Defection: ভোটের দিকে তাকিয়ে বিরোধীদের ছত্রভঙ্গ করার চেষ্টা চালাচ্ছে বিজেপি

বিজেপি নেতৃত্ব বিশ্বাস করে যে বিজেপি শাসিত বিভিন্ন রাজ্যে বিরোধীদের দুর্বল করা, অন্যান্য রাজ্যের বিরোধীদের কাছে একটি শক্তিশালী বার্তা পাঠাবে, বিশেষ করে নির্বাচন আসন্ন এমন রাজ্যগুলিতে।
ছবি প্রতীকী
ছবি প্রতীকী ছবি সংগৃহীত

বিভিন্ন রাজ্যের আসন্ন বিধানসভা নির্বাচন এবং ২০২৪ লোকসভা নির্বাচনের দিকে লক্ষ্য রেখে, বিজেপি ইতিমধ্যেই ক্ষমতায় রয়েছে এমন রাজ্যগুলিতে বিরোধী শিবিরগুলিকে লক্ষ্য করে অপারেশন লোটাসকে একটি নতুন স্তরে নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা করেছে৷

এতদিন পর্যন্ত ‘অপারেশন লোটাস’-এর মূল লক্ষ্য ছিল ক্ষমতাসীন দল বা জোট ভাঙিয়ে দলত্যাগ নিশ্চিত করে বিরোধী শাসিত রাজ্যে সরকার গঠন করা। আরও এক ধাপ এগিয়ে, এখন গেরুয়া শিবিরের পক্ষ থেকে বিরোধী শিবির থেকে দুই তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে দলত্যাগ নিশ্চিত করে বিজেপি শাসিত রাজ্যগুলিতে ‘অপারেশন লোটাস’-এর পরিকল্পনা করা হচ্ছে।

দলের একজন বিশিষ্ট আধিকারিক আইএএনএসকে জানিয়েছেন এতে কিছু ভুল নেই। কারণ কেউ বিরোধীদের শক্তি অর্জন করতে দেয় না এবং বিজেপিও একই কাজ করছে।

তিনি আরও বলেন, "কংগ্রেস কি আমাদের বাড়তে দেবে? না, বিশ্বের কোথাও কোনো একক রাজনৈতিক দল তার প্রতিপক্ষকে বাড়তে দেয় না। আমরাও পরিকল্পনা করি এবং সেই অনুযায়ী পরিকল্পনা বাস্তবায়িত করি। এতে দোষের কিছু নেই। কেউ যদি নিজের দল ছেড়ে আমাদের সাথে যোগ দিতে চায় সেক্ষেত্রে পার্টি, আমরা কী করতে পারি?"

বিজেপি নেতৃত্ব বিশ্বাস করে যে বিজেপি শাসিত বিভিন্ন রাজ্যে বিরোধীদের দুর্বল করা, অন্যান্য রাজ্যের বিরোধীদের কাছে একটি শক্তিশালী বার্তা পাঠাবে, বিশেষ করে নির্বাচন আসন্ন এমন রাজ্যগুলিতে।

একজন সিনিয়র নেতা জানিয়েছেন, মহারাষ্ট্রে সরকারে সাম্প্রতিক পরিবর্তন এবং গোয়া কংগ্রেস বিধায়ক দল থেকে সম্ভাব্য দলত্যাগের রিপোর্ট গুজরাট এবং হিমাচল প্রদেশের আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসের নির্বাচনী সম্ভাবনাকে দুর্বল করেছে।

ওই বিজেপি নেতা বলেন, "নির্বাচনের আগে বিরোধী শিবির থেকে নিয়মিত দলত্যাগ ভোটের আগেও নতুন শক্তি জোগায়। গুজরাট এবং হিমাচল প্রদেশের মানুষ জেনে গেছে যে বিরোধীরা ক্ষমতাসীন বিজেপিকে চ্যালেঞ্জ করার কোনো অবস্থানে নেই। কারণ মহারাষ্ট্রে তারা সরকার রাখতে ব্যর্থ হয়েছে। গোয়াতেও নিজেদের বিধায়কদের ধরে রাখতে পারেনি।”

"অপারেশন লোটাস" শব্দবন্ধ ২০০৮ সালে কর্ণাটক বিধানসভা নির্বাচনে প্রথম ব্যবহার করা হয়। কর্ণাটকের প্রাক্তন মন্ত্রী এবং বিজেপি নেতা জি জনার্দন রেড্ডি জানিয়েছিলেন, বিজেপি বিরোধী শিবির থেকে দলত্যাগ করিয়ে এবং নির্দলদের সমর্থন নিশ্চিত করে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অতিক্রম করার কৌশল তৈরি করেছিল।

সূত্র অনুসারে, বিজেপি কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব রাজ্যের দায়িত্বপ্রাপ্তদের দিয়ে গোয়া, কর্ণাটক, হরিয়ানা, গুজরাট এবং অন্যান্য রাজ্যে বিরোধী শিবির থেকে দলত্যাগের সম্ভাবনা খুঁজে বের করতে বলেছে।

ওই সূত্র আরও জানিয়েছে, "কয়েকজন বিধায়কের যোগদানের অনুমতি দেওয়ার পরিবর্তে, মহারাষ্ট্রের মত দুই তৃতীয়াংশ বিধায়কের সমর্থন নিয়ে দলত্যাগ করানো উচিত। দুই তৃতীয়াংশ বিধায়কের সমর্থন না পাওয়া গেলে বিদ্রোহীদের পদত্যাগ করতে হবে এবং বিধানসভার সদস্যপদ পেতে পুনরায় নির্বাচনের জন্য যেতে হবে।”

দলের অন্য একজন সিনিয়র আধিকারিক জানিয়েছেন, এই প্রক্রিয়ার পুরো উদ্দেশ্যই হল বিরোধীদের আরও দুর্বল করা এবং দলকে আরও শক্তিশালী করা।

(Except the headline, this story has not been edited by People's Reporter and is translated and published from a syndicated feed.)

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in