Gujarat: 'ওরা চালাকি করছে' - শুনানির প্রথম দিনেই আদালতের তীব্র ভর্ৎসনার মুখে মোরবি পুরসভা

গুজরাট হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি অরবিন্দ কুমার এবং বিচারপতি আশুতোষ জে শাস্ত্রীর ডিভিশন বেঞ্চে এই মামলার শুনানি ছিল।
ভেঙে পড়া মোরবি ব্রিজ (গানে)
ভেঙে পড়া মোরবি ব্রিজ (গানে)ফাইল চিত্র

সেতু বিপর্যয় মামলার শুনানির প্রথম দিনেই গুজরাট হাইকোর্টের তীব্র ভর্ৎসনার মুখে পড়তে হল মোরবি পুরসভাকে। গত ৩০ অক্টোবর মোরবি সেতু বিপর্যয়ের ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন ১৪১ জন মানুষ। ব্রিটিশ আমলে তৈরী ১৫০ বছরের পুরনো সেতুর মেরামতের জন্য যে চুক্তিটি হয়েছিল, মঙ্গলবার তাঁর বিশদ বিবরণ চেয়েছে আদালত। এই মামলার পরবর্তী শুনানি হবে বুধবার।

গুজরাট হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি অরবিন্দ কুমার এবং বিচারপতি আশুতোষ জে শাস্ত্রীর ডিভিশন বেঞ্চে এই মামলার শুনানি ছিল। আদালতের প্রাথমিক পর্যবেক্ষণে বলা হয়েছে, "সরকারি দপ্তরের গাফিলতির কারণেই ১৪১ জন মানুষের মৃত্যু হয়েছে। নোটিশ দেওয়া সত্ত্বেও শুনানিতে পুরসভার তরফে কেউ উপস্থিত হয়নি। অত্যন্ত চালাকি করছে তারা।"

আদালত সূত্রের খবর, সাধারণ মানুষের চলাচলের জন্য সেতু খুলে দেওয়ার ক্ষেত্রে কোনও শর্ত দেওয়া হয়েছিল কিনা, প্রকৃতপক্ষে এই দুর্ঘটনার পশ্চাতে কে বা কারা দায়ী সেই সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য নিয়ে এদিন আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল পুরসভার আধিকারিককে।

এর পাশাপাশি, পুরসভার মুখ্য আধিকারিকের বিরুদ্ধে এখনও কেন কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি তার লিখিত উত্তর রাজ্যকে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে আদালত। এদিন গুজরাট সরকারকে তীব্র সমালোচনা করে আদালত জানিয়েছে, মনে হচ্ছে সেতু খুলে দেওয়ার ক্ষেত্রে রাজ্যের বদান্যতায় কোনও টেন্ডার ডাকা হয়নি। পুরো বিষয়টিতে এখনও পর্যন্ত কমপক্ষে ৬টি দপ্তরের কাছে জবাব চেয়েছে আদালত। পাশাপাশি, প্রথম দিন থেকে চুক্তির যাবতীয় ফাইল সিল করা খামে জমা দিতে বলা হয়েছে।

মঙ্গলবারের শুনানিতে আদালত রাজ্যকে যে যে প্রশ্নগুলি করেছে :-

১) সেতুর মেরামতির কাজে কেন কোনও টেন্ডার ডাকা হল না?

২) কেন অন্যদের দরপত্র করতে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি?

৩) এত গুরুত্বপূর্ণ কাজের চুক্তি মাত্র দেড় পাতায় কীভাবে শেষ হতে পারে?

৪) রাজ্যের এত বিশাল অংশ কি কোনও টেন্ডার ছাড়াই অজন্তা কোম্পানিকে দেওয়া হয়েছিল?

প্রসঙ্গত, রাজ্য সরকার মোরবি সেতু সংরক্ষণের দায়িত্ব দিয়েছিল ওরেভা গ্রুপ (Oreva Group)-কে। প্রধানত অজন্তা দেওয়াল ঘড়ি (Ajanta Wall Clocks) তৈরি করার জন্য পরিচিত এই সংস্থা। সরকারের সাথে সংস্থাটির ১৫ বছরের চুক্তি হয়েছিল। এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত গ্রেফতার করা হয়েছে মোট ৯ জনকে। যাদের মধ্যে রয়েছে সেতু মেরামতকারক সংস্থার দুই ম্যানেজার, দু’জন সাব-কনট্রাক্টর, নিরাপত্তারক্ষী ও টিকিট বুকিং ক্লার্ক-সহ আরও পাঁচজন।

ভেঙে পড়া মোরবি ব্রিজ (গানে)
উচ্চশিক্ষা সংক্রান্ত বিল বাতিলের প্রতিবাদে ইয়েচুরির নেতৃত্বে রাজভবন অভিযানে CPIM
ভেঙে পড়া মোরবি ব্রিজ (গানে)
Goa: বিদ্রোহী বিধায়কদের বিরুদ্ধে এবার আদালতের পথে কংগ্রেস

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in