Odisha: গত ৩ বছরে হাতির আক্রমণে দেশের সর্বোচ্চ সংখ্যক মানুষের প্রাণহানি ওড়িশায়

২০১৯-২০ থেকে ২০২১-২২-র মধ্যে ভারতে হাতির আক্রমণে ১,৫৭৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। যার মধ্যে ওড়িশায় মৃত্যু হয়েছে ৩২২ জনের। যার মধ্যে ২০১৯-২০তে মৃত্যু হয়েছে ১১৭ জনের, ২০২০-২১ সালে ৯৩ জন এবং ২০২১-২২-এ ১১২ জনের।
ছবি প্রতীকী
ছবি প্রতীকী ফাইল ছবি নিউজ অন এয়ারের সৌজন্যে

গত তিন বছরে হাতির আক্রমণে দেশের সর্বোচ্চ সংখ্যক মানুষের প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে ওড়িশায়৷ লোকসভার শেষ অধিবেশনে কেন্দ্রীয় পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী ভূপেন্দ্র যাদবের এক বিবৃতি অনুসারে ২০১৯-২০ থেকে ২০২১-২২-এর মধ্যে ভারতে হাতির আক্রমণে ১,৫৭৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। যার মধ্যে ওড়িশায় মৃত্যু হয়েছে ৩২২ জনের। যার মধ্যে ২০১৯-২০ তে মৃত্যু হয়েছে  ১১৭ জনের, ২০২০-২১ সালে ৯৩ জন এবং ২০২১-২২-এ ১১২ জনের।

একই সময়ে, ওড়িশায় শিকার, বৈদ্যুতিক আঘাত, ট্রেন দুর্ঘটনা, সড়ক দুর্ঘটনা ইত্যাদি সহ বিভিন্ন কারণে বন্য হাতিদের মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। সরকারী তথ্য অনুসারে ২০১৯-২০ থেকে  ২০২১-২২ এই সময়ে ওড়িশায় কমপক্ষে ২৪৫টি হাতি মারা গেছে। যেখানে ২০১৯-২০ সালে ৮২টি হাতি মারা গেছে, ২০২০-২১ সালে ৭৭টি এবং ২০২১-২২ সালে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে ৮৬ হয়েছে।

গত তিন বছরে ঘটে যাওয়া ২৪৫টি হাতির মৃত্যুর মধ্যে ৩৫টির মৃত্যু হয়েছে ঢেঙ্কানাল বন বিভাগে। খনিজ সমৃদ্ধ কেওনঝার বিভাগে ২১টি এবং আঙ্গুলে ১২টি মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

গত তিন বছরে, দেওগড় এবং অথমল্লিক বন বিভাগে ১১টি করে হাতির মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে যেখানে বালাসোর বন্যপ্রাণী বিভাগ, কালাহান্ডি (দক্ষিণ) এবং খুরদা বিভাগ থেকে এই ধরনের ১০টি মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

গত এক দশকে (২০১২-১৩ থেকে ২০২১-২২), ওড়িশায় ৭৮৪টি হাতির মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে, যার মধ্যে ৩৬টি হাতি দুর্ঘটনায় মারা গেছে এবং ৩৪টি শিকারি এবং অন্যদের দ্বারা বিভিন্ন কারণে মারা গেছে। ৩৬টি দুর্ঘটনাজনিত মৃত্যুর মধ্যে ৩০টি ট্রেন দুর্ঘটনায়, ৬টি সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছে।

এই মৃত্যুগুলি ছাড়াও, জুন এবং জুলাই মাসে ওড়িশা পুলিশ কটক জেলার আঠাগড় বন রেঞ্জ থেকে একটি টাস্কর সহ পাঁচটি হাতির হাড় এবং মৃতদেহ খুঁজে পেয়েছিল।

এই পরিসংখ্যান রাজ্যে মানুষ-হাতি সংঘর্ষের দিক নির্দেশ করে। মানুষের প্রাণহানির পাশাপাশি হাতিরা হাতির আবাসস্থলের কাছাকাছি বসবাসকারী মানুষের বাড়িঘর ও ফসল নষ্ট করছে।

উড়িষ্যা-ভিত্তিক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা, ওড়িশা এনভায়রনমেন্টাল সোসাইটির সেক্রেটারি জয় কৃষ্ণ পানিগ্রাহি বলেছেন, ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যা, বনভূমির অবক্ষয় এবং মানব আচরণের কারণে ওড়িশায় মানব-হাতির সংঘর্ষ বাড়ছে।

তিনি বলেন, "আমাদের জঙ্গল আছে, কিন্তু বিভিন্ন কারণে সেগুলোর গুণমানের অবনতি হয়েছে। বনের ভেতরেও খাদ্য ও জলের অভাব রয়েছে, যা হাতিদের মানুষের আবাসস্থলে আসতে বাধ্য করে।"

এছাড়া বন্যপ্রাণীদের চলাচলের জন্য বনাঞ্চলের সাথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে বলে জানান পানিগ্রাহী।

পরিবেশবিদ বলেন, পরিস্থিতির প্রতিকারের জন্য, "আমাদের নিশ্চিত করতে হবে যে হাতিরা বনের মধ্যে তাদের প্রয়োজনীয় সমস্ত কিছু পাবে এবং বনাঞ্চলের কাছাকাছি অধিবাসীদের অন্যান্য ফসল চাষে উদ্বুদ্ধ করা উচিত এবং বন্য হাতিদের সাথে কীভাবে আচরণ করতে হয় তা শিখতে হবে যাতে তারাও বেঁচে থাকতে পারে।

বন্য হাতিদের সংরক্ষণ ও সুরক্ষার জন্য রাজ্য সরকারের নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপ সম্পর্কে অবহিত করে, ওড়িশার বনমন্ত্রী প্রদীপ আমট, ১৯ জুলাই বিধানসভায় লিখিত উত্তরে বলেছিলেন, হাতির মৃত্যু রোধ করতে ১৪টি হাতি করিডোর এবং ৩টি হাতি সংরক্ষণ প্রকল্প নেওয়া হয়েছে।

রাজ্য সরকার হাতিদের পানীয় জল দেওয়ার জন্য পুকুর খনন করেছে। গত তিন বছরে অন্তত ৪০২টি পুকুর খনন করা হয়েছে এবং ৪২৬টি পুকুর পুনরুদ্ধার করা হয়েছে।

উত্তর অনুসারে, ১৭১৫ জন কর্মী সমন্বিত ৩৪৩টি অ্যান্টি-পোচিং স্কোয়াডকে কৌশলগত স্থানে হাতির শিকার রোধে মোতায়েন করা হয়েছে। চোরা শিকারীদের গতিবিধির উপর কড়া নজরদারি রাখতে এবং হাতির আবাসস্থল, তাদের গতিবিধি সম্পর্কে জানতে ড্রোন এবং ওয়াচ টাওয়ার ব্যবহার করা হচ্ছে।

গুরুত্বপূর্ণ মামলায় তদন্ত ও ব্যবস্থা নিতে অপরাধ শাখার বিশেষ টাস্ক ফোর্সের (এসটিএফ) অধীনে একটি অপরাধ সেল গঠন করেছে রাজ্য।  বন্য প্রাণীদের নিরাপদে যাতায়াতের জন্য রেললাইনের ৩৫টি স্থানে পশুর ওভারপাস বা আন্ডারপাস নির্মাণের প্রস্তাব করা হয়েছে।

এছাড়া বিভিন্ন মহাসড়কের ৪৯টি স্থানে আন্ডারপাস প্রস্তাব করা হয়েছে, যার কাজ ১১টি স্থানে সম্পন্ন হয়েছে এবং আরো ১৫টি স্থানে চলছে। বন্য প্রাণীর আক্রমণে মৃত্যুর জন্য ক্ষতিপূরণের পরিমাণ ৩ লাখ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৪ লাখ টাকা করেছে রাজ্য।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in