Char Dham: প্রধানমন্ত্রীর কেদারনাথ সফরের আগে চারধাম আইন নিয়ে পুরোহিতদের সঙ্গে বিবাদ চরমে

৫ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কেদারনাথ সফর। এই সফরের আগে উত্তরাখণ্ডের তীর্থযাত্রী পুরোহিতরা হুমকি দিয়েছেন যে তাদের যদি প্রধানমন্ত্রীর সাথে দেখা করতে না দেওয়া হয়, তবে তারা বিক্ষোভ দেখাবেন।
Char Dham: প্রধানমন্ত্রীর কেদারনাথ সফরের আগে চারধাম আইন নিয়ে পুরোহিতদের সঙ্গে বিবাদ চরমে
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও কেদারনাথ

আগামী ৫ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কেদারনাথ সফর। এই সফরের আগে উত্তরাখণ্ডের তীর্থযাত্রী পুরোহিতরা হুমকি দিয়েছেন যে তাদের যদি প্রধানমন্ত্রীর সাথে দেখা করতে না দেওয়া হয়, তবে তারা বিক্ষোভ দেখাবেন। পুরোহিতদের একাংশ প্রধানমন্ত্রীর সফর বয়কট করার পরিকল্পনাও করছেন। ‘উত্তরাখণ্ড চার ধাম দেবস্থানম ম্যানেজমেন্ট বোর্ড’ গঠনের প্রতিবাদ হিসাবে কেদারপুরীতে জড়ো হওয়ার পরিকল্পনা করছেন তাঁরা।

প্রসঙ্গত, এই ‘উত্তরাখণ্ড চার ধাম দেবস্থানম ম্যানেজমেন্ট বোর্ড’ হল মন্দিরগুলিকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য একটি সংস্থা। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি কেদারনাথ সফরে এসে আদি শঙ্করাচার্যের মূর্তি উন্মোচন করবেন এবং কেদারনাথের উপকণ্ঠে বেশ কয়েকটি উন্নয়নমূলক প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন।

বদ্রীনাথের পুরোহিত এবং চার ধাম তীর্থ পুরোহিত হক-হাকুক মহা পঞ্চায়েতের সভাপতি কে কে কোটিয়াল বলেন - “আমরা উত্তরাখণ্ড চার ধাম দেবস্থানম ম্যানেজমেন্ট বোর্ড বাতিল করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর সাথে বৈঠকের জন্য বারবার অনুরোধ করেছি, কিন্তু তিনি তা কর্ণপাত করেননি। এই আইনটি কেবল আমাদের ধর্মীয় অধিকার লঙ্ঘন করছে না বরং তীর্থ পুরোহিতদের আওতাধীন মন্দিরে তাদের সম্পত্তির মালিকানা থেকে বঞ্চিত করছে। এখন আমরা আওয়াজ তুলতে বাধ্য হয়েছি”।

তিনি হুমকির সুরে বলেন – “আশা করি রাজ্য সরকার প্রধানমন্ত্রীর সফরের আগে বোর্ড বাতিল করবে, তা না হলে আমরা কেদারনাথে প্রতিবাদ করতে প্রস্তুত আছি”। স্থানীয় পুরোহিতদের সংগঠন কেদারনাথ সভার সভাপতি বিনোদ শুক্লা বলেছেন – “ বিক্ষোভ শুধু স্লোগানে সীমাবদ্ধ থাকবে না, আমরা হেলিপ্যাডে শুয়ে থাকব। প্রধানমন্ত্রীর সফরের প্রতিবাদে বনধ ডাকা হবে, প্রধানমন্ত্রীকে কালো পতাকা দেখানো হবে। বোর্ড বাতিল করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ১১ অক্টোবর বৈঠকের পর মুখ্যমন্ত্রী পুষ্কর সিং ধামি আমাদের ৩০ অক্টোবর পর্যন্ত প্রতিবাদ বন্ধ রাখার জন্য অনুরোধ করেছিলেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত কিছুই হয়নি। আমরা ১লা নভেম্বর থেকে পূর্ণ শক্তিতে আবার প্রতিবাদ শুরু করব”

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, উত্তরাখণ্ড সরকার ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে রাজ্য বিধানসভায় ‘Uttarakhand Char Dham Shrine Management’ বিল পেশ করেছিল। বিলটি বিধানসভায় পাশও হয়ে যায় এবং ‘উত্তরাখণ্ড চার ধাম দেবস্থানম ম্যানেজমেন্ট অ্যাক্ট, ২০১৯ -এ পরিণত হয়। এই আইনের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয় ২০২০ সালের ১৫ই জানুয়ারি। এই আইন অনুযায়ী, মুখ্যমন্ত্রী এই বোর্ডের চেয়ারম্যান, রাজ্যের সংস্কৃতিমন্ত্রী ডেপুটি চেয়ারম্যান এবং মুখ্য সচিব পদাধিকারবলে ‘উত্তরাখণ্ড চার ধাম দেবস্থানম ম্যানেজমেন্ট বোর্ড’-র গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব সামলাবেন।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in