এলগার পরিষদ মামলা: ৭ জুন পর্যন্ত তালোজা জেলেই থাকতে হবে বর্ষীয়ান সমাজকর্মী স্ট্যান স্বামীকে

ঝাড়খণ্ডের বাসিন্দা খ্রিস্টান মিশনারি স্ট্যানকে গত বছরের অক্টোবর মাসে গ্রেপ্তার করে এনআইএ
এলগার পরিষদ মামলা: ৭ জুন পর্যন্ত তালোজা জেলেই থাকতে হবে বর্ষীয়ান সমাজকর্মী স্ট্যান স্বামীকে
ফাদার স্ট্যান স্বামী ফাইল ছবি উইকিপিডিয়ার সৌজন্যে

সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসার বদলে তিনি কষ্ট পেয়ে মরে যাবেন, এমনটাই জানালেন ভীমা-কোরেগাঁও হিংসার ঘটনায় ধৃত খ্রিস্টান মিশনারি স্ট্যান স্বামী। শুক্রবার বম্বে হাইকোর্টে মামলার শুনানি চলাকালীন তিনি বলেন, গ্রেপ্তারির পর থেকেই তাঁর স্বাস্থ্যের ক্রমাগত অবনতি হয়েছে। তবে মুম্বইয়ের সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসার বদলে তিনি রোগে ভুগে মারা যাওয়া বেশি পছন্দ করবেন।

৮৪ বছরের স্বামীকে আগামী ৭ জুন পর্যন্ত তালোজা জেলে রাখার নির্দেশ দিয়েছে বম্বে হাইকোর্টের বেঞ্চ। তবে চিকিৎসকদের পরামর্শ মতে জেলের মধ্রেই যেন স্বামীর চিকিৎসা করা হয়, সেদিকে নজর রাখতে জেল কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। শুক্রবার এলগার পরিষদ-মাওবাদী সংযোগ মামলায় ভিডিয়ো কনফারেন্সের মাধ্যমে বিচারপতি এসজে কাঠাওয়ালা ও এসপি তাভাডের সামনে পেশ করা হয় স্ট্যান স্বামীকে। জেল কর্তৃপক্ষের তরফে মুম্বইয়ের জেজে হাসপাতাল থেকে স্ট্যান স্বামীর স্বাস্থ্য রিপোর্ট জমা দেওয়া হয়

সেই রিপোর্টে জানানো হয়েছে, স্ট্যান স্বামী দুই কানেরই শ্রবণশক্তি খুবই কম, ওনার পায়ের উপরিভাগে পেশি দুর্বল ও ক্রমাগত কাঁপুনি হয়। ওনার হাঁটার জন্য লাঠি বা হুইলচেয়ারের প্রয়োজন। বাকি সবকিছু মিলিয়ে ওনার শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল।

ঝাড়খণ্ডের বাসিন্দা খ্রিস্টান মিশনারি স্ট্যানকে গত বছরের অক্টোবর মাসে গ্রেপ্তার করে এনআইএ। তাঁর বিরুদ্ধে ২০১৭ সালে পুণের ভীমা-কোরেগাঁওয়ে মাওবাদীদের সাহায্যে হিংসা ছড়ানোর অভিযোগ করা হয়েছে। ঘটনায় মাওবাদী ঘনিষ্ঠ সংগঠন এলগার পরিষদও জড়িত ছিল বলে অভিযোগ।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in