রামদেবের বিরুদ্ধে মামলা হোক নইলে আধুনিক চিকিৎসা পদ্ধতি তুলে দেওয়া হোক: স্বাস্থ্যমন্ত্রীর কাছে IMA

আইএমএ-র অভিযোগ, বর্তমান পরিস্থিতিকে কাজে লাগিয়ে জনগণের মধ্যে ভয় ও হতাশা তৈরি করে নিজের অবৈধ ও অনুমোদনহীন ওষুধগুলো বিক্রি করে অর্থোপার্জনের চেষ্টা করছে রামদেব।
রামদেবের বিরুদ্ধে মামলা হোক নইলে আধুনিক চিকিৎসা পদ্ধতি তুলে দেওয়া হোক: স্বাস্থ্যমন্ত্রীর কাছে IMA
রামদেবফাইল ছবি সংগৃহীত

যোগগুরু রামদেবের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি তুললো ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল অ‍্যাসোসিয়েশন বা IMA। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধনের কাছে সংস্থার আবেদন, মহামারী আইনে রামদেবের বিরুদ্ধে ব‍্যবস্থা নেওয়া হোক‌। নতুবা আধুনিক চিকিৎসা পদ্ধতি তুলে দেওয়া হোক। যথেষ্ট হয়েছে।

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় রামদেবের একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। যেখানে তাঁকে বলতে দেখা গেছে, অ‍্যালোপ‍্যাথি একটি স্টুপিড সায়েন্স। DCGI অনুমোদিত রেমডেসিভির, ফ‍্যাভি ফ্লু এবং অন্যান্য ওষুধগুলো করোনা রোগীদের সুস্থ করে তুলতে ব‍্যর্থ হয়েছে। অ‍্যালোপ‍্যাথি ওষুধ খেয়ে লক্ষ লক্ষ রোগীর মৃত্যু হয়েছে। আধুনিক চিকিৎসকরা খুনি।

(পিপলস রিপোর্টার এই ভিডিওর সত্যতা যাচাই করেনি)

রামদেবের এই মন্তব্যগুলো উল্লেখ করে এক বিবৃতিতে আইএমএ জানিয়েছে, "যখন এই ধরনের একজন বিশিষ্ট ব‍্যক্তি এরকম মন্তব্য করেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রকের পুরো আর্কিটেকচার ‌কর্তৃত্ব এবং নীতি নিয়ে প্রশ্ন তোলেন, তখন স্বাস্থ্যমন্ত্রী যিনি নিজেই আধুনিক চিকিৎসা পদ্ধতি অ‍্যালোপ‍্যাথিকে স্নাতকোত্তর এবং এই মন্ত্রকের প্রধান, তাঁকে হয় এই ভদ্রলোকের অভিযোগ এবং চ‍্যালেঞ্জ গ্রহণ করে আধুনিক চিকিৎসা পদ্ধতি বাতিল করতে হবে। নতুবা লক্ষ লক্ষ মানুষকে এই জাতীয় অবৈজ্ঞানিক মন্তব্যের হাত থেকে বাঁচাতে এই ব‍্যক্তির বিরুদ্ধে মহামারী আইনের অধীনে মামলা দায়ের করতে হবে।"

আইএমএ-র অভিযোগ, বর্তমান পরিস্থিতিকে কাজে লাগিয়ে জনগণের মধ্যে ভয় ও হতাশা তৈরি করে নিজের অবৈধ ও অনুমোদনহীন ওষুধগুলো বিক্রি করে অর্থোপার্জনের চেষ্টা করছে রামদেব। নিজের এই মন্তব্যের দ্বারা অ‍্যালোপ‍্যাথি চিকিৎসকদের পরামর্শ না নেওয়ার জন‍্য সাধারণ মানুষের মনে একধরনের বিশ্বাস তৈরি করছেন তিনি। এর‌ মাধ্যমে মানুষের জীবনে বিপদ ডেকে আনছেন তিনি। তাঁর বিরুদ্ধে অবশ্যই মামলা দায়ের করা উচিত।

চিকিৎসকদের সংগঠনের স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে পরিষ্কারভাবে জানিয়ে দিয়েছে, সরকার যদি রামদেবের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা না নেয়, তাহলে গণতান্ত্রিক উপায়ে তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বাধ্য হবে আইএমএ।

যদিও এদিন সন্ধ্যেয় পতঞ্জলি যোগপীঠের পক্ষ থেকে এক ট্যুইট বার্তায় জানানো হয়েছে, 'স্বামীজী সেদিন এক অনুষ্ঠানে ফরোয়ার্ড করা হোয়াটস অ্যাপ বার্তা পড়েছিলেন। বর্তমান প্রচলিত চিকিৎসা পদ্ধতিকে আঘাত করার কোনো উদ্দেশ্য তাঁর ছিলোনা।'

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in