পুলিশের সামনেই মুসলিম মহিলাদের ধর্ষণ করার হুমকি হিন্দুত্ববাদীর, হাততালি দিয়ে অভিবাদন দর্শকদের!

বহু টুইটার ব্যবহারকারী এই ভিডিও শেয়ার করে ধর্মীয় নেতার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি তুলেছেন। জাতিসংঘের মানবাধিকার সংস্থা এবং জাতীয় মহিলা কমিশনের হস্তক্ষেপ চেয়েছেন অনেকে।
পুলিশের সামনেই মুসলিম মহিলাদের ধর্ষণ করার হুমকি হিন্দুত্ববাদীর, হাততালি দিয়ে অভিবাদন দর্শকদের!
পুলিশের সামনেই মুসলিম মহিলাদের ধর্ষণ করার হুমকি হিন্দুত্ববাদী নেতারছবি সৌজন্যে ভাইরাল ভিডিওর স্ক্রিনশট

মুসলিম মহিলাদের অপহরণ করে তাঁদের প্রকাশ্যে ধর্ষণ করার হুমকি দিলেন এক হিন্দুত্ববাদী নেতা। তার থেকেও আশ্চর্যের বিষয় হলো পুলিশের সামনেই এই হুমকি দিচ্ছেন অভিযুক্ত নেতা এবং পুলিশ নীরব দর্শকের মতো দাঁড়িয়ে দেখছে তা। উত্তরপ্রদেশের সীতাপুর জেলা থেকে এই ভিডিও ভাইরাল হতেই নড়েচড়ে বসেছে প্রশাসন। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ।

ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে গেরুয়া পোশাক পরিহিত এক ব্যক্তি গাড়ির ভেতরে বসে মাইক্রোফোন নিয়ে বক্তৃতা দিচ্ছেন। গাড়ির সামনে প্রচুর লোক উপস্থিত রয়েছেন। পুলিশ কর্মীও রয়েছেন।

ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে গেরুয়া পোশাক পরিহিত ব্যক্তিটি বলছেন, "কোনো মুসলিম যদি এলাকার কোনো এক হিন্দু মেয়েকে উত্যক্ত করে, তাহলে আমি তার বউ মেয়েদের ঘর থেকে তুলে এনে প্রকাশ্যে ধর্ষণ করবো।" এই বক্ত্যবের পরই সামনে থাকা জনতা 'জয় শ্রী রাম' স্লোগান দিয়ে উল্লাসে ফেটে পড়েন। হাততালি দিয়ে অভিবাদন জানান।

ওই নেতা আরও বলেন, তাঁকে হত্যা করার ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে এবং এর জন্য ২৮ লক্ষ টাকা সংগ্রহ করা হয়েছে।

জানা গেছে, এই ভিডিওটি সীতাপুর জেলার খয়রাবাদ নামক একটি ছোট শহরের শেষেওয়ালি মসজিদের সামনের ঘটনা এবং যিনি উস্কানিমূলক বক্তৃতা দিচ্ছেন তিনি স্থানীয় মহন্ত হিসেবে পরিচিত।

ফ্যাক্ট-চেক ওয়েবসাইট AltNews-এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা মহম্মদ জুবেইর এই ভিডিওটি শেয়ার করে লেখেন, "মসজিদের সামনে পুলিশ কর্মীদের উপস্থিতিতে এক মহন্ত হুমকি দিচ্ছেন যে তিনি মুসলিম মহিলাদের অপহরণ করে তাদের প্রকাশ্যে ধর্ষণ করবেন। এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে সীতাপুরের খয়রাবাদের সেশেওয়ালি মসজিদের কাছে ২ এপ্রিল দুপুর দুটার সময় এই ঘটনাটি ঘটেছে।" ৫ দিন কেটে গেলেও অভিযুক্তের বিরুদ্ধে পুলিশ এখনও কেনো কোনো ব্যবস্থা নেয়নি তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন তিনি। তাঁর টুইটের জবাবে সীতাপুর পুলিশ জানিয়েছে, এক সিনিয়র অফিসার বিষয়টির তদন্ত করছেন এবং তথ্যের ভিত্তিতে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মহম্মদ জুবেইরের পাশাপাশি বহু টুইটার ব্যবহারকারী এই ভিডিও শেয়ার করে ধর্মীয় নেতার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি তুলেছেন। কেউ কেউ তাঁকে 'বজরং মুনি' হিসেবে চিহ্নিত করেছেন। জাতিসংঘের মানবাধিকার সংস্থা এবং জাতীয় মহিলা কমিশনের হস্তক্ষেপ চেয়েছেন অনেকে।

পুলিশের সামনেই মুসলিম মহিলাদের ধর্ষণ করার হুমকি হিন্দুত্ববাদী নেতার
হরিদ্বার ধর্ম সংসদে মুসলিম গণহত্যার ডাক - গ্রেফতার হিন্দুত্ববাদী নেতা ইয়াতি নরসিংহনন্দ

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.