Serie A: নেপলসে ফিরলো মারাদোনার স্মৃতি, দীর্ঘ ৩৩ বছর পর ইতালির লীগ চ্যাম্পিয়ন নাপোলি

মারাদোনার হাত ধরে ১৯৮৭ সালে প্রথম সিরি আ চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল নাপোলি। তিন বছর পর ১৯৯০ সালে দ্বিতীয়বারের মতো খেতাব জেতে তারা।
ক্লাবের জয়ে উচ্ছ্বসিত সমর্থকরা
ক্লাবের জয়ে উচ্ছ্বসিত সমর্থকরাছবি - সিরি আ'র ট্যুইটার

উৎসবের জোয়ারে ভাসছে নেপলস। আজ তাদের বাঁধ ভাঙা আনন্দ। দীর্ঘ ৩৩ বছরের অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে ইতালিয়ান লীগ সিরি আ'র খেতাব ঘরে তুলেছে নাপোলি। শেষবার ১৯৯০ সালে এই খেতাব জিতেছিল তারা। সেবার শিরোপা এসেছিল কিংবদন্তি দিয়েগো মারাদোনার হাত ধরে। মারাদোনা বেঁচে থাকলে তিনিও আজ সামিল হতেন নাপোলির জয়ের আনন্দযজ্ঞে। দিয়েগো নেই। তবে তাঁর স্মৃতি ফিরিয়ে প্রায় তিন দশক পর সিরি আ খেতাব উঠলো নাপোলির ঘরে।

মারাদোনার হাত ধরে ১৯৮৭ সালে প্রথম সিরি আ চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল নাপোলি। তিন বছর পর ১৯৯০ সালে দ্বিতীয়বারের মতো খেতাব জেতে তারা। নেপথ্যে ছিলেন সেই মারাদোনাই। তারপর কেটে গিয়েছে অনেকটা সময়। আর শিরোপা আসেনি। কিন্তু চলতি মরশুমে একপ্রকার স্বপ্নের দৌড়ে ছিল ইতালির ক্লাবটি। বৃহস্পতিবার উদিনেসের বিপক্ষে ড্র করে পাঁচ ম্যাচ হাতে রেখেই শিরোপা জয়ের আনন্দে মাতোয়ারা হয়ে ওঠে তাঁরা।

উদিনেসের বিপক্ষে ড্র করলেই এদিন শিরোপা নিশ্চিত হতো নাপোলির। কিন্তু হারলে হতো বিলম্ব। এদিন অবশ্য প্রথমার্ধে সমর্থকদের হতাশ করে গোল খেয়ে বসেছিল ভিক্টর ওসিমেনরা। ম্যাচের ১৩ মিনিটেই নাপোলির জালে বল জড়ান স্যান্ডি লভরিক। প্রথমার্ধে এই লীডই বজায় রেখে দ্বিতীয়ার্ধে নামে উদিনেস। তবে শেষ হাফের খেলা শুরুর সাথে সাথেই গোল পরিশোধ করে নাপোলি। ৫২ মিনিটের মাথায় দলকে সমতা এনে দেন ভিক্টর ওসিমেন। ম্যাচ শেষ হয় ১-১ ব্যবধানে।

৩৩ ম্যাচ শেষে নাপোলির পয়েন্ট এখন ৮০। নাপোলির নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী লাজিওর পয়েন্ট ৩৩ ম্যাচে ৬৪। তৃতীয় স্থানে থাকা জুভেন্টাসের পয়েন্ট ৩৩ ম্যাচে ৬৩। ৩৩ ম্যাচে ৬০ পয়েন্ট নিয়ে চতুর্থ স্থানে ইন্টার মিলান। শিরোপা নিশ্চিত করেছে নাপোলি। প্রতিটি দলের হাতেই রয়েছে পাঁচটি করে ম্যাচ। এখন অপেক্ষা শুধু শীর্ষ চারে আর কোন তিন দল জায়গা করে নিয়ে চ্যাম্পিয়নস লীগের ছাড়পত্র পায় তা দেখার।

ক্লাবের জয়ে উচ্ছ্বসিত সমর্থকরা
Erling Haaland: সর্বাধিক গোলের রেকর্ড হলান্ডের, গার্ড অফ অনার দিল ম্যান সিটি

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
logo
People's Reporter
www.peoplesreporter.in