দীর্ঘ ৯ বছর পর ফুল, মালা, শাঁখ, দলীয় পতাকায় বেনাচাপড়ার সুশান্ত বরণ

দীর্ঘ ৯ বছর পর ফুল, মালা, শাঁখ, দলীয় পতাকায় বেনাচাপড়ার সুশান্ত বরণ
বৃহস্পতিবার বেনাচাপড়ায় সুশান্ত ঘোষছবি ভিডিও থেকে স্ক্রিনশট

গরিব মানুষ যদি এক হয় আবার লালঝান্ডা ফিরবে। তাহলেই মানুষের দুঃখ দুর্দশা দূর হবে। এখন চোখের জল না ফেলে মন শক্ত করার সময়। বৃহস্পতিবার দীর্ঘ ৯ বছর পর বেনাচাপড়ায় ফিরে গ্রামের মানুষকে একথা জানান সিপিআইএম নেতা সুশান্ত ঘোষ। যে বেনাচাপড়া কঙ্কালকাণ্ডে অভিযুক্ত হয়ে দীর্ঘ ৯ বছর তিনি নিজের এলাকা গড়বেতায় ফিরতে পারেননি এদিন সেই বেনাচাপড়াই স্বাগত জানালো সিপিআই(এম) নেতা সুশান্ত ঘোষকে। দীর্ঘ ১০ বছর এলাকা ছাড়া থাকলেও ওই অঞ্চলে তাঁর জনপ্রিয়তা যে এতটুকুও কমেনি এদিন তার প্রমাণ পাওয়া গেল।

বৃহস্পতিবার তিনি ওই অঞ্চলে গেলে স্থানীয় মানুষ শাঁখ বাজিয়ে, ফুলের মালা দিয়ে, ফুল ছুঁড়ে তাঁকে সম্বর্ধনা জানান। সাধারণ মানুষের এই উচ্ছ্বাসে আপ্লুত সুশান্ত ঘোষও। গ্রামের মানুষের নাম ধরে ধরে তাঁকে খবরাখবর নিতে দেখা যায়। ঘটনার ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে এক বৃদ্ধা ভদ্রমহিলা সুশান্ত ঘোষকে জড়িয়ে ধরে কাঁদতে শুরু করেন। গ্রামের মানুষের সঙ্গে কথা বলার পর তিনি বেনাচাপড়ায় দলীয় অফিসে যান।

প্রসঙ্গত, বেনাচাপড়া কঙ্কাল কাণ্ডে ২০১২ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি জামিন পেলেও জামিনের শর্ত ছিলো তিনি নিজের জেলায় ঢুকতে পারবেন না। অতি সম্প্রতি সেই শর্ত তুলে নেওয়া হলে গত ৬ ডিসেম্বর নিজের জেলায় ফেরেন সুশান্ত ঘোষ। ওইদিন শালবনি থেকে চন্দ্রকোণা পর্যন্ত মিছিল করে নিয়ে যাওয়া হয় সুশান্ত ঘোষকে। চন্দ্রকোণা রোড দলীয় অফিসে তাঁকে সম্বর্ধনা দেওয়া হয়। এলাকায় ফেরার পর থেকেই প্রায় প্রতিদিন গ্রামে গ্রামে ঘুরে জনসংযোগ সারছেন সুশান্ত ঘোষ। গত ৬ ডিসেম্বর জেলায় ফিরেই সুশান্ত ঘোষ জানিয়েছিলেন – কোনো কিছুই প্রমাণ হয়নি। তাই আইনি জটিলতা কাটিয়ে জেলায় ফিরতে পেরেছি। তিনি আরও বলেছিলেন – কোনোভাবেই তৃণমূল সত্যিকে চাপা দিতে পারবে না। শেষ দেখে ছাড়বো।

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in