WB Election 21: বিকেল ৫টা পর্যন্ত ভোট পড়লো ৭০.৮৮%, ভোটদানের শীর্ষে শালবনী, খেজুরী
ছবি সংগৃহীত

WB Election 21: বিকেল ৫টা পর্যন্ত ভোট পড়লো ৭০.৮৮%, ভোটদানের শীর্ষে শালবনী, খেজুরী

রাজ্যে প্রথম দফার ভোটে ৩০ আসনে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত ভোট পড়েছে ৭০.৮৮ শতাংশ। ভোটগ্রহণ চলছে পুরুলিয়া, বাঁকুড়া, পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুর এবং ঝাড়গ্রামে। এদিনের ভোটযুদ্ধে ময়দানে মোট প্রার্থী আছেন ১৯১ জন। বিকেল সাড়ে চারটে পর্যন্ত বাঁকুড়ায় ভোট পড়েছে ৭৩.৬৮%, ঝাড়গ্রামে ৭২.১০%, পশ্চিম মেদিনীপুরে ৭০.৪৮%, পূর্ব মেদিনীপুরে ৭২.৩২% এবং পুরুলিয়াতে ৬৯.৩১%।

বাঁকুড়ার ছাতনায় ৬৮.২৪%,

রায়পুরে ৬০.৩০%,

রানীবাঁধে ৭২.৫৮% এবং

শালতোড়াতে ৭১%।

ঝাড়গ্রামের বিনপুরে ৭২%,

গোপীবল্লভপুরে ৭৪.০৮%,

ঝাড়্গ্রামে ৭২.৩০% এবং

নয়াগ্রামে ৭০%।

পশ্চিম মেদিনীপুরের দাঁতনে ৭৩.৩%,

গড়বেতায় ৬৮.১৭%,

কেশিয়ারিতে ৬২.৫৪%,

খড়্গপুরে ৬২.৬৮%,

মেদিনীপুরে ৭১.৮৯% এবং

শালবনীতে ৭৪%।

পূর্ব মেদিনীপুরের ভগবানপুরে ৭৩.১৩%,

এগরাতে ৬৮.৩%,

কাঁথি দক্ষিণ ৭০.৮৫%

কাঁথি উত্তরে ৭৩.০২%,

খেজুরীতে ৭৬.৯০%,

পটাশপুরে ৭০.৮৫% এবং

রামনগরে ৭৩.৫৯%।

পুরুলিয়ায় বাঘমুন্ডিতে ৬৯.৩৩%,

বলরামপুরে ৬৭.০১%,

বান্দোয়ানে ৭৩.২৮%,

জয়পুরে৬৯.১২%,

কাশিপুরে ৬৯.৫২%,

মানবাজারে ৬৯.৮১%,

পারাতে ৬৮.২২%,

পুরুলিয়াতে ৬৬.০৯%,

রঘুনাথপুরে ৭০.৮%।

এদিনের ভোট নিয়ে ইতিমধ্যেই একাধিক অভিযোগ এসেছে বিরোধীদের তরফে। পাশাপাশি উল্লেখযোগ্য ভাবে বিভিন্ন জায়গায় অভিযোগ এসেছে তৃণমূলের পক্ষ থেকেও।

এদিন সকাল থেকেই রানীবাঁধের বুথে বুথে ঘুরে বেরিয়েছেন সিপিআই(এম) প্রার্থী। তাঁর সুস্পষ্ট অভিযোগ সব কেন্দ্রে যথেষ্ট সংখ্যক কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন নেই।

অন্যদিকে এদিনই সকালে তৃণমূলের হামলার মুখে পড়েন শালবনীর সিপিআই(এম) প্রার্থী সুশান্ত ঘোষ। অভিযোগ এদিন সকালে শালবনির ছোটতারা গ্রামে বুথের সামনেই সুশান্ত ঘোষের গাড়ি ভাঙচুর করা হয়। তাকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখান বেশ কিছু তৃণমূল সমর্থক। সুশান্ত ঘোষের অভিযোগ সেই সময় কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানরা সেখানে ছিলেন না। যদিও তড়িঘড়ি এই ঘটনায় ব্যবস্থা নেয় কমিশন। ঘটনায় যুক্ত থাকার অভিযোগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৭ তৃণমূল কর্মী সমর্থককে।

পুরুলিয়ায় তৃণমূল প্রার্থীর বিরুদ্ধে অভিযোগ তিনি বিজেপি কর্মীদের গুলি করে দেবার হুমকি দিয়েছেন। যদিও এই বিষয়ে তৃণমূলের পক্ষ থেকে কিছু বলা হয়নি। তৃণমূলের অভিযোগ বিজেপি লাগামছাড়া ছাপ্পা চালাচ্ছে। কারচুপি হচ্ছে ইভিএম-এ। যদিও বিজেপির পক্ষ থেকে অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে।

তৃণমূলের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে কমপক্ষে ১৫টি আসনে ভোট প্রভাবিত করার চেষ্টা করছে সিআরপিএফ। এই বিষয়ে অভিযোগ জানাতে তৃণমূলের পক্ষ থেকে নির্বাচন কমিশনে যান ৮ তৃণমূল সাংসদ। এদিন দক্ষিণ কাঁথির একটি বুথে ভোটাররা অভিযোগ করেন তৃণমূলে ভোট দিলে সেই ভোট পড়ছে বিজেপির ঘরে। যা নিয়ে ভোটাররা বিক্ষোভ শুরু করলে দীর্ঘক্ষণ ভোটদান প্রক্রিয়া বন্ধ থাকে।

অন্যদিকে এদিনই বিকেলে বামেদের পক্ষ থেকে নির্বাচন কমিশনে যাচ্ছেন এক প্রতিনিধি দল।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in