ভোটের ফল ঘোষিত হতেই রাজ্যজুড়ে বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ, "এই অবাধ লুঠ হিংসা খুন চলবে?" - প্রশ্ন শমীক লাহিড়ীর

প্রতিকুরের বাড়ি, অসংখ্য সংযুক্ত মোর্চা কর্মী সমর্থকের বাড়ি দোকান লুঠ চলছে। জেসিবি নিয়ে বাড়ি ভাঙছে ক্যানিং পূর্বের সংযুক্ত মোর্চার কর্মী-নেতাদের। চারিদিকে পার্টি দপ্তর ভাঙচুর চলছে। অভিযোগ শমীক লাহিড়ীর
ভোটের ফল ঘোষিত হতেই রাজ্যজুড়ে বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ, "এই অবাধ লুঠ হিংসা খুন চলবে?" - প্রশ্ন শমীক লাহিড়ীর
যাদবপুর অঞ্চলে ভাঙচুর হওয়া সিপিআই(এম) কার্যালয়ছবি সংগৃহীত

“মুখ্যমন্ত্রী এই অবাধ লুঠ হিংসা খুন চলবে? ফ্যাসিস্ট শক্তি সরকার গঠন করতে পারেনি। স্বস্তি পেলেন? প্রতিকুরের বাড়ি সহ অসংখ্য সংযুক্ত মোর্চার বাড়ি দোকান অবাধে লুঠ চলছে। জেসিবি নিয়ে ঘুরে ঘুরে বাড়ি ভাঙছে ক্যানিং পূর্বের সংযুক্ত মোর্চার কর্মী নেতাদের। চারিদিকে পার্টি দপ্তর ভাঙচুর চলছে। সংযুক্ত মোর্চার নেতা কর্মীদের বাড়িতে বোম মারা হচ্ছে। বাড়ি ছাড়া করা হচ্ছে। এইজন্যই স্বৈরাচারীদের সরানো জরুরী ছিল, ফ্যাসিস্টদের রুখে দেওয়ার সাথে সাথেই।” মঙ্গলবার সোশ্যাল মিডিয়ায় এক পোষ্টে একথা জানিয়েছেন সিপিআই(এম) দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা সম্পাদক শমীক লাহিড়ী।

ভোটের ফল বেরোনোর ২৪ ঘণ্টার মধ্যে রাজ্যজুড়ে সংঘর্ষের খবর পাওয়া যাচ্ছে। গতকাল রাত থেকে শুরু হওয়া এই হামলায় এখনও পর্যন্ত বিভিন্ন অঞ্চলে পাঁচজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। পূর্ব বর্ধমানে দুই তৃণমূল কর্মীকে খুনের অভিযোগ উঠেছে বিজেপির বিরুদ্ধে।

বর্ধমানের জামালপুরের নবগ্রামে তৃণমূলের বিজয় মিছিলে হামলা চালানোর অভিযোগ উঠেছে বিজেপির বিরুদ্ধে। ওই হামলায় গুরুতর আহত হন তিনজন। তাঁদের হাসপাতালে নিয়ে গেলে দুজনকে মৃত বলে ঘোষণা করা হয়। এরপরেই ওই এলাকায় বিজেপি কর্মীদের বাড়ি বাড়ি চড়াও হয় তৃণমূল কর্মীরা বলে অভিযোগ। সেখানে এক মহিলাকে কুপিয়ে খুন করা হয়।

একই ধরণের তান্ডবের অভিযোগ পাওয়া গেছে হাওড়া থেকেও। গতকাল রাতে গণনাকেন্দ্র থেকে ফেরার সময় পাঁচলা সংলগ্ন হাউলিবাগান অঞ্চলে বাম কর্মীদের আক্রমণ করা হয়। ওই কেন্দ্রের আই এস এফ প্রার্থীর গাড়িতে তৃণমূলের পক্ষ থেকে হামলা চালানো হয়েছে বলে অভিযোগ। পাঁচলা বিধানসভার বনহরিশপুর, মিদ্দেপাড়া, মেলো, মুন্সিপাড়া অঞ্চলের বামপন্থী ও আইএসএফ কর্মীদের বাড়িতে শাসক দলের কর্মীরা হামলা, ভাঙচুর ও লুঠপাট চালায় বলে অভিযোগ। জগৎবল্লভপুর থানার অন্তর্গত মাছাল, জালালসি ও কাউগাছি অঞ্চলে সোমবার সকাল থেকেই বামপন্থী কর্মীদের উপরে হুমকি, মারধর করা হয় বলে বামেদের পক্ষ থেকে অভিযোগ জানানো হয়েছে।

গতকাল রাতে নদীয়ায় বাড়ি ফেরার সময় গাংনাপুরের এক বিজেপি কর্মীকে কুপিয়ে খুন করা হয় বলে অভিযোগ। ভোটের ফল প্রকাশের পর শীতলখুচির ছোটো শালবাড়ি এলাকায় দুই গোষ্ঠীর রাজনৈতিক সংঘর্ষের ঘটনায় গুলিবিদ্ধ হয়ে মৃত্যু হয় এক যুবকের।

একইভাবে গতকাল রাত থেকেই যাদবপুরের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে হামলার খবর পাওয়া গেছে। সিপিআই(এম)-এর পক্ষ থেকে বেশ কিছু পার্টি অফিস ভেঙে দেবার অভিযোগ আনা হয়েছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। কলকাতার বেশ কিছু অঞ্চলে বেছে বেছে রেড ভলান্টিয়ার্সদের মারধোর করা হয়েছে বলেও অভিযোগ।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in