর্টে প্রধান বিচারপতি প্রকাশ শ্রীবাস্তব ও বিচারপতি রাজর্ষি ভরদ্বাজের ডিভিশন বেঞ্চ মঙ্গলবার শুনানিতে এই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছে।

প্রধান বিচারপতির এই সিদ্ধান্ত এক দশক আগের পার্কস্ট্রিট ধর্ষণ কাণ্ডের তদন্তকে মাথায় রেখে নেওয়া হয়েছে বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল। পার্কস্ট্রিট গণধর্ষণ কাণ্ডের সময় দময়ন্তী সেন কলকাতা পুলিশের গোয়েন্দা প্রধান ছিলেন। ঘটনার তদন্তও তিনি করেছিলেন। তখন অবশ্য সদ্য ক্ষমতায় এসেছে তৃণমূল। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ওই ঘটনাকে ‘সাজানো ঘটনা’ বলে মন্তব্য করেন। তবে দময়ন্তী তদন্ত করে যে রিপোর্ট দিয়েছিলেন, তাতে ধর্ষণের কথাই উল্লেখ ছিল।

এদিন শুনানিতে কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি প্রকাশ শ্রীবাস্তব বলেন, ‘রাজ্যে পরপর একই ঘটল। কী হচ্ছে? কেন এমন ঘটনা ঘটছে? আমি বাকরুদ্ধ!’

প্রসঙ্গত, গত বেশ কিছুদিন ধরে রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় একের পর এক ধর্ষণ ও গণধর্ষণের ঘটনা ঘটছে। শুধু তাই নয়, কোথাও নির্যাতিতাকে ধর্ষণের পর খুনের চেষ্টা করা হচ্ছে। অথবা কোথাও নির্যাতিতার মৃতদেহ জোর করে দাহ করার অভিযোগ উঠছে। পরপর এই নৃশংস ঘটনায় প্রধান বিচারপতিও যে উদ্বিগ্ন তা তাঁর আজকের মন্তব্যে প্রকাশ পেয়েছে।

দময়ন্তী সেনকে দায়িত্ব দেওয়া প্রসঙ্গে রাজ্যের অ্যাডভোকেট জেনারেল সৌমেন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায় বলেন, ‘কলকাতা দেশের মধ্যে নিরাপদ শহর। দিল্লিতেই এমন ঘটনা ঘটে। এখানে সব কিছুতে রাজনীতি, গলিতে গলিতে রাজনীতি।'

প্রসঙ্গত, প্রধান বিচারপতির নির্দেশের মধ্যে নদিয়ার হাঁসখালির ঘটনা নেই, যা নিয়ে এই মুহূর্তে রাজ্য তথা দেশের রাজনীতি তোলপাড়। কেন নেই তা নিয়েও প্রশ্ন উঠছে। আগামী ২০ এপ্রিল এই মামলার পরবর্তী শুনানি।

চারটি ধর্ষণকাণ্ডে তদন্তের দায়িত্বে দময়ন্তী সেন
Hanskhali Rape: হাঁসখালি ধর্ষণ কান্ডে মুখ্যমন্ত্রীর মন্তব্য - হাইকোর্টে স্বতঃপ্রণোদিত মামলার আর্জি

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in