Cooch Behar: জল্পেশের মন্দির যাওয়ার পথে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত ১০ পুণ্যার্থী, আহত ১৬

সূত্র মারফত জানা গেছে, শীতলকুচি থেকে প্রায় ৩৬ জন পুণ্যার্থী একটি পিকআপ ভ্যানে করে জল্পেশের দিকে যাচ্ছিলেন। ভীড়ে ঠাসা ছিল ভ্যানটি।
মৃত পুণ্যার্থীরা
মৃত পুণ্যার্থীরা নিজস্ব চিত্র

শিবমন্দিরে যাবার পথে গাড়িতে শর্ট সার্কিটের জেরে মৃত্যু হল ১০ জন পুণ্যার্থীর। রবিবার গভীর রাতে এই মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে কোচবিহারের চ্যাংড়াবান্ধার জল্পেশে। শ্রাবণ মাসে শিবের মাথায় জল ঢালতে যাচ্ছিলেন তাঁরা।

সূত্র মারফত জানা গেছে, শীতলকুচি থেকে প্রায় ৩৬ জন পুণ্যার্থী একটি পিকআপ ভ্যানে করে জল্পেশের দিকে যাচ্ছিলেন। ভীড়ে ঠাসা ছিল ভ্যানটি। রাত প্রায় ১২টা নাগাদ চ্যাংড়াবান্ধার ধরলা সেতু পার হওয়ার পর জেনারেটর থেকে সেই গাড়িতে শর্ট সার্কিট হয় বলে জানিয়েছেন কয়েকজন পুণ্যার্থী। এরপরই তাঁরা অসুস্থ হয়ে পড়েন।

গাড়ির চালক অসুস্থদের তৎক্ষণাৎ চ্যাংড়াবান্ধা হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানেই চিকিৎসক ১০ জনকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। মৃতদের প্রত্যেকেরই বাড়ি শীতলকুচিতে। ১৬ জনকে জলপাইগুড়ি সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছে ।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে মেখলিগঞ্জ থানার পুলিশ ৷ মাথাভাঙার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অমিত বর্মা জানিয়েছেন, "গাড়িতে থাকা জেনারেটরটি দিয়ে ডিজে বক্স বাজানো হচ্ছিল। তা থেকেই কোনওভাবে শর্ট সার্কিট হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে। দুর্ঘটনার পর সকলকে চ্যাংড়াবান্ধা হাসপাতালে নিয়ে আসা হলে চিকিৎসক ১০জনকে মৃত ঘোষণা করেন। ১৬ জনকে জলপাইগুড়ি সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। গাড়িটিকে আটক করা হলেও চালক পলাতক। পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে।"

এই ঘটনার ফলে সোমবার সকাল থেকেই শোকের ছায়া নেমে এসেছে শীতলকুচি এলাকায়। হাসপাতাল সূত্রের খবর, গতকালের ঘটনায় আহতরা এখনও মানসিক বিপর্যয়ের মধ্যে আছেন। ইতিমধ্যেই হাসপাতালে উপস্থিত হয়েছেন আহতদের পরিবারের সদস্যরা।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in