জল ছাড়ছে ডিভিসি, ৭৮ সালের বন্যার পুনরাবৃত্তি হতে পারে, আশঙ্কা দক্ষিণবঙ্গ জুড়ে
ফাইল চিত্র - সংগৃহীত

জল ছাড়ছে ডিভিসি, ৭৮ সালের বন্যার পুনরাবৃত্তি হতে পারে, আশঙ্কা দক্ষিণবঙ্গ জুড়ে

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে ডিভিসি প্রায় তিন কিউসেক জল ছাড়তে শুরু করেছে। দুর্গাপুর ব্যারেজ থেকে প্রায় দু'লক্ষ চার হাজার কিউসেক জল ছাড়া হয়েছে। মাইথন ও পাঞ্চেৎ থেকে প্রায় এক লক্ষ কিউসেক জল ছাড়া হচ্ছে।

একমাসের মধ্যেই ফের বন্যার কবলে পড়তে চলেছে রাজ্য। তবে এবারের বন্যা পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। দুই মেদিনীপুর, হুগলি, হাওড়ার একটা বড় অংশ জলবন্দি। পশ্চিমের জেলাগুলি এবং অন্য রাজ্য থেকে জল ছাড়ায় পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে ডিভিসি প্রায় তিন কিউসেক জল ছাড়তে শুরু করেছে। দুর্গাপুর ব্যারেজ থেকে প্রায় দু'লক্ষ চার হাজার কিউসেক জল ছাড়া হয়েছে। মাইথন ও পাঞ্চেৎ থেকে প্রায় এক লক্ষ কিউসেক জল ছাড়া হচ্ছে। জল ছাড়ার এই হার আরও বাড়বে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। ৭৮ সালের বন্যার স্মৃতি উস্কে দিচ্ছে বলে মনে করছেন রাজ্যের সেচ দফতরের এক শীর্ষ আধিকারিক।

ডিভিসির এক শীর্ষ কর্তা জানান, জলাধার সংলগ্ন এলাকায় তুমুল বৃষ্টি হচ্ছে। তাই জল ছাড়তে হচ্ছে। রাজ্যকে জানিয়েই সবটা করা হচ্ছে। তবে এর থেকে বেশি জল যাতে ছাড়া না হয়, তার জন্য রাজ্য অনুরোধ জানিয়েছে। যে পরিমাণ জল ছাড়া হচ্ছে, তাতে গোটা নিম্ন দামোদর এলাকার জেলাগুলি প্লাবিত হতে সময় লাগবে মাত্র ৩৬ ঘণ্টা।

রাজ্য আগে থেকেই সেনাবাহিনীর সাহায্য চেয়েছে। তিন কলম সেনা যাচ্ছে পশ্চিম বর্ধমান, হুগলিতে। হাওড়ার জন্য দু'কলম সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। হাওড়া, হুগলি, পূর্ব বর্ধমানের দুর্গতদের মানুষকে নিরাপদ জায়গায় সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা শুরু হয়েছে। সূত্রে জানা গিয়েছে, তিন লক্ষ মানুষকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া সম্ভব হয়েছে। এসডিআরএফ এবং এনডিআরএফ মোতায়েন করা হয়েছে।

এদিকে, আগামী কয়েকদিন বাঁকুড়া, পুরুলিয়ায় ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া দফতর। অবস্থা এতটাই খারাপ যে, ত্রাণসামগ্রী এখনই সংগ্রহ করে রাখতে না পারলে যে কোনও সময়ে বাকি রাজ্যের সঙ্গে সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যেতে পারে।

দ্বারকেশ্বর ও গন্ধেশ্বরী দিয়ে প্রায় এক লক্ষ কিউসেক জল ছাড়া হচ্ছে। অজয় নদী দিয়ে বইছে ৯০ হাজার কিউসেক জল। প্লাবিত হচ্ছে বাঁকুড়া, বীরভূমের মধ্যে বিস্তীর্ণ এলাকা। তিলপাড়া ব্যারেজ থেকে ১২ হাজার, ময়ূরাক্ষী জলাধার থেকে তিন হাজার, কংসাবতী জলাধার থেকে ৩০ হাজার কিউসেক জল ছাড়া হয়েছে।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.