Farmers Protest: টিকরির পর গাজীপুর সীমান্ত থেকে ব্যারিকেড সরিয়ে নিচ্ছে দিল্লি পুলিশ

রাস্তা থেকে সরানো হচ্ছে কংক্রিটের দেওয়াল, লোহার গজাল। দিল্লির সীমান্ত অঞ্চলে উত্তরপ্রদেশ, হরিয়ানার কৃষকদের অবস্থান বিক্ষোভ শুরু হবার পর দিল্লি পুলিশ ওই অঞ্চলে ব্যারিকেড তৈরি করেছিলো।
Farmers Protest: টিকরির পর গাজীপুর সীমান্ত থেকে ব্যারিকেড সরিয়ে নিচ্ছে দিল্লি পুলিশ
গাজীপুর সীমান্তে দিল্লি পুলিশের ব্যারিকেড ফাইল ছবি সংগৃহীত

দীর্ঘ ১১ মাস পর টিকরি এবং গাজীপুর সীমান্ত থেকে ব্যারিকেড সরানোর কাজ শুরু করলো দিল্লি পুলিশ। রাস্তা থেকে সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে কংক্রিটের দেওয়াল, লোহার গজাল। তিন কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে দিল্লির সীমান্ত অঞ্চলে উত্তরপ্রদেশ, হরিয়ানার কৃষকদের অবস্থান বিক্ষোভ শুরু হবার পর দিল্লি পুলিশের পক্ষ থেকে ওই অঞ্চলে ব্যারিকেড তৈরি করা হয়েছিলো।

গতকাল টিকরি সীমান্ত থেকে ব্যারিকেড সরানোর কাজ শুরু হবার পর শুক্রবার সকাল থেকে গাজীপুরে ব্যারিকেড সরানোর কাজ শুরু হয়েছে। ওই অঞ্চলে দিল্লি পুলিশের আধিকারিকরা উপস্থিত আছেন।

এই প্রসঙ্গে ভারতীয় কিষাণ ইউনিয়নের উত্তরপ্রদেশ শাখার সভাপতি রাজবীর সিং জাদাউন সাংবাদিকদের জানিয়েছেন – আমরা কোনো রাস্তা বন্ধ করিনি। দিল্লি পুলিশের পক্ষ থেকে রাস্তায় ব্যারিকেড করে রাখা হয়েছিলো। এখন তারাই রাস্তা থেকে ব্যারিকেড সরিয়ে নিচ্ছে। যত তাড়াতাড়ি রাস্তা খুলে দেওয়া হবে তত তাড়াতাড়ি আমরা রাজধানীর উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করবো। ওখানে যেতে পারা আমাদের প্রথম অধিকার।

সম্প্রতি সুপ্রিম কোর্ট তার নির্দেশিকায় জানিয়েছে, কৃষকদের কেন্দ্রীয় কৃষি আইনের বিরুদ্ধে আন্দোলন করবার অধিকার আছে। কিন্তু তারা কখনোই অনির্দিষ্টকালের জন্য রাস্তা আটকে রাখতে পারেন না।

বৃহস্পতিবার দিল্লি পুলিশের এক আধিকারিক সংবাদমাধ্যমে জানান, টিকরি সীমান্ত অঞ্চল বন্ধ হয়ে থাকার কারণে এখনও সেখান দিয়ে কোনো গাড়ি চলাচল করতে পারছে না। আমরা ব্যারিকেডের অনেকটাই সরিয়ে নিলেও এখনও সেখানে কিছু প্রতিবন্ধকতা আছে।

গতকাল থেকে দিল্লি পুলিশ জেসিবি মেশিন দিয়ে কংক্রীটের ব্যারিকেড সরানোর কাজ শুরু করেছে। আশা করা হচ্ছে, আগামী দু’তিন দিনের মধ্যেই টিকরি এবং গাজীপুর সীমান্ত অঞ্চল থেকে সমস্ত ব্যারিকেড সরিয়ে নিয়ে রাস্তা খুলে দেওয়া হবে।

সম্প্রতি হরিয়ানা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এই দুই সীমান্ত অঞ্চলে এক প্রতিনিধিদল পাঠিয়ে দেখা হয় দিল্লি পুলিশ অথবা আন্দোলনকারী – কারা রাস্তা বন্ধ করে রেখেছেন।

প্রসঙ্গত, কেন্দ্রীয় সরকারের তিনি কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে গত ১১ মাস ধরে দিল্লির বিভিন্ন সীমান্তবর্তী অঞ্চলে অবস্থান বিক্ষোভ করছেন হাজারে হাজারে কৃষক। সংযুক্ত কিষাণ মোর্চার নেতৃত্বে হওয়া এই আন্দোলনে যুক্ত আছেন দেশের একাধিক কৃষক সংগঠন। যারা স্পষ্টই জানিয়েছেন, কেন্দ্রের তিন কৃষি আইন বাতিল না হওয়া পর্যন্ত তাঁদের আন্দোলন চলবে।

গাজীপুর সীমান্তে দিল্লি পুলিশের ব্যারিকেড
Farmers Protest: পথে বিক্ষোভ নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশের আগেই 'দিল্লি চলো'র ডাক SKM-এর

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in