আমি ২৩ বছর বয়সী উইদিংটন নিবাসী কৃষ্ণাঙ্গ, একজন মানুষ - র‍্যাশফোর্ড-এর ট্যুইটে উত্তাল সোশ্যাল মিডিয়া

তারকা ফুটবলার বলেন, "আমি বরাবর পেনাল্টি নিতে আত্মবিশ্বাসী থাকি, তবে ফাইনালে আমার আত্মবিশ্বাসের অভাব ছিল। আমি জানি আমি আমার সতীর্থদের এবং গোটা দেশকে হতাশ করেছি। সবশেষে আমি শুধুমাত্র ক্ষমাই চাইতে পারি।"
আমি ২৩ বছর বয়সী উইদিংটন নিবাসী কৃষ্ণাঙ্গ, একজন মানুষ - র‍্যাশফোর্ড-এর ট্যুইটে উত্তাল সোশ্যাল মিডিয়া
মার্কাস র‍্যাশফোর্ডছবি ট্যুইটার থেকে সংগৃহীত

ইতালির কাছে টাইব্রেকারে ৩-২ ব্যবধানে হেরে ইউরো জয়ের স্বপ্ন ভঙ্গ হয়েছে ইংল্যান্ডের। দীর্ঘ ৫৫ বছরের অপেক্ষার পর ইতিহাস তৈরির রাতে হতাশ হতে হয়েছে ব্রিটিশ লায়ন্সদের। টাইব্রেকারে ইংল্যান্ডের হয়ে স্পট কিক নিতে গিয়ে ব্যর্থ হন মার্কাস র‍্যাশফোর্ড, জ্যাডন স্যাঞ্চো এবং বুকায়ো সাকা। ফলস্বরূপ ৩-২ ব্যবধানে টাইব্রেকারে হারতে হয় গ্যারেথ সাউথগেটের দলকে। এই হারের পরেই র‍্যাশফোর্ড, স্যাঞ্চো এবং বুকায়ো সাকার প্রতি বর্ণবাদী মন্তব্যে উত্তাল ইংল্যান্ড।

ইংল্যান্ড তারকা মার্কাস র‍্যাশফোর্ড এই প্রসঙ্গে একটি হৃদয়স্পর্শী লেখা ভাগ করে নিয়েছেন তাঁর ট্যুইটার হ্যান্ডেলে। সোমবার রাতে তিনি লেখেন, "আমার পেনাল্টিটা একেবারেই ভালো ছিলোনা। ওটা গোল হওয়া উচিত ছিলো। কিন্তু আমি কে এবং আমি কোথা থেকে এসেছি তার জন্য কখনো ক্ষমা চাইবো না। আমি ২৩ বছর বয়সী উইদিংটন নিবাসী কৃষ্ণাঙ্গ। একজন মানুষ। এই পরিচয়টা কেউ আমার থেকে কেড়ে নিতে পারবে না।"

ফাইনালে অতিরিক্ত সময়ে জ্যাডন স্যাঞ্চো এবং মার্কাস র‍্যাশফোর্ডকে টাইব্রেকারের জন্যই মাঠে নামান গ্যারেথ সাউথগেট। কিন্তু দুর্ভাগ্যক্রমে দুজনেই স্পট কিক মিস করেন। র‍্যাশফোর্ড লেখেন," পেনাল্টিটাই সবকিছু ছিলো দলকে দেওয়ার জন্য। আমি ঘুমের মধ্যেও পেনাল্টি থেকে স্কোর করতে পারি, তবে এটা কেন নয়? আমার মাথায় এটি সবসময় ঘুরছিলো এবং বল মারার পর যে কী অনুভব করছিলাম তার বর্ণনা করার কোনো শব্দ নেই।"

তারকা ফুটবলার আরও বলেন, "আমি বরাবরই পেনাল্টি নিতে আত্মবিশ্বাসী থাকি, তবে ফাইনালে আমার আত্মবিশ্বাসের অভাব ছিল। আমি জানি আমি আমার সতীর্থদের এবং গোটা দেশকে হতাশ করেছি। সবশেষে আমি শুধুমাত্র ক্ষমাই চাইতে পারি।"

এছাড়াও ইংলিশ তারকা হাতে লেখা কিছু নোট ভাগ করেছেন। তরুণ ভক্তদের কাছ থেকে পাওয়া এই কথাগুলো তাঁকে উৎসাহিত করে বলেও তিনি জানিয়েছেন। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ও অন্যান্য নেতারা ইংল্যান্ড খেলোয়াড়দের প্রতি বর্ণবাদের কারণে হতাশা প্রকাশ করেছেন।

মার্কাস র‍্যাশফোর্ড-এর ট্যুইটের পর তাতে মন্তব্য করেছেন এবি ডি ভিলিয়ারস, মাইকেল ভউগানের মত ক্রিকেট ব্যক্তিত্বরা।

ইউরো ২০২০ ফাইনালে ইতালির কাছে হারের পর ক্ষুব্ধ ইংল্যান্ড সমর্থকরা ম্যাঞ্চেস্টারের উইথিংটনে মার্কাস র‍্যাশফোর্ড-এর একটি ম্যুরাল ভেঙে দেন। ওই ম্যুরালের চারপাশে ভরিয়ে দেওয়া হয় অবমাননাকর মন্তব্যে। শিশুদের অনাহার দূর করতে মার্কাস র‍্যাশফোর্ড-এর প্রচেষ্টাকে সম্মান জানিয়ে এই ম্যুরাল তৈরি করা হয়েছিলো।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in