WhatsApp: ভারতে জুলাই মাসে ২৩ লক্ষেরও বেশি অ্যাকাউন্ট নিষিদ্ধ করলো Meta, জানুন কেন?

মেটা সংস্থার এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, "হোয়াটসঅ্যাপ এন্ড-টু-এন্ড এনক্রিপ্টেড মেসেজিং পরিষেবাগুলির মধ্যে অপব্যবহার রোধে সদা সক্রিয়৷ ব্যবহারকারীদের সুরক্ষিত রাখার জন্য দীর্ঘ সময় ধরে সক্রিয় আছে মেটা।
ছবি প্রতীকী
ছবি প্রতীকীফাইল ছবি সংগৃহীত

ভারতের নতুন তথ্যপ্রযুক্তি আইন ২০২১ মেনে মেটা-মালিকানাধীন হোয়াটসঅ্যাপ জুলাই মাসে ভারতে ২৩ লাখেরও বেশি অ্যাকাউন্ট নিষিদ্ধ করেছে। বৃহস্পতিবার মেটা সংস্থার পক্ষ থেকে একথা জানানো হয়েছে।

হোয়াটসঅ্যাপ অতিরিক্তভাবে ভারতে জুলাই মাসে ৫৭৪টি অভিযোগের রিপোর্ট পেয়েছে, এবং তথ্য অনুসারে এর মধ্যে ২৭টির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে৷ দেশে ৪০০ মিলিয়নেরও বেশি ব্যবহারকারীর প্ল্যাটফর্মটি জুন মাসে ২২ লক্ষেরও বেশি অ্যাকাউন্টকে সীমাবদ্ধ করেছিল৷

সংস্থার এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, "তথ্যপ্রযুক্তি আইন ২০২১ অনুসারে, আমরা ২০২২ সালের জুলাই মাসের জন্য আমাদের প্রতিবেদন প্রকাশ করেছি। সর্বশেষ মাসিক প্রতিবেদন অনুসারে, হোয়াটসঅ্যাপ জুলাই মাসে ২.৩ মিলিয়ন অ্যাকাউন্ট (২৩,৮৭,০০০) নিষিদ্ধ করেছে।"

ইনফরমেশন টেকনোলজি (ইন্টারমিডিয়ারি গাইডলাইনস এবং ডিজিটাল মিডিয়া এথিক্স কোড) বিধি, ২০২১-এর বিধি ৪(১)(ডি) অনুসারে প্রকাশিত রিপোর্টে ভারতে ব্যবহারকারীদের কাছ থেকে প্রাপ্ত অভিযোগের ভিত্তিতে WhatsApp-এর করা পদক্ষেপগুলির তথ্য রয়েছে৷

আপত্তিগুলি অভিযোগ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে গৃহীত হয়েছিল এবং আইন বা পরিষেবার শর্তাবলী লঙ্ঘনের জন্য এইসব অ্যাকাউন্ট সনাক্তকরণ পদ্ধতির মাধ্যমে অ্যাকাউন্টগুলিকে নিষিদ্ধ করা হয়।

পরিবর্তিত তথ্যপ্রযুক্তি বিধি ২০২১-এর নিয়ম অনুসারে, ৫ মিলিয়নেরও বেশি ব্যবহারকারী সহ প্রধান ডিজিটাল এবং সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলিকে মাসিক কমপ্লায়েন্স রিপোর্ট প্রকাশ করতে হবে।

মেটা সংস্থার এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, "হোয়াটসঅ্যাপ এন্ড-টু-এন্ড এনক্রিপ্টেড মেসেজিং পরিষেবাগুলির মধ্যে অপব্যবহার রোধে সদা সক্রিয়৷ বছরের পর বছর ধরে আমরা ধারাবাহিকভাবে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা এবং অন্যান্য অত্যাধুনিক প্রযুক্তি সহ তথ্য বিশ্লেষক বিজ্ঞানী এবং বিশেষজ্ঞদের জন্য বিনিয়োগ করেছি, যাতে আমাদের প্ল্যাটফর্মে আমাদের ব্যবহারকারীরা সুরক্ষিত থাকে।”

ছবি প্রতীকী
অভিযোগের ভিত্তিতে ১ মাসে ২০ লক্ষ ভারতীয়র অ্যাকাউন্ট ব্লক করা হয়েছে, দাবি WhatsApp কর্তৃপক্ষের

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in