Gujarat: গুজরাটে বুলডোজার রাজনীতির মূল্য দিতে হতে পারে বিজেপিকে - মত রাজনৈতিক মহলের

ভাঘেলার কথা যদি বিশ্বাস করা হয়, যে শুধুমাত্র মুসলিমদের অবৈধ নির্মাণ ভেঙে ফেলা হচ্ছে, তা কিন্তু সত্যি নয়। বাস্তব হল, এই অভিযানের কারণে হিন্দুরাও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এরকমই একজন শিকার হলেন পরাগ প্যাটেল।
Gujarat: গুজরাটে বুলডোজার রাজনীতির মূল্য দিতে হতে পারে বিজেপিকে - মত রাজনৈতিক মহলের
গুজরাটে চলছে উচ্ছেদ অভিযানফাইল ছবি, সবরং ইন্ডিয়ার সৌজন্যে

গুজরাটে ক্ষমতাসীন বিজেপি রাজ্যের কিছু অংশে বুলডোজারের রাজনীতি শুরু করেছে। নির্বাচনী বিশ্লেষকদের মতে, এই রাজনীতি ভোটারদের মেরুকরণ করবে এবং বিজেপির জন্য কিছু নির্বাচনী সুবিধা দেবে। যদিও বুলডোজার রাজনীতির মূল্যও দিতে হতে পারে বিজেপিকে। কারণ, এই পদক্ষেপে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের পাশাপাশি গরিব, মধ্যবিত্ত হিন্দুরাও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত হিন্দুরা সংখ্যায় কম হওয়ায় ক্ষমতাসীন দল এটিকে সামান্য ক্ষতি হিসাবে নিচ্ছে এবং বিজেপির অনুমান এই পদক্ষেপ নির্বাচনের ফলাফলে কম প্রভাব ফেলবে।

রাম নবমীর দিন গুজরাটের অনেক জায়গায় মিছিলগুলিকে লক্ষ্যবস্তু করা হয়েছিল এবং মিছিলে পাথর ছোঁড়ার অভিযোগ উঠেছিলো। সরকার দ্রুত পদক্ষেপে এই ঘটনায় হস্তক্ষেপ করে বেশ কিছু অবৈধ নির্মাণকে বুলডোজার দিয়ে ভেঙে দেয়। মধ্যপ্রদেশের পথ অনুসরণ করে, গুজরাট সরকার প্রথমবারের মতো খাম্বাত শহরে একটি জেসিবি ব্যবহার করে এবং কসাইদের দোকান ভেঙে দেয়। এরপর বুলডোজার দিয়ে হিম্মতনগর, মোদাসা, কাদি, বোটাদের মতো শহর ও আহমেদাবাদ, সুরাট এবং আরও কিছু অংশে অবৈধ নির্মাণ ভাঙা হয়।

এই ঘটনা প্রসঙ্গে বিশ্ব হিন্দু পরিষদের রণছোড় ভারওয়াদের জানান প্রতিটি ক্রিয়ার একটি প্রতিক্রিয়া থাকে। তিনি বলেন, যদি সমাজবিরোধী এবং জাতীয়তা বিরোধী শক্তি রাম নবমী মিছিলগুলিকে লক্ষ্যবস্তু না করত, তবে তাদের সরকারী পদক্ষেপের মুখোমুখি হতে হত না।

আন্তর্জাতিক হিন্দু পরিষদের মুখপাত্র নীরজ ভাঘেলা বলেন, এই অবৈধ নির্মাণগুলি জাতীয় বিরোধী কার্যকলাপের কেন্দ্রস্থল হয়ে উঠেছে, হিন্দু সম্প্রদায়ের নিরাপত্তা এবং দেশের অখণ্ডতার জন্য এই ধরনের ঘাঁটিগুলি ভেঙে ফেলা দরকার।

ভাঘেলা আরও বলেন, সরকারের পদক্ষেপকে রাজনৈতিক বা নির্বাচনী সুবিধার ভিত্তিতে দেখা উচিত নয়, এই কাজকে ঘিরে প্রশ্ন তোলা উচিত নয়। যা গুরুত্বপূর্ণ তা হল যে জাতীয় বিরোধী উপাদানগুলিকে একবার এবং সর্বদা শিক্ষা দেওয়া উচিত।

তাঁর বক্তব্য, বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গা ও বাংলাদেশিরা রাষ্ট্রে অবৈধভাবে অবস্থান করছে, তারা দেশবিরোধী কর্মকাণ্ডে লিপ্ত। আহমেদাবাদের চন্দোলা হ্রদ এলাকায় বিপুল সংখ্যক লোক বসবাস করছে, তাদের সবাইকে রাজ্য পুলিশ দ্বারা চিহ্নিত করে বাংলাদেশে নির্বাসিত করা উচিত।

ভাঘেলার কথা যদি বিশ্বাস করা হয়, যে শুধুমাত্র মুসলিমদের অবৈধ নির্মাণ ভেঙে ফেলা হচ্ছে, তা কিন্তু সত্যি নয়। বাস্তব হল, এই অভিযানের কারণে হিন্দুরাও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এরকমই একজন শিকার হলেন পরাগ প্যাটেল, আহমেদাবাদের উপকণ্ঠে যার আইসক্রিম পার্লারটি ভেঙে দেওয়া হয়েছে। তিনি আহমেদাবাদ নগর উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের আধিকারিকদের কাছে সময় দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেছিলেন, কিন্তু তার আবেদনে সাড়া দেওয়া হয়নি।

অবশ্য পরাগ প্যাটেল একা নন। মেহসানা জেলার কাদি শহরে, গত চার দিনে রাস্তার সম্প্রসারণ এবং অন্যান্য প্রকল্পের জন্য ৫৫০টি সম্পত্তি বা সম্পত্তির একটি অংশ ভেঙে ফেলা হয়েছে। ব্যবসায়ীরা, যাদের অধিকাংশই হিন্দু, তারা আরও সময়ের জন্য অনুরোধ করলেও কর্তৃপক্ষ তাদের উচ্ছেদ অভিযান থেকে বিরত থাকেনি।

আহমেদাবাদ শহরে, রানিপ এলাকার বাকরা মান্ডির কাছে ২৮০ টিরও বেশি সম্পত্তির ওপর বিপদের খাঁড়া ঝুলছে। মুসলিমদের সঙ্গে সঙ্গে এই সম্পত্তির মধ্যে প্রায় ১০০টির মালিক দলিত, ঠাকুর এবং দেবীপূজক হিন্দুদের। আইনজীবী ও মানবাধিকার কর্মী সামশাদ পাঠান জানিয়েছেন, জেসিবি ঢুকলেই তারা গৃহহীন হয়ে যাবে।

পাঠান বলেন, সরকার যদি ভূমি মাফিয়া, অবৈধ ব্যবসায়ী বা গুন্ডাদের অবৈধ নির্মাণ ভেঙে দেয় তাহলে মানবাধিকার ও সমাজকর্মীরা সবসময় পাশে থাকবে। তবে সরকার দখল উচ্ছেদের নামে দরিদ্র ও নিম্ন মধ্যবিত্তদের গৃহহীন বা তাদের জীবিকা কেড়ে নিচ্ছে। মনে হচ্ছে ক্ষমতাসীন দল এইভাবে এমন একটি ভারত তৈরি করতে চায় যেখানে কোনও দরিদ্র বা নিম্ন আয়ের গোষ্ঠী নেই, তিনি যোগ করেছেন।

তিনি আরও জানিয়েছেন, সরকারের এই পদক্ষেপ শাসক দলকে উপকৃত করবে। কারণ প্রচার করা হচ্ছে, শুধুমাত্র মুসলমানদের সম্পত্তি ধ্বংস করা হচ্ছে, যা মধ্য ও উচ্চ মধ্যবিত্তরা স্বাগত জানিয়েছে।

রাষ্ট্র দাবি করছে যে তারা অবৈধ নির্মাণ ভেঙে ফেলছে, কিন্তু এখানে জনগণ বা সামাজিক কর্মীদের এই ধরনের দখল থেকে সরকারি জমি মুক্ত করার জন্য লড়াই করতে হবে। এমনই এক কর্মী চান্দুজি দরবার সম্প্রতি ভিরামগাম মামলতদার অফিসের বাইরে বিক্ষোভ দেখান। রোকাদিয়া হনুমান মন্দিরের কাছে রেলস্টেশনের কাছে সরকারি জমিতে দখল উচ্ছেদের জন্য ২০১৯ সাল থেকে লড়াই করে যাচ্ছেন তিনি। বিষয়টি উচ্চপর্যায়ে জানানোর পরও কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

২০২১ সালে, তৎকালীন রাজস্ব মন্ত্রী কৌশিক প্যাটেল জানিয়েছিলেন, জমি দখল এবং দখলের জন্য ৩৪৫ টি মামলা দায়ের করা হয়েছিল, প্রায় ২৮.৬১ কোটি বর্গ মিটার জমি দখল বা অবৈধভাবে দখল করা হয়েছিল। তখন এর বাজার মূল্য ছিল ৭৩০ কোটি টাকা। কিন্তু, ফৌজদারি তদন্তের বাইরে এসব জমির পার্সেল খালাসের কোনো খবর পাওয়া যায়নি বলে রাজস্ব দফতর সূত্রে জানা গেছে।

কংগ্রেসের মুখ্য মুখপাত্র মণীশ দোশি বলেছেন, বুলডোজারের রাজনীতির পুরো লক্ষ্য হল ভোটারদের মেরুকরণ করা। কিন্তু এবার গুজরাটে এই পদক্ষেপ কাজ করবে না। কারণ সাধারণ মানুষ বুঝতে শুরু করেছেন যে ক্ষমতাসীন দল বেকারত্ব এবং মুদ্রাস্ফীতির মতো মূল সমস্যাগুলি থেকে তাদের মনোযোগ সরানোর জন্য এটি করছে।

প্রযুক্তিগত কারণে সরকারি পদক্ষেপকে চ্যালেঞ্জ করে রাষ্ট্রবিজ্ঞানী ও অর্থনীতিবিদ হেমন্ত শাহ রাষ্ট্রীয় পদক্ষেপকে বেআইনি বলে অভিহিত করেছেন। তাঁর বক্তব্য, যে রাষ্ট্র ইমপ্যাক্ট ফি আইন করেছে, যে রাষ্ট্রের অধীনে ফি আদায় করে অবৈধ নির্মাণ বৈধ করা হয়েছে, সে কীভাবে অবৈধ নির্মাণ ভেঙে ফেলবে।

শাহ বলেন, ক্ষমতাসীন দল সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের অবৈধ সম্পত্তি লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করেছে। আগামী নির্বাচনে এর সুফল মিললেও কতটা সুফল মিলতে পারে সেটাই বড়ো প্রশ্ন।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.