President Election: 'এখন বৃহত্তর স্বার্থে কাজ করার সময়' - ট্যুইট করে তৃণমূল ছাড়লেন যশবন্ত সিনহা

ট্যুইটে যশবন্ত বলেন, "তৃণমূলে মমতাজি আমাকে যে সম্মান ও প্রতিপত্তি দিয়েছেন তার জন্য আমি কৃতজ্ঞ। এবার বৃহত্তর জাতীয় স্বার্থে আমাকে দল থেকে সরে বিরোধী ঐক্যের জন্য কাজ করতে হবে।"
President Election: 'এখন বৃহত্তর স্বার্থে কাজ করার সময়' - ট্যুইট করে তৃণমূল ছাড়লেন যশবন্ত সিনহা
গ্রাফিক্স - সুমিত্রা নন্দন

তৃণমূলের দলীয় রাজনীতি থেকে সরে দাঁড়ালেন যশবন্ত সিনহা। ট্যুইট করে এই কথা জানিয়েছেন যশবন্ত। রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে বিরোধী দলগুলির পক্ষ থেকে মনোনীত প্রার্থী হতে পারেন যশবন্ত সিনহা। এইরকমই যখন জল্পনা চলছিল ঠিক সেই সময় ট্যুইট করে নিজের সিদ্ধান্ত জানালেন তিনি।

ট্যুইটে তিনি বলেন, "তৃণমূলে মমতাজি আমাকে যে সম্মান ও প্রতিপত্তি দিয়েছেন তার জন্য আমি কৃতজ্ঞ। এবার বৃহত্তর জাতীয় স্বার্থে আমাকে দল থেকে সরে বিরোধী ঐক্যের জন্য কাজ করতে হবে। আমি আশা করি তিনি আমার এই পদক্ষেপের অনুমোদন দেবেন।"

তিনি আরও বলেন, যখন কেউ রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী হয়, তখন তিনি কোনও দলে থাকতে পারেন না। এই কারণেই তিনি দল থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তবে কী রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী হওয়ার জন্য প্রস্তুত যশবন্ত? এর আগে একাধিক দল থেকে যশবন্তকে রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী হওয়ার জন্য অনুরোধ করা হয়েছিল।

সূত্রের খবর অনুযায়ী, আর অন্য কোনও নাম যদি রাষ্ট্রপতি পদের জন্য না আসে, তাহলে আজই যশবন্ত সিনহার নামে সিলমোহর পড়তে পারে। এর আগে তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা ব্যানার্জী চেয়েছিলেন যে এনসিপি নেতা শরদ পাওয়ার সর্বসম্মতিক্রমে প্রার্থী হন। কিন্তু শরদ পাওয়ার তাতে রাজি নয় বলেই জানিয়েছেন। শরদ পাওয়ারের বিকল্প হিসেবে তৃণমূলের তরফে আরও দুটি নাম প্রস্তাব করা হয়েছিল। যাদের মধ্যে একজন হলেন অবিভক্ত জম্মু-কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা ন্যাশনাল কনফারেন্স নেতা ফারুখ আবদুল্লা। দ্বিতীয়জন হলেন রাজ্যের প্রাক্তন রাজ্যপাল গোপালকৃষ্ণ গান্ধী। কিন্তু তিনিও পদপ্রার্থী হতে নারাজ।

এ প্রসঙ্গে গোপালকৃষ্ণ গান্ধীর বক্তব্য, "এই মূহূর্তে রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী হিসেবে এমন একজনের নাম প্রস্তাব করা উচিত যিনি জাতীয় ঐক্য বজায় রাখতে পারবেন।"

সূত্রের খবর, মঙ্গলবার দিল্লিতে বৈঠকের আগেই আজ সকালে এনসিপি প্রধান শরদ পাওয়ারের বাড়িতে বৈঠকে বসেছেন ইয়েচুরি, খাড়্গে এবং কুলকার্নি। মঙ্গলবার দিল্লির পাওয়ার বৈঠক শুরু হবে দুপুর আড়াইটে থেকে। সেই বৈঠকে থাকবেন না মমতা ব্যানার্জী। তাঁর জায়গায় সভাপতিত্ব করবেন অভিষেক বন্দোপাধ্যায়।

জানা যাচ্ছে, এই বৈঠকে রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী কে হবেন সেই নিয়ে আলোচনা ছাড়াও আগামী ২০২৪ লোকসভা নির্বাচনে বিরোধী দলগুলির রণকৌশল কী হবে, সে নিয়েও আলোচনার সম্ভাবনা আছে।

President Election: 'এখন বৃহত্তর স্বার্থে কাজ করার সময়' - ট্যুইট করে তৃণমূল ছাড়লেন যশবন্ত সিনহা
ফারুক আব্দুল্লা, শরদ পাওয়ারের পর রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে দাঁড়াতে অনীহা প্রকাশ গোপালকৃষ্ণ গান্ধীর

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in