তৃণমূল নেতাদের হুমকি দিয়ে লাগাতার মাওবাদী পোস্টার - তড়িঘড়ি জঙ্গলমহল সফর মুখ্যমন্ত্রীর

এই প্রসঙ্গে সুশান্ত ঘোষ জানান, "তৃণমূলের আজ যারা নেতা তারাই তো একসময়ের মাওবাদী। এখন তো আর মাওবাদী কেউ নেই, সকলেই তৃণমূল হয়ে গেছে। তাদের কেউ পঞ্চায়েতে আছে, কেউ সিভিক ভলান্টিয়ার হয়েছে।"
তৃণমূল নেতাদের হুমকি দিয়ে লাগাতার মাওবাদী পোস্টার - তড়িঘড়ি জঙ্গলমহল সফর মুখ্যমন্ত্রীর
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ফাইল চিত্র

বিগত বেশ কিছুদিন ধরে জঙ্গলমহলে মাওবাদী কার্যকলাপ বৃদ্ধির খবর পাওয়া যাচ্ছে। বাঁকুড়া, পশ্চিম মেদিনীপুর সহ ওই এলাকার বিভিন্ন অঞ্চলে একাধিক জায়গায় মিলেছে মাওবাদী পোস্টার। যেখানে বেশ কিছু পোস্টারে সরাসরি হুমকি দেওয়া হচ্ছে তৃণমূল নেতাদের। এই আবহে এবার দু’দিনের পশ্চিম মেদিনীপুর সফরে যাচ্ছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রাজনৈতিক মহলের মতে, ওই অঞ্চলে মাওবাদী কার্যকলাপ বৃদ্ধিতে উদ্বিগ্ন হয়েই মুখ্যমন্ত্রীর তড়িঘড়ি জঙ্গলমহল সফর। মঙ্গলবার তিনি জঙ্গলমহল যাচ্ছেন।

পরপর মাওবাদী পোষ্টার উদ্ধারের ঘটনায় ইতিমধ্যেই গোয়েন্দা সতর্কতা জারি করা হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে মুখ্যমন্ত্রীর জঙ্গলমহল সফর অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। যদিও তাঁর এবারের সফরে শুধুই আছে পশ্চিম মেদিনীপুর। জঙ্গলমহলের অন্তর্গত অন্য দুই জেলা বাঁকুড়া এবং পুরুলিয়াতে এবার তিনি যাচ্ছেন না।

নবান্ন সচিবালয় সূত্রে জানা গেছে, এবার মুখ্যমন্ত্রী শুধুমাত্র পশ্চিম মেদিনীপুর জেলাতেই তাঁর কার্যক্রম সীমাবদ্ধ রাখবেন। আগামী দিনে, পুরুলিয়া এবং বাঁকুড়াতেও একই রকম সফর করবেন তিনি।

সূত্র অনুসারে, ১৭ মে মুখ্যমন্ত্রী প্রথমে মেদিনীপুর শহরের সার্কিট হাউসে পৌঁছবেন। একই দিনে, বিকেল ৩ টার দিকে তিনি একটি প্রশাসনিক পর্যালোচনা সভায় সভাপতিত্ব করবেন। যে সভায় উপস্থিত থাকবেন জেলা ম্যাজিস্ট্রেট, জেলা পুলিশ সুপার, জেলার অন্যান্য সিনিয়র আমলা এবং পুলিশ কর্মকর্তারা। পরের দিন, তিনি মেদিনীপুর কলেজ ময়দানে জেলার দলীয় কর্মী ও নেতাদের সমাবেশে ভাষণ দেবেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রাজ্য মন্ত্রিসভার একজন সদস্য আইএএনএসকে জানিয়েছেন, মুখ্যমন্ত্রী রাজ্যে মাওবাদী কার্যকলাপের সম্ভাব্য পুনরুত্থানের রিপোর্ট নিয়ে উদ্বিগ্ন। তিনি বলেন, "মুখ্যমন্ত্রী রিপোর্ট পেয়েছেন যে জঙ্গলমহল এলাকায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা তিনটি জেলার জনগণের একটি অংশ উন্নয়নমূলক প্রকল্পগুলির ধীর অগ্রগতিতে অসন্তুষ্ট। ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ রাজ্যের রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক বিভাগের একটি অংশকে গ্রাস করেছে। …সুতরাং, মুখ্যমন্ত্রী প্রশাসনিক পর্যালোচনা সভায় পরিস্থিতি পর্যালোচনা করবেন এবং সংশোধনমূলক ব্যবস্থার পরামর্শ দেবেন।"

গত ২৬ এপ্রিল, নবান্নের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত ইস্টার্ন জোনাল কাউন্সিলের স্থায়ী কমিটির বৈঠকে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের আধিকারিকরা পশ্চিমবঙ্গ, ওড়িশা, ঝাড়খন্ড, বিহার সহ চারটি পূর্ব ভারতীয় রাজ্য মাওবাদী কার্যকলাপের পুনরুত্থানের বিষয়ে সতর্ক করেছেন। দুদিনের পশ্চিম মেদিনীপুর সফরে মুখ্যমন্ত্রী সেখানে কেন্দ্রীয় সশস্ত্র বাহিনী মোতায়েনের বিষয়ে পর্যালোচনা করবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

মুখ্যমন্ত্রীর পশ্চিম মেদিনীপুর সফর প্রসঙ্গে সিপিআই(এম) পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা সম্পাদক সুশান্ত ঘোষ পিপলস রিপোর্টারের প্রতিনিধিকে জানান, "মুখ্যমন্ত্রী যেহেতু এখনও এই বিষয়ে কোনো বিবৃতি দেননি তাই আগ বাড়িয়ে এখনই কিছু বলার নেই। তিনি কেন এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনিই বলতে পারবেন। তবে, এটা তো ঘটনা যে তৃণমূলের আজ যারা নেতা তারাই তো একসময়ের মাওবাদী। এখন তো আর মাওবাদী কেউ নেই, সকলেই তৃণমূল হয়ে গেছে। তাদের কেউ পঞ্চায়েতে আছে, কেউ সিভিক ভলান্টিয়ার হয়েছে। কাজেই এখানে মাওবাদী আবার কোথা থেকে এল? এর আড়ালে কী পরিকল্পনা আছে তা এখনই আমাদের পক্ষে বলা সম্ভব নয়।"

-With IANS Inputs

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়
TMC: মাওবাদী আতঙ্কে কাঁপছেন জঙ্গলমহলের তৃণমূল নেতারা, নিরাপত্তা চেয়ে পুলিশের দ্বারস্থ ৫ নেতা

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in