Corruption: দুর্নীতি ইস্যুতে বিক্ষোভ যত বাড়ছে, ততই শব্দ ব্যবহারে নিয়ন্ত্রণ হারাচ্ছেন তৃণমূল নেতৃত্ব

পশ্চিমবঙ্গে যখন দুর্নীতির ইস্যুতে বিক্ষোভ ক্রমশ বাড়ছে তখনই তৃণমূল কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্ব বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধে শব্দ ব্যবহারে নিয়ন্ত্রণ হারাতে শুরু করেছেন।
তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ ব্যানার্জি, সৌগত রায় এবং বিধায়ক মদন মিত্র
তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ ব্যানার্জি, সৌগত রায় এবং বিধায়ক মদন মিত্রফাইল ছবি, গ্রাফিক্স সুমিত্রা নন্দন

পশ্চিমবঙ্গে যখন দুর্নীতির ইস্যুতে বিক্ষোভ ক্রমশ বাড়ছে এবং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে অনেক ক্ষেত্রেই লক্ষ্যবস্তু করা হচ্ছে, তখনই তৃণমূল কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্ব বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধে শব্দ ব্যবহারে নিয়ন্ত্রণ হারাতে শুরু করেছেন। যে প্রবণতা থেকে বাদ থাকছেন না উচ্চশিক্ষিত নেতৃত্বও। তাঁরাও হুমকির ভাষা ব্যবহার করতে শুরু করেছেন।

উদাহরণ স্বরূপ বলা যেতে পারে দমদম আসন থেকে তৃণমূল কংগ্রেসের উচ্চশিক্ষিত লোকসভা সদস্য সৌগত রায়। যিনি কয়েক বছর আগে কলকাতার একটি নামী কলেজে পদার্থবিদ্যার অধ্যাপক ছিলেন।

এর আগে পর্যন্ত নিজের দলের কিছু সহকর্মীর অসংসদীয় শব্দ ব্যবহার নিয়ে কড়া সমালোচনা করতেন সৌগত রায়। যদিও এবার এক সভায় তিনিও বিরোধী এবং বিক্ষোভকারীদের হুমকি দেন। রবিবার তিনি বলেন, "তৃণমূল কংগ্রেসের কাছে ২০২৬ সাল পর্যন্ত জনাদেশ রয়েছে এবং আমরা সেই সময় পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকব। যদি বিরোধীরা মনে করে যে তারা প্রতিবাদের নামে কিছু বলতে বা করতে পারে, আমরা তাদের চামড়া ছাড়িয়ে নেব এবং তা দিয়ে জুতো তৈরি করব। সেদিনের জন্য প্রস্তুত থাকুন।” শনিবার সকালে তার নির্বাচনী এলাকার কামারহাটি এলাকায় এক জনসভায় তিনি একথা বলেন।

একইভাবে, তৃণমূল কংগ্রেসের লোকসভা সদস্য, কল্যাণ ব্যানার্জি, যিনি কলকাতা হাইকোর্টের একজন সিনিয়র কাউন্সেলও, শনিবার সন্ধ্যায় হুগলি জেলার চুঁচুড়াতে এক জনসভায় একই ধরনের ভয়ঙ্কর গালিগালাজ করেছেন বলে অভিযোগ। ওই সভায় কল্যাণ ব্যানার্জি বলেন, "যদি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে অপমান করা হয়, তাহলে বিরোধী দলগুলিকে মারধর করা হবে। ২০১১ সালে যখন তিনি পশ্চিমবঙ্গে ক্ষমতায় আসেন, তখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন যে তিনি পরিবর্তন চান, প্রতিশোধ নয়। কিন্তু এখন আমি মনে করি যে সেই পর্যবেক্ষণ ভুল ছিল। সিপিআই-এম, কংগ্রেস এবং বিজেপি যেভাবে কুৎসা রটনা করছে, প্রতিশোধই এখন একমাত্র প্রতিকার।"

রবিবার সকালে, কামারহাটির তৃণমূল বিধায়ক, মদন মিত্র তার অনুগামীদের লাঠি লড়াই অনুশীলন করার এবং এই গণনার প্রশিক্ষণের জন্য বিশেষ কেন্দ্র স্থাপন করার পরামর্শ দিয়েছেন। তিনি বলেন, "আমি, কামারহাটির বিধায়ক হিসাবে, সেই লাঠি সরবরাহ করার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি।"

সিপিআই-এম কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এবং পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভায় বাম দলের প্রাক্তন নেতা সুজন চক্রবর্তী বলেন, সৌগত রায়ের মত একজন শিক্ষিত নেতার কাছ থেকে এই ধরনের কথা দুর্ভাগ্যজনক। "আসলে, তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্ব এখন সত্যিকার অর্থে ভীত। কারণ শুধু বিরোধী দলগুলিই বিক্ষোভ দেখাচ্ছে এমন নয়, সাধারণ মানুষও স্বতপ্রণোদিত সংগঠিত হচ্ছেন।"

বিজেপির জাতীয় সহ-সভাপতি এবং দলের সাংসদ, দিলীপ ঘোষ বলেন, শাসক দলের নেতাদের এই ধরনের ভয়ঙ্কর মন্তব্য সাধারণ মানুষকে আরও বিরক্ত করছে এবং তারা এই ধরনের দুর্নীতি ও গুন্ডাবাজির বিরুদ্ধে সংগঠিত হচ্ছে। "জনগণ সঠিক সময়ে তাদের উপযুক্ত জবাব দেবে।"

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in