রিলায়েন্সের টেন্ডার বাতিল করে রাজ্য সরকারের সংস্থাকে দিয়েছিলাম, ২০০০ কোটি সাশ্রয় হয়েছিল - গড়কড়ি

গড়কড়ি বলেন - ধীরুভাই (আম্বানি) সেখানে ছিলেন এবং তিনি আমার উপর খুব বিরক্ত হয়েছিলেন। মুখ্যমন্ত্রীও আমার উপর বিরক্ত হয়েছিলেন এবং বালাসাহেব ঠাকরেও সেখানে ছিলেন।
রিলায়েন্সের টেন্ডার বাতিল করে রাজ্য সরকারের সংস্থাকে দিয়েছিলাম, ২০০০ কোটি সাশ্রয় হয়েছিল - গড়কড়ি
নীতিন গডকরিফাইল ছবি- সংগৃহীত

কেন্দ্রীয় সড়ক পরিবহন মন্ত্রী নীতিন গড়কড়ি মুম্বাইতে “হাইওয়ে, ট্রান্সপোর্ট এবং লজিস্টিকসে বিনিয়োগের সুযোগ সংক্রান্ত জাতীয় সম্মেলনে” বক্তব্য রাখতে গিয়ে বলেন – পরিকাঠামোতে বিনিয়োগকারীদের রিটার্ন আটকে যাওয়ার বিষয়ে উদ্বিগ্ন হওয়ার কারণ নেই।

পুরানো দিনের এক ঘটনা উল্লেখ করে তিনি বলেন – “মুম্বাইয়ের আজকের সম্মেলন আমাকে রাজ্যের মন্ত্রী হিসাবে ১৯৯৫ সালে কথা মনে করিয়ে দিচ্ছে। তখন আমি মুম্বাই-পুনে এক্সপ্রেস হাইওয়ের জন্য রিলায়েন্সের একটি টেন্ডার প্রত্যাখ্যান করেছিলাম। সেই সময় ধীরুভাই (আম্বানি) সেখানে ছিলেন এবং তিনি আমার উপর খুব বিরক্ত হয়েছিলেন। মুখ্যমন্ত্রীও আমার উপর বিরক্ত হয়েছিলেন এবং বালাসাহেব ঠাকরেও সেখানে ছিলেন। তাঁরা আমাকে জিজ্ঞাসা করেন – আমি এটা করলাম কেন? আমি বলেছিলাম যে, আমরা এই প্রকল্পের জন্য জনগণের কাছ থেকে অর্থ সংগ্রহ করব, তখন সবাই আমাকে দেখে হাসছিলেন।”

তিনি আরও বলেন – “মনোহর যোশী ছিলেন তৎকালীন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী। তিনি আমাকে বলেন – তোমার যেমনটা মনে হয় করো। তারপর আমরা এমএসআরডিসি (মহারাষ্ট্র রাজ্য সড়ক উন্নয়ন কর্পোরেশন) স্থাপন করলাম। আমি ছিলাম প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান। আমরা কম্পিউটারে প্রকল্পের প্রেজেন্টেশন তৈরি করে চেম্বার অফ কমার্সে যাই বিনিয়োগের জন্য। সেই সময়ে বাজারে ল্যাপটপ কম্পিউটার নতুন এসেছে, আমার খুব ভালোভাবে মনে আছে। সেই সময়ে আমরা বিনিয়োগকারীদের কাছে যেতাম, এখন বিনিয়োগকারীরা আমাদের কাছে আসে।”

পরিকাঠামো প্রকল্পগুলি থেকে আয়ের বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে, মন্ত্রী বলেন, “বিনিয়োগকারীদের আশ্বস্ত করার জন্য আমি এই উদাহরণটি শেয়ার করতে চাই। রিলায়েন্স ৩,৬০০ কোটি টাকা দরপত্র দিয়েছিল। আমরা তা প্রত্যাখ্যান করি এবং ১,৬০০ কোটি টাকা ব্যয় করে MSRDC-এর (মহারাষ্ট্র রাজ্য সড়ক উন্নয়ন কর্পোরেশন) মাধ্যমে প্রকল্পটি সম্পূর্ণ করেছি। আমরা ২,০০০ কোটি সাশ্রয় করেছিলাম।”

তিনি আরও বলেন, “মহারাষ্ট্র সরকার প্রকল্পটি থেকে প্রথম দফায় উপার্জন করেছে ৩০০০ কোটি টাকা। দ্বিতীয় দফায় উপার্জন করেছে ৮,০০০ কোটি টাকা। সুতরাং, আপনারা দেখতে পাচ্ছেন যে একটি ১৬০০ কোটি টাকার রাস্তা একবার ৩,০০০ কোটিতে এবং দ্বিতীয়বার ৮,০০০ কোটিতে মনিটাইজড করা হয়েছিল। সুতরাং, পরিকাঠামো প্রকল্পগুলিতে বিনিয়োগ করার পর রিটার্নের জন্য দুশ্চিন্তা করার কারণ নেই।”

নীতিন গডকরি
১ লক্ষের বেশি শূন্যপদ সেনাবাহিনীতে, দেশের সুরক্ষার সঙ্গে আপোষ করছে কেন্দ্র, অভিযোগ বিরোধীদের

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in