WB Election 21: প্রথম দফায় ১৯১ প্রার্থীর মধ্যে কোটিপতি ১৯ জন, গুরুতর অপরাধের অভিযোগ ৪২ জনের বিরুদ্ধে

প্রথম দফার ভোটে ৩০টি আসনের মোট ১৯১ জন প্রার্থীর হলফনামা জমা পড়েছে। সেই হলফনামা বিশ্লেষণ করে এডিআর জানিয়েছে ১ প্রার্থীর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ, ৮ জনের বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ আছে।
WB Election 21: প্রথম দফায় ১৯১ প্রার্থীর মধ্যে কোটিপতি ১৯ জন, গুরুতর অপরাধের অভিযোগ ৪২ জনের বিরুদ্ধে
ছবি প্রতীকী সংগৃহীত

শুধু আর্থিক দুর্নীতি বা তছরুপ নয়, তারচেয়েও গুরুতর অভিযোগ রয়েছে এবারে বিধানসভা নির্বাচনে টিকিট পাওয়া বিভিন্ন প্রার্থীর বিরুদ্ধে। প্রথম দফার ভোটে ৩০টি আসনের মোট ১৯১ জন প্রার্থীর হলফনামা জমা পড়েছে। সেই হলফনামা বিশ্লেষণ করে পশ্চিমবঙ্গ ইলেকশন ওয়াচ এবং অ্যাসোসিয়েশন ফর ডেমোক্রেটিক রাইট (এডিআর) যে তথ্য পেশ করেছে, তাতে দেখা যাচ্ছে একজন প্রার্থীর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ, ৮ জনের বিরুদ্ধে রয়েছে খুনের অভিযোগ, গুরুতর অপরাধ রয়েছে মোট ২২ শতাংশ প্রার্থীর বিরুদ্ধে। মোট ৪২ জনের বিরুদ্ধে গুরুতর অপরাধের অভিযোগ রয়েছে।

এই রিপোর্টে প্রার্থীদের সম্পত্তির পরিমাণ জানা গিয়েছে। রিপোর্ট বলছে, ১৯ জন প্রার্থীর সম্পত্তির পরিমাণ এক কোটি টাকা বা তার বেশি। তিনজন প্রার্থী সম্পত্তির পরিমাণ শূন্য। প্রথম দফায় তৃণমূলের ন’জন প্রার্থী কোটিপতি। বিজেপির চারজন। সিপিএম এবং কংগ্রেসের দু’জন করে, এসইউসি এবং বিএসপির একজন করে কোটিপতি। প্রথম দফায় সব থেকে ধনী প্রার্থী পূর্ব মেদিনীপুরের পটাশপুরের বিজেপির অম্বুজাক্ষ মহান্তি। তাঁর সম্পত্তির পরিমাণ ১০ কোটি টাকার বেশি। ওই কেন্দ্রের সিপিআই প্রার্থী সৈকত গিরির সম্পত্তি মাত্র দু’হাজার টাকা।

অম্বুজাক্ষবাবুর পরেই রয়েছেন কাঁথি (উত্তর) কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী সুমিতা সিংহ (সম্পত্তি চার কোটি টাকার বেশি) এবং খড়্গপুরের তৃণমূল প্রার্থী দীনেন রায় (সম্পত্তির পরিমাণ তিন কোটি টাকার বেশি)। কম সম্পত্তির নিরিখে প্রথম দু’টি জায়গায় আছেন পুরুলিয়ার মানবাজারের এসইউসি প্রার্থী স্বপন মুর্মু এবং এবং ঝাড়গ্রামের বিনপুরে দাঁড়ানো ওই দলেরই প্রার্থী রাজীব মুদি। তাঁদের প্রত্যেকের মোট সম্পদের পরিমাণ ৫০০ টাকা।

সাতটি আসনে তিন বা তার বেশি প্রার্থীর বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা রয়েছে। সেই কেন্দ্রকে ‘লাল সতর্কতামূলক কেন্দ্র’ হিসেবে উল্লেখ করা হচ্ছে। বিজেপির ১১ জন প্রার্থীর বিরুদ্ধে গুরুতর ফৌজদারি মামলা রয়েছে। আবার সিপিএমের ন’জন এবং তৃণমূলের আটজন প্রার্থীর বিরুদ্ধে গুরুতর মামলার অভিযোগ আছে।

সমীক্ষকরা জানিয়েছেন, অভিযুক্ত প্রার্থীদের নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের বিশেষ নির্দেশ রয়েছে। তা সত্ত্বেও ২৫ শতাংশ ‘অভিযুক্ত’ প্রার্থী ফের টিকিট পেয়েছেন।

প্রার্থীদের শিক্ষাগত যোগ্যতা সম্পর্কে ওই সমীক্ষায় জানানো হয়েছে ৯৬ জনের শিক্ষাগত যোগ্যতা ৫ম থেকে দ্বাদশ শ্রেণির মধ্যে। ৯২ জনের স্নাতক বা তার বেশি এবং ৩ জন ডিপ্লোমাধারী।

প্রথম দফায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন মোট ২১ জন মহিলা প্রার্থী।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in