হারার আশঙ্কায়, নিজের কুর্সি বাঁচাতে কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্বের দ্বারস্থ 'উনি' - অধীর চৌধুরী

এবার বিধানসভা নির্বাচনে দু'দফা ভোটের পর নিজে হার আগাম অনুমান করেই কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্বের দ্বারস্থ হয়েছেন তিনি। দাবি প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরীর। তাঁর মতে মমতা বুঝতে পেরেছেন তিনি হেরে যাবেন
হারার আশঙ্কায়, নিজের কুর্সি বাঁচাতে কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্বের দ্বারস্থ 'উনি' - অধীর চৌধুরী

সাহায্য চেয়ে কয়েকদিন আগেই তৃণমূল ছেড়ে গেরুয়া শিবিরে যাওয়া বিজেপি নেতাকে ফোন করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এবার বিধানসভা নির্বাচনে দুই দফা ভোট হওয়ার পর নিজে হার আগাম অনুমান করেই কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্বের দ্বারস্থ হয়েছেন তিনি। এমনটাই দাবি প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরীর। অধীরের মতে, মমতা বুঝতে পেরেছেন তিনি হেরে যাবেন। তাই কয়েকদিন আগে কংগ্রেসের অন্তর্বর্তীকালীন সভাপতি সোনিয়া গান্ধীকে চিঠি লিখেছেন তিনি।

রবিবার বহরমপুরে নির্বাচনী জনসভা ছিল অধীরের। সেখানে তিনি দাবি করেন, ক্ষমতা হারানোর আশঙ্কায় ভুগছেন মমতা। শুধু তাই নয়, নন্দীগ্রামের মতো হাইভোল্টেজ কেন্দ্রে তিনি হারতে পারেন, এই আশঙ্কা তাঁকে গ্রাস করেছে। তাই নিজের কুর্সি বাঁচাতে কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্বের দ্বারস্থ হয়েছেন। বিজেপিকে ক্ষমতায় আসা থেকে আটকাতে মমতা কংগ্রেসের সাহায্য চেয়েছেন।

প্রসঙ্গত, দশ বছর আগে কংগ্রেসের সঙ্গে জোট বেঁধেই বিধানসভা নির্বাচনে জিতে মুখ্যমন্ত্রী হন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু সেই জোটের পক্ষে ছিলেন না অধীর চৌধুরী। আসন রফা নিয়ে আপত্তি ছিল তাঁর। পরে প্রণব মুখোপাধ্যায়ের হস্তক্ষেপে রফাসূত্র বেরোয়। যদিও মমতা ব্যানার্জি মুখ্যমন্ত্রী হবার কিছুদিনের মধ্যেই কংগ্রেস ও তৃণমূলের সেই জোট ভেঙ্গে যায়। এরপর ২০১৬ সালে বাম কংগ্রেস আসন সমঝোতা করে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে। ২০১৯-এ রায়গঞ্জ আসন নিয়ে বিবাদের জেরে কোনো আসন সমঝোতা না হলেও এবার ফের আসন সমঝোতা করে নির্বাচনে লড়ছে বাম-কংগ্রেস ও ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্ট।

তবে একুশের বিধানসভা নির্বাচনে রাজনৈতিক সমীকরণ কিছুটা অন্যরকম। প্রাথমিক অবস্থায় যাই মনে করা হোক না কেন বাম কংগ্রেসের সংযুক্ত মোর্চায় আব্বাস সিদ্দিকির যোগদানের পর অনেক সমীকরণই বদলে গেছে বলে রাজনৈতিক মহলের অভিমত। যা বোঝা যাবে নির্বাচনী ফলাফলে। তাই উনিশের লোকসভা নির্বাচনে রাজ্য থেকে শূন্য আসন নিয়ে ফেরা বামেরা এবার জোটের ফলাফলের বিষয়ে অনেকটাই আশাবাদী। বামেদের পক্ষ থেকে বারবারই বলা হয়েছে তৃণমূল বিজেপিকে আটকাতে পারবে না। এমনটাই মনে করেন কংগ্রেস সাংসদ অধীরও।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in