পিএসজি-র কাছে পাঁচ গোল হজম করে চ্যাম্পিয়নস লীগ থেকে ছিটকে গেলো বার্সেলোনা

শেষবার ২০০৬-০৭ সালে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লীগের কোয়ার্টার ফাইনালে প্রবেশ করতে ব্যর্থ হয়েছিলো বার্সেলোনা। ১৪ বছর পর আবার সেই দুঃসময়ের শিকার কাতালান জায়ান্টরা।
পিএসজি-র কাছে পাঁচ গোল হজম করে চ্যাম্পিয়নস লীগ থেকে ছিটকে গেলো বার্সেলোনা
বার্সেলোনা ট্যুইটার হ্যান্ডেলের সৌজন্যে

রোনাল্ডোর পর এবার মেসি। উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লীগের কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে ছিটকে গেলেন দুই মহাতারকাই। ২০০৫ সালের পর এই প্রথম মেসি-রোনাল্ডোর একজনও চ্যাম্পিয়নস লীগের শেষ আটে খেলতে পারবেন না। পোর্তোর কাছে হেরে শেষ ষোলো থেকে বিদায় জানিয়েছে জুভেন্তাস। গতরাতে পিএসজির কাছে হেরে ছিটকে গেলো বার্সেলোনাও। শেষবার ২০০৬-০৭ সালে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লীগের কোয়ার্টার ফাইনালে প্রবেশ করতে ব্যর্থ হয়েছিলো বার্সেলোনা। ১৪ বছর পর আবার সেই দুঃসময়ের শিকার কাতালান জায়ান্টরা।

গতরাতে পার্ক দেস প্রিন্সেসে জয়ের জন্য বার্সাকে মিরাকেল করতে হতো। তার কারণ ক্যাম্প ন্যূতে প্রথম লীগের ম্যাচে বার্সা দূর্গ একাই গুঁড়িয়ে দিয়েছিলেন কিলিয়ান এমবাপে। ফরাসী তারকার দুরন্ত হ্যাটট্রিকে স্পেন থেকে ৪-১ ব্যবধানে বড় জয় নিয়ে ফিরেছিলো প্যারিসিয়েনরা। কোয়ার্টারের টিকিট পেতে হলে বার্সেলোনাকে অন্তত চার গোলের ব্যবধানে জয় নিয়ে প্যারিস থেকে ফিরতে হতো। কিন্তু তা সম্ভব হয়নি। পিএসজি-বার্সেলোনার ম্যাচ শেষ হয়েছে ১-১ ব্যবধানে ড্রয়ের মাধ্যমে। ফলস্বরূপ ৫-২ এগ্রিগেটে কোয়ার্টারে পৌঁছে গেছে কেলর নাভাস, কিলিয়ান এমবাপে, ইকার্দিরা।

গতরাতে প্রথমার্ধের ৩০ মিনিটে এগিয়ে যায় পিএসজি। কিলিয়ান এমবাপে পেনাল্টি থেকে গোল করে দলকে এগিয়ে দেন। তবে এর ঠিক সাত মিনিট পরেই পেদ্রির বাড়ানো পাস থেকে গোল করে বার্সাকে সমতা এনে দেন লিও মেসি।

গতরাতে বার্সেলোনা বেশ কয়েকটি ভালো সুযোগ পেয়েছিলো। মোমেন্টামও আসতে পারতো। তবে একের পর এক সুযোগ হাতছাড়া করে হতাশ হয়ে মাঠ ছাড়তে হয় তাদের। প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে গ্রিজম্যানকে ডি বক্সের ভেতরে ফেলে দেওয়ায় পেনাল্টি পায় বার্সা তবে স্পট কিক নিতে গিয়ে ব্যর্থ হন স্বয়ং মেসি। এরপর দাপট দেখালেও আর গোলের দেখা পাওয়া যায়নি রোনাল্ড ক্যোমেনদের।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in