প্রচারেই বেশি নজর! ‘বেটি বাঁচাও, বেটি পড়াও’ প্রকল্পের ৫৪ শতাংশই খরচ বিজ্ঞাপনে

২০১৪ থেকে ২০২২ - এই সাত বছরে 'বেটি বাঁচাও, বেটি পড়াও' প্রকল্পে বরাদ্দ করা হয়েছে ৭৪০ কোটি ১৮ লক্ষ টাকা। সেই অর্থের ৫৪ শতাংশ, অর্থাৎ ৪০১ কোটি ৪ লক্ষ টাকা খরচ করা হয়েছে শুধুমাত্র বিজ্ঞাপনে।
'বেটি বাঁচাও, বেটি পড়াও' প্রকল্পের পোস্টার
'বেটি বাঁচাও, বেটি পড়াও' প্রকল্পের পোস্টারছবি সংগৃহীত

'বেটি বাঁচাও, বেটি পড়াও' প্রকল্পে কাজের থেকে প্রচার হয়েছে বেশি। বরাদ্দের ৫৪ শতাংশ টাকাই ব্যবহার হয়েছে বিজ্ঞাপনে।

২০১৪ থেকে ২০২২ - এই সাত বছরে 'বেটি বাঁচাও, বেটি পড়াও' প্রকল্পে বরাদ্দ করা হয়েছে ৭৪০ কোটি ১৮ লক্ষ টাকা। সেই অর্থের ৫৪ শতাংশ, অর্থাৎ ৪০১ কোটি ৪ লক্ষ টাকা খরচ করা হয়েছে শুধুমাত্র বিজ্ঞাপনে।

এক প্রশ্নের জবাবে বৃহস্পতিবার, লোকসভায় এই তথ্য জানিয়েছেন, কেন্দ্রীয় মহিলা ও শিশু উন্নয়ন মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি

মোদী সরকারের স্বপ্নের প্রকল্প 'বেটি বাঁচাও, বেটি পড়াও'। এই প্রকল্পকে হাতিয়ার করেই সারা দেশের শিশুকন্যাদের সার্বিক বিকাশের অঙ্গীকার করেছে মোদী সরকার। সেই প্রকল্পে কাজের থেকে প্রচার ও বিজ্ঞাপনে মাত্রাতিরিক্ত অর্থ ব্যয় করা হয়েছে। এই তথ্যই তুলে ধরেছেন স্মৃতি ইরানি।

২০১৫ সালে 'বেটি বাঁচাও, বেটি পড়াও' প্রকল্পের সূচনা করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এই প্রকল্পের মূল উদ্দেশ্য ছিল কন্যা ভ্রূণ হত্যা বন্ধ করা, মহিলাদের ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করা এবং কন্যা শিক্ষায় উৎসাহ জোগানো।

অন্য এক প্রশ্নের জবাবে স্মৃতি ইরানি বলেন, 'দেশের প্রায় ২ লক্ষ অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রকে (AWC) আপগ্রেড করার হয়েছে। এই কেন্দ্রগুলিকে উন্নতি করে প্রারম্ভিক শৈশব যত্ন এবং শিক্ষা (ECCE) খাতে বিশেষ নজর দেওয়া হয়েছে।'

'বেটি বাঁচাও, বেটি পড়াও' প্রকল্পের পোস্টার
'বেটি পটাও' - মুখ ফস্কে আবারও বিড়ম্বনায় প্রধানমন্ত্রী, সোশ্যাল মিডিয়ায় মিমের বন্যা

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in