ফ্রান্সের বিপক্ষে হারের পর রেফারির বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের মরক্কোর

মরক্কোর অভিযোগ, খেলার প্রথমার্ধে সোফানি বৌফালকে ফাউল করেন ফ্রান্সের থিয়ো হার্নান্দেজ। কিন্তু রেফারি সিজার রামোস উলটে বৌফালকেই হলুদ কার্ড দেখান।
রেফারি সিজার রামোস বৌফালকে হলুদ কার্ড দেখাচ্ছেন
রেফারি সিজার রামোস বৌফালকে হলুদ কার্ড দেখাচ্ছেনছবি সংগৃহীত

বিশ্বকাপে ফ্রান্সের কাছে হেরে মরক্কোর স্মরণীয় অভিযানের সমাপ্তি ঘটেছে সেমিফাইনালের মঞ্চে। আর এই হারের পরেই রেফারির বিরুদ্ধে ফিফার কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে মরক্কোর ফুটবল ফেডারেশন। তাদের দাবি ম্যাচে দুটি পেনাল্টির সিদ্ধান্ত মরক্কোর বিরুদ্ধে গেছে। শুধু রেফারি নয়, ভিডিও অ্যাসিস্টেন্ট রেফারিও কোনো প্রতিক্রিয়া দেখাননি। ন্যায্যতার দাবিতে তাই ফিফার কাছে অভিযোগ দায়ের করেছে মরক্কোর ফুটবল ফেডারেশন।

মরক্কোর অভিযোগ, খেলার প্রথমার্ধে সোফানি বৌফালকে ফাউল করেন ফ্রান্সের থিয়ো হার্নান্দেজ। কিন্তু রেফারি সিজার রামোস উলটে বৌফালকেই হলুদ কার্ড দেখান। সেলিম আমাল্লাকে বক্সের মধ্যে ফাউল করা হয়েছিল বলে মরক্কোর অভিযোগ। কিন্তু দুটো ক্ষেত্রেই রেফারির সিদ্ধান্ত গিয়েছে ফ্রান্সের পক্ষে।

রিপোর্ট অনুযায়ী, সেমিফাইনালের প্রথমার্ধে রেফারি সিজার রামোস মরক্কোর দুটি পেনাল্টি অস্বীকার করেন। দ্য অ্যাথলেটিক এফআরএমএফের একটি বিবৃতি উদ্ধৃত করে বলেছে, "ফ্রান্স-মরক্কো ম্যাচে রেফারির বিদ্বেষপূর্ণ আচরণ নিয়ে এফআরএমএফ ফিফার কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে। বিশেষত প্রথমার্ধে মরক্কোর পক্ষে দুটি পেনাল্টি না দেওয়ায় এই অভিযোগ করেছে মরক্কো ফুটবল ফেডারেশন।"

আফ্রিকার প্রথম দল হিসেবে বিশ্বকাপের সেমি ফাইনালে পৌঁছে ইতিহাস গড়েছে মরক্কো। কিন্তু শেষ চারের লড়াইয়ে ফ্রান্সের বিরুদ্ধে দুর্দান্ত লড়াই করেও হার মানতে হয় আফ্রিকার দলটিকে। ফ্রান্স ২-০ গোলে জিতে ফাইনালে পৌঁছে গিয়েছে। দেশঁর দলের হয়ে গোল করেছেন থিও হার্নান্দেজ এবং কোলো মুয়ানি। রবিবার কাতার বিশ্বকাপের ফাইনালে মুখোমুখি হবে আর্জেন্টিনা এবং ফ্রান্স।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in