CPIM-র সঙ্গে আমাদের কোনো দূরত্ব তৈরি হয়নি, কিন্তু কংগ্রেস ISF-র সাথে ছিল না, এখনও নেই - অধীর

"অন্তত আমি যতদিন দায়িত্বে আছি কংগ্রেস আইএসএফের সঙ্গে থাকবে না। আমাদের জোট হয়েছিল শুধুমাত্র সিপিএম-এর সাথে।"
CPIM-র সঙ্গে আমাদের কোনো দূরত্ব তৈরি হয়নি, কিন্তু কংগ্রেস ISF-র সাথে ছিল না, এখনও নেই - অধীর
অধীর রঞ্জন চৌধুরীফাইল ছবি সংগৃহীত

একটা ছোট্ট স্ফুলিঙ্গ বিশাল আকার ধারণ করতে পারে। বাংলা ভাগ প্রসঙ্গে অধীরের মন্তব্য। শনিবার সাংবাদিক বৈঠকে তিনি রাজ্য সরকারকে এবিষয়ে সজাগ দৃষ্টিপাত নিক্ষেপের পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। পাশাপাশি স্পষ্ট করেছেন কোনভাবেই তিনি বা তার দল বাংলা ভাগের পক্ষে নয়। যে বা যারা বাংলা ভাগের পক্ষে রাজনীতি করার চেষ্টা করছেন তারা অত্যন্ত সংকীর্ণ রাজনীতি করছেন। তাই অবিলম্বে উত্তরবঙ্গের এই ধরনের রাজনীতি যাতে কোনভাবে দানা বাঁধতে পারে সে বিষয়ে সজাগ দৃষ্টিপাত নিক্ষেপ করতে হবে রাজ্য সরকারকে।

দক্ষিণবঙ্গে যেভাবে উন্নয়ন হয়েছে সেই তুলনায় উত্তরবঙ্গের উন্নয়নকে ত্বরান্বিত করতে হবে বলেও তিনি মন্তব্য করেন। পাশাপাশি তিনি এদিন স্পষ্ট জানিয়ে দেন কোনোভাবেই আইএসএফ-এর সঙ্গে কংগ্রেসের জোট ছিল না। নির্বাচনের আগেও না পরেও না। তবে সেই জোট শুধুমাত্র বামেদের সঙ্গেই ছিল। এখনো সেই জোট আছে। নির্বাচনের আগে থেকে একে অপরের সঙ্গে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে এই জোট তৈরি করা হয়েছিল।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন- " জানি না সিপিএম পার্টির অফিসিয়াল স্টেটমেন্ট কী! কিন্তু আমরা ভোটের আগেই বলে দিয়েছিলাম আইএসএফ-এর সঙ্গে আমাদের কোনো জোট নেই। হেরে গেছি বলে বলছি না, ভোটের আগেই আমি ঘোষণা করে দিয়েছিলাম। সেই জন্য মুর্শিদাবাদ জেলায় আইএসএফ আমাদের বিরুদ্ধে প্রার্থী দিয়েছিল। কংগ্রেস আইএসএফ এর সাথে ছিল না, এখনও নেই, আগামীদিনেও থাকবে না। অন্তত আমি যতদিন দায়িত্বে আছি কংগ্রেস আইএসএফের সঙ্গে থাকবে না। আমাদের জোট হয়েছিল শুধুমাত্র সিপিএম-এর সাথে।"

তিনি আরও বলেন- "সিপিএম পার্টির সাথে আমাদের কোনো দূরত্ব তৈরি হয়নি। ওদের সাথে আমরা বুঝে শুনে আলোচনা করে জোট করেছিলাম। আকাশ থেকে নেমে আসা কোনো সমঝোতা হয়নি। দুপক্ষের সম্মতিতেই জোট হয়েছিল। সিপিএম একা পারবে না বুঝেছিল, আমরা একা পারব না বুঝেছিলাম - এই নিষ্ঠুর এবং বাস্তবসত্যকে সামনে রেখে আমরা বাঁচার চেষ্টা করেছিলাম, কিন্তু পারিনি। তাঁর মানে এই নয় এটাই চিরস্থায়ী সত্য এবং আমাদের সমস্ত সিদ্ধান্ত ভুল। হতেই পারে পরাজয়, তাঁর মানে এই নয় এই অবস্থা চিরজীবন থাকবে।"

অবশেষে তিনি বলেন- " পশ্চিমবঙ্গে যে রাজনৈতিক বাতাবরণ তৈরি হয়েছিল, তাতে আমাদের মতো ধর্মনিরপেক্ষ দলের পক্ষে টিকে থাকা সম্ভব হয়নি। তাঁর মানে এটা নয়, এই অবস্থার পরিবর্তন হবে না। রাজনীতিতে ধৈর্য ধরতে হয়- পরিস্থিতি আবার বদলাবে।"

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in