দায় এড়াতে রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থার বদলে বেসরকারি সংস্থাকে টিকার দায়িত্ব দিয়েছে কেন্দ্র - সেলিম

তিনি বলেন- কেন্দ্র ১মে থেকে ১৮ বছরের উর্ধ্বে সবাইকে টিকা দেওয়া হবে বলে জানিয়েছে। কিন্তু টিকার সরবরাহ কোথায়?
দায় এড়াতে রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থার বদলে বেসরকারি সংস্থাকে টিকার দায়িত্ব দিয়েছে কেন্দ্র - সেলিম
মহঃ সেলিমনিজস্ব চিত্র

রাষ্ট্রায়ত্ত ল্যাবরেটরি এবং উৎপাদন ক্ষেত্রকে ব্যবহার না করে বেসরকারি হাতে টিকা উৎপাদনের দায়িত্ব তুলে দিয়েছে মোদি সরকার। তাদের মুনাফার ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়েছে। টিকা উৎপাদন ও সরবরাহ, সবকিছুতেই কেন্দ্র এবং রাজ্য সরকার সাধারণ মানুষকে বিপদের মুখে ফেলছে। এমন সরকার আগে সাধারণ মানুষ প্রত্যক্ষ করেননি কখনও। এভাবেই বিজেপি ও তৃণমূলকে তুলোধোনা করলেন সিপিআইএম নেতা মহম্মদ সেলিম।

গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে সেলিম বলেন, চিকিৎসা থেকে শেষকৃত্য সবকিছুতেই এখন লম্বা লাইন। মানুষকে গুনতে হচ্ছে অতিরিক্ত টাকা। অথচ কেন্দ্র ও রাজ্য সরকার দায় ঝেড়ে ফেলে হাত গুটিয়ে নিয়েছে। দায়িত্ব তুলে দিয়েছে বেসরকারি সংস্থার হাতে। কোনও সরকারই এখনও তাদের নিজেদের দায়িত্বটুকু বুঝে উঠতে পারছে না। টিকা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কেন্দ্র ১মে থেকে ১৮ বছরের উর্ধ্বে সবাইকে টিকা দেওয়া হবে বলে জানিয়েছে। কিন্তু টিকার সরবরাহ কোথায়। গত আগস্ট মাস থেকে টিকা উৎপাদন এবং সরবরাহের দিকে নজর না দিয়ে মোদি সরকার শুধু ইভেন্টের দিকে মনোযোগ দিয়েছে। রাষ্ট্রায়ত্ত ল্যাবরেটরিগুলোকে সক্রিয় করে উৎপাদন বাড়ানোর ব্যবস্থা করেনি। টিকা উৎপাদন এবং সরবরাহের অব্যবস্থার দরুন তার জের পড়ছে সাধারণ মানুষের মধ্যে। টিকার দামেও বৈষম্য রাখা হয়েছে। কেন্দ্রের জন্য একরকম, রাজ্যের জন্য একরকম আর বেসরকারি ক্ষেত্রের জন্য একরকম অর্থাৎ তিন রকম মূল্য ধার্য করা হয়েছে। ভারতের মতো গরিব দেশের টিকার দাম সর্বোচ্চ।

তিনি পরিসংখ্যান দিয়ে বলেন, জর্ডনে অক্সিজেনের অভাবে ছয়জনের মৃত্যু হওয়ায় সে- দেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রী পদত্যাগ করেছেন। আর ভারতে কোন কিছু নেই কারও কোনও হেলদোল নেই। এদিকে, পুঁজিপতিরা বিদেশে ক্লাব কিনছে। মানুষ মরছে অথচ আইপিএল হচ্ছে। উত্তরপ্রদেশে কেউ অক্সিজেন সংকটের কথা বললেই তাঁদের বিরুদ্ধে মামলা করা হচ্ছে। নির্বাচন কমিশনকে নিশানা করে তিনি বলেন, কোভিড মহামারীকে যেমন কেন্দ্র গুরুত্ব দেয়নি। তেমনই নির্বাচন কমিশনও গুরুত্ব দেয়নি। এখন টেস্ট করিয়ে গণনাকেন্দ্রে ঢুকতে হবে বললেই হবে না। টেস্টের ব্যবস্থা করতে হবে।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে সেলিম বলেন, রাজীব কুমার যেমন লুকোচুরি খেলেছিলেন, অনুব্রত মণ্ডলও সেটাই করছেন নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে। এসব না করে নির্বাচন কমিশন চেষ্টা করুক শেষ দফার ভোটে যেন লুট না হয়। কেন্দ্র- রাজ্য সরকার দায়িত্ব পালন না করলেও সংযুক্ত মোর্চা সাধারণ মানুষের পাশে আছে। এই মহামারীতে প্রত্যেক মানুষের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছে রেড ভলানটিয়ার্স।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in