UNESCO Tag: রাজ্যের কোষাগারের বেহাল দশা - তবু দুর্গাপূজার মিছিলে বিশাল ব্যয় কেন? উঠছে প্রশ্ন

এই জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠানের মধ্যেই, এই জাতীয় মিছিলের পিছনে বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয় করা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। চরম অর্থ সঙ্কটে থাকা রাজ্যের কোষাগারের ওপর এই পরিমাণ খরচ অতিরিক্ত চাপ সৃষ্টি করছে বলে অভিমত।
ইউনেস্কোর কালচারাল হেরিটেজ ট্যাগ প্রাপ্তিতে কলকাতায় মিছিল
ইউনেস্কোর কালচারাল হেরিটেজ ট্যাগ প্রাপ্তিতে কলকাতায় মিছিল ছবি, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ফেসবুক পেজ থেকে সংগৃহীত

পশ্চিমবঙ্গে পূজার সময়সূচির এক মাস আগে এই বছর দুর্গাপুজো উদযাপন শুরু হয়েছে। দুর্গাপুজোর জন্য ইউনেস্কোর কালচারাল হেরিটেজ ট্যাগ প্রাপ্তিতে বৃহস্পতিবার কলকাতায় রাজ্য সরকার কর্তৃক আয়োজিত একটি বিশাল ট্যাবলো সজ্জিত র‍্যালি এবং জেলায় জেলায় মিছিল বার্ষিক উৎসবের সূচনা করেছে।

যদিও এই ধরনের আড়ম্বর এবং জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠানের মধ্যেই, এই জাতীয় মিছিলের পিছনে বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয় করা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। চরম অর্থ সঙ্কটে থাকা রাজ্যের কোষাগারের ওপর এই পরিমাণ খরচ অতিরিক্ত চাপ সৃষ্টি করছে বলে অভিমত।

রাজ্যের অর্থ দফতরের অনুমান অনুসারে, রাজ্য জুড়ে এই জাতীয় মহা মিছিল করার জন্য পশ্চিমবঙ্গ সরকার যে খরচ বহন করেছে তা ১০ কোটি টাকা হতে পারে।

রাজ্যের বিভিন্ন পুজো কমিটিকে দেওয়া আর্থিক অনুদান এবং বিদ্যুৎ বিলে ছাড় বাবদ ২৫৮ কোটি টাকার আর্থিক প্যাকেজের ওপর অতিরিক্ত এই টাকা খরচ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার, কলকাতায় মহাসমাবেশে অংশ নেওয়ার সময় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ইউনেস্কোর প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে বলেন দুর্গাপূজা কেবল একটি ধর্মীয় উত্সব নয়।

তিনি বলেন, "উৎসবের সাথে বিশাল আর্থিক লেনদেন এবং ব্যবসা বৃদ্ধির সুযোগ জড়িত। যা এমন একটি বিষয় যাকে উপেক্ষা করা যায় না। ধর্ম একটি ব্যক্তিগত বিষয়। তবে উৎসব সবার জন্য। আমার কাছে একমাত্র ধর্ম মানবতা। ঐক্য আমাদের শক্তি।"

রাজ্য সরকার যখন আর্থিক সংকটের মুখোমুখি সেই সময় এই বিপুল খরচের যৌক্তিকতা নিয়ে বিরোধী নেতৃত্ব এবং অর্থনীতিবিদরা প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন,

সিপিআই(এম) পলিটব্যুরো সদস্য মহ সেলিম বলেন, মুখ্যমন্ত্রী দুর্গাপূজার স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্যকে সরকারী কর্মসূচিতে রূপান্তরিত করে নষ্ট করছেন।

সেলিম আরও বলেন, "রাজ্য সরকারের মহার্ঘ ভাতা বকেয়া দীর্ঘদিন ধরে বকেয়া। তহবিলের স্বল্পতার কারণে রাজ্য সরকার স্থায়ী চাকরি বন্ধ করে দিয়েছে। অথচ উৎসবের নামে এই ধরনের অযথা খরচের আশ্রয় নিচ্ছে। শিক্ষক নিয়োগ অনিয়ম, গবাদি পশু চোরাচালান, কয়লা চোরাচালান ইত্যাদির মতো আর্থিক কেলেঙ্কারিতে তৃণমূলের শীর্ষ নেতৃত্বের জড়িত থাকা থেকে জনসাধারণের মনোযোগ সরাতে এটি একটি চক্রান্ত।”

অর্থনীতির অধ্যাপক শান্তনু বসু বলেন, যেখানে ঋণ থেকে মোট দেশীয় পণ্যের অনুপাত (জিএসডিপি) ৩০ শতাংশ ছাড়িয়ে গেছে সেখানে এই অপব্যয় প্রমাণ করে যে রাজ্য সরকার রাজ্যের অর্থনীতির অনিশ্চিত অবস্থার দিকে চোখ বন্ধ করে রাখছে।

তিনি আরও বলেন, "রাজ্যের অর্থনীতিকে সম্পূর্ণ দেউলিয়া করে দেওয়ার দিকেই রাজ্য সরকার এগোচ্ছে।"

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in