Naga Peace Talk: আলোচনা চললেও পৃথক সংবিধান ও পতাকার দাবিতে অনড় বিদ্রোহী ইসাক-মুইভা গোষ্ঠী

নাগা নেতাদের অবস্থান উদ্ধৃত করে সূত্র জানাচ্ছে, যে এনএসসিএন তাদের অবস্থান স্পষ্ট করে জানিয়েছে যে তারা নাগা জাতীয় পতাকা এবং সংবিধানের প্রশ্নে অনড় থাকবে। যা নাগা রাজনৈতিক সংগ্রামের মুখ এবং পরিচয়।
Naga Peace Talk: আলোচনা চললেও পৃথক সংবিধান ও পতাকার দাবিতে অনড় বিদ্রোহী ইসাক-মুইভা গোষ্ঠী
ছবি - সংগৃহীত

কেন্দ্রীয় সরকার ন্যাশনাল সোস্যালিস্ট কাউন্সিল অফ নাগালিম (এনএসসিএন-আইএম) নেতাদের ইসাক-মুইভা গোষ্ঠীর সাথে শান্তি আলোচনা চালিয়ে যাবার প্রচেষ্টা চালালেও নাগা নেতারা তাদের পৃথক সংবিধান এবং পতাকার দাবিতে অনড় থাকায় আলোচনায় বাধা সৃষ্টি হয়েছে।

এই ঘটনাগুলি সম্পর্কে পাওয়া সূত্র অনুসারে, কেন্দ্র আশাবাদী যে ছয় দশক ব্যাপী শান্তি আলোচনার সফল সমাধান পাওয়া যাবে এবং তা যুক্তিগত সিদ্ধান্তে পৌঁছাবে। কিন্তু সাম্প্রতিক বিবৃতিতে নাগা নেতারা কেন্দ্রকে সমাধান পরবর্তী বিকল্প দেওয়ার জন্য দায়ী করেছেন।

নাগা নেতাদের অবস্থান উদ্ধৃত করে ওই সূত্র জানাচ্ছে, যে এনএসসিএন তাদের অবস্থান স্পষ্ট করে জানিয়েছে যে নাগা জাতীয় পতাকা এবং সংবিধানের প্রশ্নে তারা অনড় থাকবে। যা নাগা রাজনৈতিক সংগ্রামের মুখ এবং পরিচয়।

নাগা নেতারা আরও বলেছেন যে, পরিস্থিতি যখন ক্রমশ উত্তপ্ত হয়ে উঠছে তখন কেন্দ্র রাজনৈতিক সমাধান খোঁজার নামে বিভাজনমূলক নীতি এবং তোষামোদের পথ বেছে নিচ্ছে।

নাগা বিদ্রোহী গোষ্ঠীর একটি সূত্র জানিয়েছে, চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে কেন্দ্র যখন শান্তি প্রক্রিয়া পুনরায় শুরু করে এবং গোয়েন্দা ব্যুরোর (আইবি) প্রাক্তন বিশেষ পরিচালক এ কে মিশ্রকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দূত হিসেবে বিদ্রোহী সংগঠনের প্রধান আলোচক এবং সাধারণ সম্পাদক টি মুইভার কাছে পাঠায়, তিনি তাকে আশ্বস্ত করেন যে ২০১৫ সালে স্বাক্ষরিত মূল কাঠামোর অধীনে শান্তি আলোচনা শুরু হবে।

সরকারের অবস্থান সমালোচনা করতে গিয়ে বিদ্রোহী সংগঠনের একজন গুরুত্বপূর্ণ পদাধিকারী বলেন, "ইন্দো-নাগা রাজনৈতিক ইস্যুর অতীত ইতিহাস আমাদের সামনে খুবই স্পষ্ট। ঐক্যমত্য এবং চুক্তি হওয়ার পরেও যা কখনোই অক্ষরে অক্ষরে বাস্তবায়ন করা হয়নি"। দিল্লিতে চলা ইন্দো-নাগা রাজনৈতিক আলোচনায় সমাধানের পথে দুই বড়ো সমস্যা নাগা জাতীয় পতাকা এবং ইয়েজাবো (সংবিধান) সম্পর্কে আমরা কথা বলেছি।

কেন্দ্রকে দোষারোপ করে তিনি আরও অভিযোগ করেন, সমাধান সূত্র খুঁজে পেতে নাগা জনগণকে তাড়াহুড়ো করে যা প্রস্তাব দেওয়া হচ্ছে তা গ্রহণ করতে আবার নাগা জনগণকে রাজি করানোর চেষ্টা করা হচ্ছে।

কেন্দ্রের আমন্ত্রণে, টিএস মুইভাসহ এনএসসিএন-আইএম-এর সিনিয়র নেতারা কেন্দ্রের সঙ্গে আরেক দফা আলোচনার জন্য চলতি বছরের অক্টোবর মাসের ৬ তারিখে দিল্লিতে এসেছিলেন।

কেন্দ্র এবং নাগা নেতারা উভয়েই এই বছরের শেষের দিকে এই দীর্ঘদিনের ইস্যুটিকে সৌহার্দ্যপূর্ণভাবে সমাধান করার ব্যাপারে তাদের আগ্রহ দেখিয়েছেন।

আসামের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা, যিনি নর্থ ইস্ট ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্সের (NEDA) চেয়ারম্যান এবং নাগাল্যান্ডের মুখ্যমন্ত্রী নিফিউ রিও শান্তি আলোচনা পুনরায় শুরু করতে এবং এটিকে যুক্তিপূর্ণ সিদ্ধান্তে নিয়ে যাওয়ার জন্য সক্রিয়ভাবে চেষ্টা করছেন।

নাগাল্যান্ডের গভর্নর আর এন রবি, যাকে ২৯ আগস্ট, ২০১৪ তে তামিলনাড়ুতে নাগা শান্তি আলোচনার জন্য কেন্দ্রের পক্ষ থেকে নিয়োগের করা হয়, তাঁর হস্তক্ষেপে ২০ সেপ্টেম্বর কোহিমায় শান্তি আলোচনা পুনরায় শুরু হয়। ওই সময় কেন্দ্রের প্রতিনিধিদল নাগা নেতাদের সাথে দেখা করেন এবং শান্তি আলোচনার পরবর্তী পর্যায়ের জন্য দিল্লি সফরের আমন্ত্রণ জানান।

এনএসসিএন-আইএম এবং অন্যান্য দলগুলি ১৯৯৭ সালে ভারত সরকারের সাথে যুদ্ধবিরতি চুক্তি করে এবং পরবর্তী সময়ে কেন্দ্রের বিভিন্ন সরকারের সাথে ৮০ রাউন্ডের বেশি আলোচনা হয়েছে।

Naga Peace Talk: আলোচনা চললেও পৃথক সংবিধান ও পতাকার দাবিতে অনড় বিদ্রোহী ইসাক-মুইভা গোষ্ঠী
Assam: নাগা বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সঙ্গে বৈঠকে অসমের মুখ্যমন্ত্রী, তীব্র আপত্তি কংগ্রেসের

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in