Asia Cup 2022: পাকিস্তানের আসিফ আলিকে এশিয়া কাপ থেকে নির্বাসিত করার দাবি আফগানিস্তানের

আসিফ আলি যখন আউট হন তার আগে পর্যন্ত পাকিস্তানের জয়ের জন্য প্রয়োজন ছিল ১২ রান। এই সময় ফারিদ আউট করে দেন আসিফকে। আসিফের সামনে গিয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করতেই পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে।
খেলা চলাকালীন আসিফ আলির সাথে ফারিদের ঝামেলা
খেলা চলাকালীন আসিফ আলির সাথে ফারিদের ঝামেলাছবি সংগৃহীত

গতকাল এশিয়া কাপে পাকিস্তান বনাম আফগানিস্তান ম্যাচে মাঠের মধ্যেই শুরু হয় হাতাহাতি। পাক ক্রিকেটার আসিফ আলির উইকেট নিয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করছিলেন আফগান বোলার ফারিদ। আর তাতেই মেজাজ হারিয়ে ফারিদকে ধাক্কা মেরে দেন আসিফ। ব্যাট উঁচিয়ে তাঁকে মারার ইঙ্গিত করেন। পরিস্থিতি হাতের বাইরে চলে যাওয়ার আগেই আফগানিস্তানের অন্য ক্রিকেটাররা চলে আসেন। এই ঘটনার রেশ এখন ক্রমশ বাড়ছে।পাক ক্রিকেটার আসিফকে এশিয়া কাপ থেকে বার করে দেওয়ার দাবি করছে আফগানিস্তান।

আফগানিস্তানের প্রাক্তন অধিনায়ক গুলবাদিন নাইব টুইটারে লিখেছেন, "আসিফ আলি মাঠে খুবই খারাপ কাজ করেছেন। ওকে টুর্নামেন্টের বাকি ম্যাচে ব্যান করা উচিত। যে কোনও বোলারেরই অধিকার আছে ব্যাটসম্যানের আউট হওয়ার সেলিব্রেশন করার। এ ভাবে লড়াই করা ঠিক নয়।"

আসিফ আলিকে প্রতিযোগীতা থেকে নির্বাসিত করার দাবি তুলেছেন আফগানিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের প্রাক্তন সিইও শফিক স্তানিকজাই। ট্যুইট করে স্তানিকজাই লিখেছেন,"এটা সর্বোচ্চ পর্যায়ের মূর্খামি। আসিফকে বাকি প্রতিযোগিতা থেকে নির্বাসিত করা উচিত। উইকেট নেওয়ার পরে যে কোনও বোলারের উল্লাস করার অধিকার রয়েছে। কিন্তু আসিফ যা করেছে তা মেনে নেওয়া যায় না।"

এই ঘটনায় যেখানে ক্রিকেট বিশ্ব রীতিমত স্তম্ভিত, সেখানে প্রাক্তন পাক পেসার শোয়ব আখতার আবার সমালোচনা করেছেন আফগানিস্তানের ক্রিকেটারদের। শোয়েব আফগান দলের উদ্দেশ্যে বলেন," তোমরা ক্রিকেট খেলতে এসেছ, সেটা খেলো। তার জন্য আবেগ থাকা ভাল। কিন্তু অসভ্যতা ভাল নয়। এই জন্যই ঈশ্বর তোমাদের সাজা দিয়েছে। এই জন্যই এক জন পাঠান ছক্কা মেরে তোমাদের হারিয়ে দিল। তোমাদের কাঁদতে হল।"

গতকাল আসিফ আলি যখন আউট হন তার আগে পর্যন্ত পাকিস্তানের জয়ের জন্য প্রয়োজন ছিল ১২ রান এবং হাতে ছিল মাত্র দুটি উইকেট। স্বাভাবিকভাবেই আসিফের উইকেটটি ছিল মহামূল্যবান। এই সময় ফারিদ আউট করে দেন আসিফকে। আসিফের সামনে গিয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন এই আফগান বোলার। তারপরেই পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in