Covid-19: ভারত সরকার কোভিডে মৃত্যুর তথ্য গোপন করছে - WHO রিপোর্ট উদ্ধৃত করে অভিযোগ রাহুলের

এদিন এক ট্যুইট বার্তায় রাহুল গান্ধী বলেন, "মোদীজী নিজে সত্যি কথা বলেন না এবং তিনি কাউকে বলার অনুমতিও দেন না। তিনি তো এখনও মিথ্যা বলছেন যে অক্সিজেনের ঘাটতির কারণে কেউ মারা যায়নি।
Covid-19: ভারত সরকার কোভিডে মৃত্যুর তথ্য গোপন করছে - WHO রিপোর্ট উদ্ধৃত করে অভিযোগ রাহুলের
রাহুল গান্ধীফাইল ছবি সংগৃহীত

কোভিডের মৃত্যু সংখ্যা নিয়ে তথ্য গোপন করছে কেন্দ্রীয় সরকার। রবিবার কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী এই অভিযোগ করেছেন। ভারত কোভিড মৃত্যু সংক্রান্ত তথ্য আটকে রাখছে শীর্ষক এক প্রতিবেদন প্রকাশিত হওয়ার পর রাহুল অভিযোগ করেন কেন্দ্র তথ্য গোপন করছে।

এদিন এক ট্যুইট বার্তায় রাহুল গান্ধী বলেন, "মোদীজী নিজে সত্যি কথা বলেন না এবং তিনি কাউকে বলার অনুমতিও দেন না। তিনি তো এখনও মিথ্যা বলছেন যে অক্সিজেনের ঘাটতির কারণে কেউ মারা যায়নি। আমি আগেই বলেছি যে কোভিডের সময় সরকারের অপদার্থতায় ৫ লাখ নয়, ৪০ লাখ ভারতীয় প্রাণ হারিয়েছে।"

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর উচিত দায়িত্ব পালন করা, কোভিডের কারণে মারা যাওয়া প্রত্যেক পরিবারকে ৪ লাখ টাকা দেওয়া। উল্লেখ্য, গত ১৬ এপ্রিল নিউ ইয়র্ক টাইমসে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে কোভিডে বিশ্বব্যাপী মৃত্যু সংখ্যা সাধারণের জন্য প্রকাশ করার বিষয়ে ভারত সরকার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রচেষ্টায় বাধা সৃষ্টি করছে। ইতিমধ্যে ভারত বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে জারি করা ছয়টি চিঠি সহ আনুষ্ঠানিক যোগাযোগের একটি সিরিজের মাধ্যমে অন্যান্য সদস্য রাষ্ট্রগুলির সাথে এই পদ্ধতি নিয়ে আপত্তি জানিয়েছে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রকের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, "ভারত এই বিষয়ে ডব্লিউএইচওর সাথে নিয়মিত এবং গভীরভাবে প্রযুক্তিগত আদান-প্রদান করেছে। এই বিষয়ে প্রথম স্তরের দেশগুলির থেকে সরাসরি প্রাপ্ত মৃত্যুর পরিসংখ্যান ব্যবহার করে, দ্বিতীয় স্তরের দেশগুলির জন্য একটি গাণিতিক মডেলিং প্রক্রিয়া ব্যবহার করে (যার মধ্যে ভারতও রয়েছে)৷ এই বিষয়ে ফলাফল নিয়ে ভারতের মৌলিক আপত্তি ছিল না (তারা যাই হোক না কেন), আপত্তি ছিলো এর জন্য গৃহীত পদ্ধতি নিয়ে।"

মন্ত্রক প্রশ্ন তুলেছে, পরিসংখ্যান মডেল প্রকল্পগুলি কীভাবে ভারতের মত বিশাল ভৌগোলিক আকার এবং জনসংখ্যার একটি দেশের জন্য ধরা হয় এবং জনসংখ্যা কম আছে এমন অন্যান্য দেশের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ হয়। এই ধরনের একটি আকার সমস্ত পদ্ধতি এবং মডেল তিউনিসিয়ার মতো ছোট দেশগুলির জন্য প্রযোজ্য হলেও, ১.৩ বিলিয়ন জনসংখ্যার দেশ ভারতে প্রযোজ্য নাও হতে পারে৷ মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ডাব্লুএইচও এখনও বিভিন্ন দেশে বর্তমান পরিসংখ্যান মডেলের জন্য কনফিডেন্স ইন্টারভাল জানায়নি।

মন্ত্রকের বক্তব্য অনুসারে, "মডেলটি প্রথম স্তরের দেশগুলির তথ্য ব্যবহার করার সময় এবং ১৮টি ভারতীয় রাজ্যের অযাচাইকৃত তথ্য ব্যবহার করার সময় অতিরিক্ত মৃত্যুর অনুমানগুলির দুটি ভীষণরকম আলাদা সেট দেয়৷ অনুমানের এই ধরনের ব্যাপক পরিবর্তন এই ধরনের মডেলিং অনুশীলনের বৈধতা এবং নির্ভুলতা সম্পর্কে উদ্বেগ বাড়ায়"।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.