TMC: "রবীন্দ্রনাথকে নোবেল দিয়ে অপমান করা হয়েছিল" - বিষ্ফোরক তৃণমূল বিধায়ক

মানগোবিন্দের বক্তব্য, ‘‘সিবিআই-সিবিআই করে এখন বিজেপি লাফাচ্ছে। সিবিআই কিন্তু সেই চুরি যাওয়া নোবেল খুঁজে বার করতে পারেনি। আজ সেই চুরি যাওয়া নোবেল খুঁজে বার করার জন্য আবার বাংলার পুলিশকে লাগানো হচ্ছে।’’
TMC: "রবীন্দ্রনাথকে নোবেল দিয়ে অপমান করা হয়েছিল" - বিষ্ফোরক তৃণমূল বিধায়ক
মানগোবিন্দ অধিকারীছবি - অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ

রবীন্দ্রনাথের নোবেল চুরি নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করে বসলেন ভাতারের তৃণমূল বিধায়ক। বিধায়ক মানগোবিন্দ অধিকারী সোমবারে রবীন্দ্রজয়ন্তী উপলক্ষে ভাতারে অনুষ্ঠিত একটি সভায় বলেন - ‘‘রবীন্দ্রনাথকে নোবেল দিয়ে অপমান করা হয়েছিল। সেই কারণেই বাংলার ছেলেরা সেটি চুরি করে নিয়েছিল।’’

মানগোবিন্দের বক্তব্য, ‘‘সিবিআই-সিবিআই করে এখন বিজেপি লাফাচ্ছে। সিবিআই কিন্তু সেই চুরি যাওয়া নোবেল খুঁজে বার করতে পারেনি। আজ সেই চুরি যাওয়া নোবেল খুঁজে বার করার জন্য আবার বাংলার পুলিশকে লাগানো হচ্ছে। সিবিআইকে বলা হয়েছে, ‘আপনারা সমস্ত তথ্য আমাদের দিন। আমরা সেটা খুঁজে বার করার চেষ্টা করব।’ আর বাংলার বিজেপি কর্মীরা লাফাচ্ছেন সিবিআই-সিবিআই করে।’’

এ প্রসঙ্গে বিজেপি নেতা রাহুল সিনহার অভিযোগ, "নোবেল চুরির সঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেস জড়িত। সিবিআই যাতে নোবেল খুঁজে না পায়, তার জন্য সব অসহযোগিতা রাজ্য সরকার করেছে। বাংলার সব চুরির সঙ্গে তৃণমূল জড়িত।"

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ২০০৪ সালের ২৫শে মার্চ রবীন্দ্রভবনের সংগ্রহশালা থেকে কবিগুরুর নোবেল চুরি যায়। এরপর তদন্তের দায়ভার দেওয়া হয়েছিল কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা (সিবিআই)-র হাতে। ২০০৭ সালের অগস্ট মাসে তদন্ত থেকে সরে দাঁড়ালেও এক বছরের মধ্যে নতুন সূত্র ধরে পুনরায় তদন্তের দাবি নিয়ে আদালতের দ্বারস্থ হয় সিবিআই। ২০১০-এর ৫ অগাস্ট নাগাদ আদালত তদন্ত বন্ধ রাখার নির্দেশ দিলে তারা আদালতকে জানায়, নতুন কোনো সূত্র মিললে পুনরায় তদন্ত শুরু হতে পারে।

মানগোবিন্দ অধিকারী
TMC: গীতাঞ্জলী প্রকল্পে বাড়ি পাইয়ে দেওয়ার জন্য কাটমানি, নাম জড়ালো অনুব্রত মন্ডলের

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.