রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থার বিলগ্নীকরণ হলে বন্ধ হবে সংরক্ষণও - ইঙ্গিত কেন্দ্রের

বিপিসিএল-এর প্রশ্নের ক্ষেত্রে বিনিয়োগ ও রাষ্ট্রায়ত্ত সম্পদ পরিচালনা দপ্তর থেকে বলা হয়েছে, সংরক্ষণ নীতি কেবলমাত্র সরকারি সংস্থা ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য। বিপিসিএল বিলগ্নির পর তা আর সরকারি সংস্থা থাকবে না।
রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থার বিলগ্নীকরণ হলে বন্ধ হবে সংরক্ষণও - ইঙ্গিত কেন্দ্রের
ছবি প্রতীকী সংগৃহীত

রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা বিলগ্নীকরণ হলে সংরক্ষণও বন্ধ হয়ে যাবে তাতে। সম্প্রতি এমনই ইঙ্গিত দিল কেন্দ্র। সরকারের যুক্তি, সংরক্ষণ নীতি কেবলমাত্র সরকারি সংস্থার ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য। কোনো সংস্থা বিলগ্নির পরে তা আর সরকারি সংস্থা থাকবে না। তাই সেক্ষেত্রে সংরক্ষণের কোনো প্রশ্নই নেই।

সম্প্রতি লোকসভায় প্রশ্ন করা হয়েছিল, রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থায় তফসিলি জাতি, উপজাতি, অন‍্যান‍্য অনগ্রসর শ্রেণি (ওবিসি)-র জন্য কত পদ সংরক্ষিত রয়েছে এবং সরকারের প্রস্তাবিত বেসরকারিকরণ এবং বিলগ্নির পরে এই সংরক্ষণ কমে যাবে কিনা। নির্দিষ্ট করে ভারত পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন লিমিটেড বা বিপিসিএল-এর বেসরকারিকরণের পর সংরক্ষণ থাকবে কিনা জানতে চাওয়া হয়েছিল।

এর উত্তরে ভারী শিল্প ও রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থার দত্তের মন্ত্রী লিখিতভাবে জানান, ২০২০ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত কেন্দ্রীয় রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থায় মোট কর্মী ৯ লক্ষ ১৯ হাজার ৬৪৮। এর মধ্যে তফসিলি জাতি রয়েছে ১ লক্ষ ৬০ হাজার ৩৮৪, যা মোট কর্মীর ১৭.৪৪ শতাংশ। তফসিলি উপজাতি রয়েছে ৯৯ হাজার ৬৯৩ (১০.৮৪ শতাংশ) এবং ওবিসি রয়েছে ১ লক্ষ ৯৮ হাজার ৫৮১ (২১.৫৯ শতাংশ)।

বিপিসিএল-এর প্রশ্নের ক্ষেত্রে বিনিয়োগ ও রাষ্ট্রায়ত্ত সম্পদ পরিচালনা দপ্তর থেকে বলা হয়েছে, সংরক্ষণ নীতি কেবলমাত্র সরকারি সংস্থা ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য। বিপিসিএল বিলগ্নির পর তা আর সরকারি সংস্থা থাকবে না। অর্থাৎ দেশের পিছিয়ে পড়া অংশের অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নের জন্য যে সংরক্ষণ নীতি চালু হয়েছিল, বিলগ্নির পর কোনো সংস্থাতেই তার আর থাকবে না।

গতকালই কেন্দ্রীয় অসামরিক পরিবহন মন্ত্রী হরদীপ সিং পুরি স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন, জাতীয় বিমান সংস্থা এয়ার ইন্ডিয়া-কে ১০০ শতাংশ বিলগ্নিকরণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্র। সংবাদমাধ্যমে তিনি জানিয়েছেন, "সম্পূর্ণ বিলগ্নিকরণ নতুবা তালাবন্ধ - এই দুটোর মধ্যে যে কোনো একটা বেছে নিতে হবে। আমরা এয়ার ইন্ডিয়া-কে ১০০ শতাংশ বিলগ্নিকরণের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এয়ার ইন্ডিয়ার এবার নতুন কারো হাতে যাওয়া উচিত।"

যদিও এয়ার ইন্ডিয়া যে লাভজনক সংস্থা তা স্বীকার করে নিয়েছেন মন্ত্রী। তিনি‌ জানিয়েছেন, আগে এয়ার ইন্ডিয়ার বিমান পরিষেবা চালাতে প্রতিদিন ২০ কোটি টাকা লোকসান হতো। এখন পরিষেবা উন্নত হওয়ায় সেই লোকসান কাটিয়ে লাভজনক সংস্থা হয়ে উঠেছে এটি। কিন্তু তারপরেও এটির বিলগ্নিকরণ সিদ্ধান্তে প্রশ্ন তুলছে বিরোধীরা।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in