মোদী জমানায় কৃষকদের আয় বৃদ্ধির 'শ্বেতপত্র' প্রকাশের দাবি কংগ্রেসের

সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে সুখপাল সিং বলেন, ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারিতে, প্রধানমন্ত্রী মোদী প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন যে ২০২২ সালের মধ্যে কৃষকদের আয় দ্বিগুণ করা হবে। কিন্তু, তা করা হয়নি।
সুখপাল সিং খাইরা
সুখপাল সিং খাইরাগ্রাফিক্স - সুমিত্রা নন্দন

ফসলের ন্যূনতম সহায়ক মূল্য (MSP) আইনের পাশাপাশি কৃষকদের আয় নিয়ে 'শ্বেতপত্র' প্রকাশের দাবি জানিয়েছে কংগ্রেস।

২০০৪ থেকে ২০১৪ সালে- কেন্দ্রে বিজেপি ক্ষমতায় ফেরার আগে এবং ২০১৪ থেকে ২০২২ সাল নাগাদ, অর্থাৎ মোদী জমানায় কৃষকদের আর্থিক অবস্থা, ফসলের সহায়ক মূল্য কোন পর্যায়ে পৌঁছেছে, একই প্যারামিটারে তা নিয়ে 'শ্বেতপত্র' প্রকাশের দাবি জানিয়েছেন কংগ্রেসের কৃষক সেলের চেয়ারম্যান সুখপাল সিং খাইরা (Sukhpal Singh Khaira)।

বৃহস্পতিবার, সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে সুখপাল সিং বলেন, ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারিতে, প্রধানমন্ত্রী মোদী প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন যে ২০২২ সালের মধ্যে কৃষকদের আয় দ্বিগুণ করা হবে। কিন্তু, তা করা হয়নি।মুদ্রাস্ফীতির জেরে তাদের আয় দ্বিগুণের পরিবর্তে কমেছে।

তিনি দাবি করেন, 'কৃষকদের আয় যা বেড়েছে, তা সবই কংগ্রেসের নেতৃত্বাধীন ইউপিএ সরকারের আমলে। ২০০৪ থেকে ২০১৪ সালের মধ্যে কৃষকদের আয় দ্বিগুণেরও বেশি করেছিল কংগ্রেস সরকার।'

এমএসপি (MSP)-র পরিসংখ্যান তুলে ধরে কিষান কংগ্রেস চেয়ারম্যান বলেন, ইউপিএ (কংগ্রেস) সরকার ক্ষমতায় থাকার আট বছরের মধ্যে গম ও ধানের এমএসপি (MSP)  দ্বিগুণ করেছে।

'২০০৪ সালে ডঃ মনমোহন সিংয়ের নেতৃত্বাধীন ইউপিএ সরকার ক্ষমতায় আসার  সময় গমের এমএসপি (MSP)  ছিল প্রতি কুইন্টাল ৬৪০ টাকা। ২০১১-১২ সালে তা বেড়ে দাঁড়ায় ১,২৮৫ টাকা। এবং, ২০১৩-১৪ সালে তা পৌঁছায় ১৪০০ টাকায় (প্রতি কুইন্টাল)।'

'একইভাবে, ২০০৪ সালে ধানের এমএসপি (MSP) ছিল প্রতি কুইন্টাল ৫৬০ টাকা। আর, ২০১৩-১৪ সালে প্রতি কুইন্টাল ধানের এমএসপি (MSP) গিয়ে দাঁড়ায় ১,৩১০ টাকায়।'

'আর এর উল্টো ঘটেছে এনডিএ (NDA) তথা বিজেপি জমানায়।' সুখপাল সিং বলেন, 'বিজেপি সরকারের নিজস্ব স্বীকারোক্তি থেকেই জানা গেছে, তাঁদের শাসনামলে ধান ও গম- দুটি ফসলের এমএসপি (MSP) ৫০ শতাংশের বেশি বৃদ্ধি পায়নি।'

তিনি দাবি করেন, 'ভারতের স্বাধীনতার পরে, মোদী সরকারই প্রথম সরকার যারা কীটনাশক, সার এবং কৃষি যন্ত্রপাতির উপর জিএসটি (GST) চাপিয়েছে। আসলে কৃষকদের আয় দ্বিগুণ করার প্রতিশ্রুতি ছিল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর আরেকটি মহাকাব্যিক 'জুমলা'।'

কৃষক নেতা আরও বলেন, ' (ট্র্যাক্টর, জলের পাম্পের জন্য) অতিরিক্ত মূল্যে ডিজেল কিনতে গিয়ে আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে কৃষকরাও।'

তিনি জানান, '২০১৪ সালে মে মাসে, ডিজেলের দাম ছিল প্রতি লিটার ৫৫.৪৮ টাকা। ২০২২ সালের ডিসেম্বরে সেই দাম পৌঁছেছে ৮৯.৬২ টাকায়।অর্থাৎ, ডিজেলের দাম বাড়ানো হয়েছে প্রায় ৬১ শতাংশ। যেখানে, আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত তেলের দাম উল্লেখযোগ্যভাবে কমে এসেছে।'

'২০১৪ সালের ২৬ মে, কেন্দ্রে ক্ষমতায় আসে বিজেপি। সেসময় অপরিশোধিত তেলের দাম ছিল ব্যারেল প্রতি ১০৮ মার্কিন ডলার। ২০২২ সালের ডিসেম্বরে,  সেই তেলের দাম হয়েছে ৭৭.৯৯ মার্কিন ডলার। অর্থাৎ, ২০১৪ সালের মে মাসের তুলনায় বর্তমানে আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত তেলের দাম  কমেছে ২৮ শতাংশ। কিন্তু, কৃষক ও সাধারণ মানুষকে সেই সুবিধা দিচ্ছে না সরকার।'

সুখপাল সিং খাইরা
SKM: ২৬ জানুয়ারি- ট্রাক্টর র‍্যালি ও ‘কিষাণ মহাপঞ্চায়েত’-র ডাক কিষাণ মোর্চার

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in