France: ফ্রান্সে তৃতীয় স্থানে অতি-দক্ষিণপন্থীরা - সর্বাধিক আসনে জয়ী বাম জোট নিউ পপুলার ফ্রন্ট

People's Reporter: সংসদীয় ভোটের প্রথম রাউন্ডে ৩৪% ভোট পেয়ে প্রথমে ছিল অতি-দক্ষিণপন্থী ‘ন্যাশনাল র‍্যালি’। ২৮% ভোট পেয়ে দ্বিতীয় ছিল বামপন্থী ‘নিউ পপুলার ফ্রন্ট’। ‘এনসেম্বল’ ২০% ভোট পেয়ে তৃতীয় হয়েছিল।
ফ্রান্সে ভোটের ফল প্রকাশের পর
ফ্রান্সে ভোটের ফল প্রকাশের পরছবি ক্লডিয়া ওয়েবের এক্স ভিডিও (পূর্বতন ট্যুইটার) থেকে স্ক্রীনশট

ফ্রান্সের অতি-দক্ষিণপন্থীদের বিজয়রথ থামিয়ে দিল বামপন্থীরা। ইউরোপীয় নির্বাচনে ‘ন্যাশনাল র‍্যালি’ জেতার পর প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ তড়িঘড়ি সংসদীয় নির্বাচনের ডাক দেন। পার্লামেন্ট নির্বাচনের প্রথম রাউন্ডে প্রথম হয়েছিল অতি-দক্ষিণপন্থী দল ‘ন্যাশনাল র‍্যালি’। ভোট পেয়েছিল প্রায় ৩৪ শতাংশ। ২৮ শতাংশ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় হয়েছিল বামপন্থী ‘নিউ পপুলার ফ্রন্ট’। ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁর মধ্যপন্থী ‘এনসেম্বল’ ২০% ভোট পেয়ে তৃতীয় স্থানে নেমে গিয়েছিল।

যেহেতু প্রথম রাউন্ডে কোনও শিবিরই ৫০ শতাংশ ভোট পায়নি, তাই ফ্রান্সের সংবিধান অনুযায়ী দ্বিতীয় রাউন্ডের ভোট অনুষ্ঠিত হয় ৭ই জুলাই।

মূলত ৩টি উপায়ে ফ্রান্সের নিম্নকক্ষে প্রতিনিধি নির্বাচিত হয়। প্রথমত, প্রথম রাউন্ডের নির্বাচনে যদি কোনো প্রার্থী ৫০ শতাংশ ভোট পান, তাহলে তাঁকে সরাসরি জয়ী ঘোষণা করা হয়। দ্বিতীয়ত, কোনও প্রার্থীই যদি ৫০ শতাংশ ভোট না পান – সেক্ষেত্রে, প্রথম রাউন্ডের সর্বোচ্চ ভোট পাওয়া দুই প্রার্থীর মধ্যে দ্বিতীয় রাউন্ডের নির্বাচন হবে। তৃতীয়ত, প্রথম রাউন্ডে যে প্রার্থী অন্তত ১২.৫ শতাংশ ভোট পাবেন – তিনি দ্বিতীয় রাউন্ডে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সুযোগ পাবেন।

ইতিমধ্যে, দ্বিতীয় রাউন্ডের ভোটের আগে অতি-দক্ষিণপন্থী ‘ন্যাশনাল র‍্যালি’কে আটকাতে মধ্যপন্থী ‘এনসেম্বল’ ও বামপন্থী ‘নিউ পপুলার ফ্রন্ট’-এর মধ্যে সমঝোতা হয়। প্রথম রাউন্ডে যাদের প্রার্থী ভোট পাওয়ার নিরিখে তৃতীয় স্থানে ছিল, তারা দ্বিতীয় রাউন্ডে প্রার্থী প্রত্যাহার করার সিদ্ধান্ত নেয়। যাতে দক্ষিণপন্থী বিরোধী ভোট মধ্যপন্থী অথবা বামপন্থী প্রার্থীর পক্ষে যায়।

মধ্যপন্থী ও বামপন্থীদের এই রণকৌশল দারুনভাবে সফল হয়েছে। ৫৭৭ আসনের সংসদে কোনও শিবির সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পেলেও বামপন্থী জোট ‘নিউ পপুলার ফ্রন্ট’ ১৮২ টি আসন পেয়ে প্রথম হয়েছে। ১৬৮ টি আসন পেয়ে দ্বিতীয় হয়েছে ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁর ‘এনসেম্বল’। তৃতীয় স্থানে নেমে গেছে লি পেনের নেতৃত্বাধীন অতি-দক্ষিণপন্থী ‘ন্যাশনাল র‍্যালি’। তারা পেয়েছে ১৪৩ টি আসন।

সাড়া জাগিয়েও হেরে যাওয়ায় ফ্রান্সের দক্ষিণপন্থীরা হতাশ হয়ে পড়েছে। ফ্রান্সের বিভিন্ন শহরে দক্ষিণপন্থী সমর্থকদের আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া যাচ্ছে। বামপন্থী ও মধ্যপন্থীদের সমঝোতাকে ‘অশুভ আঁতাত’ বলে আক্রমণ করেছেন ন্যাশনাল র‍্যালির অন্যতম নেতা জর্ডন বারডেল্লা।

কারা এই নিউ পপুলার ফ্রন্ট?

এটি মূলত ফ্রান্সের বামপন্থী দলগুলোর একটি যৌথ মঞ্চ। ইউরোপীয় ইউনিয়নের নির্বাচনে ফ্রান্সের দক্ষিণপন্থীরা জেতার পর প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ যখন নতুন পার্লামেন্ট নির্বাচনের কথা ঘোষণা করেন, তখন এই জোট তৈরি হয়। এই জোটের মধ্যে আছে -  ‘লা ফ্রান্স ইন্সোমিসে’ (LFI), কমিউনিস্ট পার্টি  (PCF), সোস্যালিস্ট পার্টি, পরিবেশবাদীরা। এছাড়াও রয়েছে অনেক ছোট ছোট বাম দল।

এই জোটের সবচেয়ে বড় শরিক জঁ-লুক মেলশোঁর নেতৃত্বাধীন ‘লা ফ্রান্স ইন্সোমিসে’। মূলত তিনি এই পপুলার ফ্রন্ট গঠনের অন্যতম কারিগর। ফ্রান্সের মিডিয়ামহলে তিনি ‘অতিবাম নেতা’ হিসাবেই পরিচিত। তবে এই নিউ পপুলার ফ্রন্টের দল গুলির মধ্যে বিস্তর মতপার্থক্য আছে। শুধুমাত্র অতি-দক্ষিণপন্থাকে রুখে দিতেই তারা ঐক্যবদ্ধ হয়েছে।

ফ্রান্সে ভোটের ফল প্রকাশের পর
France: ফ্রান্সে নতুন পপুলার ফ্রন্ট - দক্ষিণপন্থাকে আটকাতে এক ছাতার নিচে মধ্য বাম থেকে বাম
ফ্রান্সে ভোটের ফল প্রকাশের পর
Britain: লেবার পার্টি থেকে বহিষ্কৃত হয়েও স্টারমারের গলার কাঁটা ‘বামপন্থী’ জেরেমি করবিন

GOOGLE NEWS-এ Telegram-এ আমাদের ফলো করুন। YouTube -এ আমাদের চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন।

Related Stories

No stories found.
logo
People's Reporter
www.peoplesreporter.in