নাৎসিবাদের পুনর্জন্ম ঠেকানোর ডাক পুতিনের, 'বিজয় দিবস' কেন গুরুত্বপূর্ণ রাশিয়ার কাছে!

পুতিন বলেন, ‘দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে যারা পরাজিত হয়েছিল, তাদের মতাদর্শিক উত্তরসূরিদের লাগাম টেনে ধরা আমাদের পবিত্র দায়িত্ব।’
নাৎসিবাদের পুনর্জন্ম ঠেকানোর ডাক পুতিনের, 'বিজয় দিবস' কেন গুরুত্বপূর্ণ রাশিয়ার কাছে!
বিজয় দিবসের প্যারেডছবি - সংগৃহীত

এক ঐতিহাসিক কারণেই আজ সবার নজর রাশিয়ার দিকে। ৯ মে ১৯৪৫ সাল, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধকালে এই দিনেই জার্মানির নাৎসি বাহিনীকে পরাজিত করেছিল তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়ন। অবসান হয়েছিল এক মহাযুদ্ধের। আর তা স্মরনে রেখেই, সোমবার দেশের সামরিক বাহিনীর মনোবল বাড়ানোর চেষ্টা করলেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। বিজয় দিবসের দিন মস্কোর রেড স্কোয়ার থেকে তিনি জানিয়েছেন, ‘দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে যারা পরাজিত হয়েছিল, তাদের মতাদর্শিক উত্তরসূরিদের লাগাম টেনে ধরা আমাদের পবিত্র দায়িত্ব।’

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে ‘বিশেষ সামরিক অভিযান’ শুরু করে রুশ বাহিনী। এই অভিযান চলার মধ্যেই দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে নাৎসি জার্মানির পরাজয়ের ৭৭তম বার্ষিকী উদ্‌যাপন করছে রাশিয়া। মস্কোর রেড স্কোয়ারে সামরিক কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠিত হয়েছে। আর সেখান থেকে পুতিন আত্মবিশ্বাসের সুরে জানিয়েছেন, ‘পূর্বসূরিদের মতোই আজ আমাদের সেনারা নাৎসিদের কলুষতা থেকে তাঁদের মাতৃভূমিকে মুক্ত করার জন্য, আত্মবিশ্বাস নিয়ে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াই করছে। আমি আশাবাদী, ১৯৪৫ সালের মতো জয় আমাদেরই হবে।’

এদিন পুতিন বলেন, ‘আজ নাৎসিবাদের পুনর্জন্ম ঠেকানো আমাদের সবার সাধারণ দায়িত্ব। কারণ, এই নাৎসিবাদের কারণেই বিভিন্ন দেশের জনগণকে চরম ভোগান্তি স্বীকার করতে হয়েছে।’ একইসঙ্গে তিনি আশা করে বলেন, ‘নতুন প্রজন্ম তাদের পিতা ও পিতামহের যুদ্ধজয়ের সেই স্মৃতি ধরে রাখার যোগ্য হয়েছে।’

এদিকে জানা যাচ্ছে, রাশিয়ার উপর বিশ্বের সবচেয়ে বেশি নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছে। বিশ্বের অন্যতম এই পরাশক্তির কাঁধে চেপেছে মোট ৭ হাজার ৩৮৬ টি নিষেধাজ্ঞার বোঝা চেপেছে । এর মধ্যে চার হাজার ৩৬২ টি নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে ইউক্রেনে ‘বিশেষ সামরিক অভিযান’ শুরুর পরে। এবিষয়ে বিশ্ব নিরাপত্তা ঝুঁকি ও নিষেধাজ্ঞা নিয়ে কাজ করা ওয়েবসাইট ‘কাস্টেলাম ডট এআই’ জানিয়েছে, ইউক্রেনে হামলার পর থেকে রাশিয়ার উপর সবচেয়ে বেশি ৮৭৮ টি নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে ব্রিটেন।

একইসঙ্গে সুইজারল্যান্ড নিষেধাজ্ঞা চাপিয়েছে ৭৭৪টি। ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলি একযোগে রাশিয়ার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিবর্গের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে ৬৯৬ টি। অস্ট্রেলিয়াও নিষেধাজ্ঞা চাপিয়েছে ৪৭৯ টি। তবে, ইউক্রেনে ‘বিশেষ সামরিক অভিযান’ শুরুর পরে রাশিয়ার উপর সবথেকে কম নিষেধাজ্ঞা চাপিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। পরিসংখ্যানের হিসাবে তা ২৯৩ টি। তারপরেও দমানো যায়নি রাশিয়াকে। এরইমাঝে আজ (৯ মে), দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের বিজয় কালের ৭৭তম বার্ষিকীতে আরও একবার নাৎসিবাদের পুনর্জন্ম ঠেকানোর ডাক দিলেন পুতিন।

বিজয় দিবসের প্যারেড
Ukraine Crisis: রাশিয়ার চাপের কাছে নতিস্বীকার - 'রুবল' দিয়েই জ্বালানি কিনছে ইউরোপের একাধিক দেশ

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.