Narada Scam: ফিরহাদ, মদন, সুব্রত ও শোভন গ্রেপ্তার, নিজাম প্যালেসে গেলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

ফিরহাদ হাকিম সহ গ্রেপ্তার করা হল মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়, তৃণমূল বিধায়ক মদন মিত্র এবং কলকাতার প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়কে। এই খবর পেয়ে নিজাম প্যালেসে যান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়
Narada Scam: ফিরহাদ, মদন, সুব্রত ও শোভন গ্রেপ্তার, নিজাম প্যালেসে গেলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়
সুব্রত মুখার্জি, শোভন চট্টোপাধ্যায়, ফিরহাদ হাকিম, মদন মিত্রফাইল ছবি সংগৃহীত

নারদ মামলায় সোমবার সকাল থেকেই তৎপর সিবিআই। রাজ্যের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম সহ গ্রেপ্তার করা হল মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়, কামারহাটির তৃণমূল বিধায়ক মদন মিত্র এবং কলকাতার প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়কে। এদিন দলীয় মন্ত্রী বিধায়কদের গ্রেপ্তারির পর নিজাম প্যালেসে আসেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

গত ৯ মে রাজ্যের চার প্রাক্তন মন্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের অনুমতি দেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। ওইদিন রাজভবনের তরফ থেকে জারি করা বিবৃতিতে বলা হয়, যখন নারদ কান্ড হয়েছিল এই চারজনই তৎকালীন সরকারের মন্ত্রী ছিলেন। সংবিধানের ১৬৩ ও ১৬৪ নম্বর ধারা অনুযায়ী এই চারজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের অনুমতি দিয়েছেন রাজ‍্যপাল। যদিও রাজনৈতিক মহলে ঘুরেফিরে যে প্রশ্ন উঠছে তা হল - শুভেন্দু অধিকারী এই তালিকায় নেই কেন?

এদিন সকালেই কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিশাল ফোর্স নিয়ে ফিরহাদ হাকিমের বাড়ি ঘিরে ফেলে নারদ কান্ডে তদন্তকারী সংস্থা সিবিআই-এর একটি টিম। বাড়ির ভিতরে যান সিবিআই আধিকারিকরা। কিছুক্ষণ পরে মন্ত্রীকে সাথে নিয়ে বাইরে আসেন তাঁরা।

বাড়ি থেকে বেরোনোর সময় সাংবাদিকদের সামনে কলকাতার প্রাক্তন মেয়র বলেন, "নারদ কান্ডে আমাকে গ্রেফতার করা হচ্ছে। আমাকে নিজাম প‍্যালেসে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। আমি আদালতে দেখে নেব।" তাঁর আরও অভিযোগ, অধ‍্যক্ষের অনুমতি ছাড়াই তাঁকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এমনকি কোনো আগাম নোটিসও দেওয়া হয়নি তাঁকে।

ফিরহাদ হাকিমের পাশাপাশি নারদ কান্ডে অভিযুক্ত রাজ‍্যের অপর এক মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়, তৃণমূল বিধায়ক মদন মিত্র ও কলকাতার প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়ের বাড়িতেও সোমবার সকালে সিবিআইয়ের একটি করে টিম গিয়েছিল। তাঁদেরও নিজাম প‍্যালেসে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

২০১৪ সালে লোকসভা ভোটের আগে নারদ স্টিং অপারেশনের ভিডিও প্রকাশ‍্যে আসে, যেখানে তৎকালীন তৃণমূল নেতাদের টাকা নিতে দেখা গিয়েছিল। সাংবাদিক ম‍্যাথু স‍্যামুয়েল এই স্টিং করেছিলেন। সিবিআই এই ঘটনার তদন্ত করছে। এই ভিডিওতে তৎকালীন তৃণমূল নেতা তথা বর্তমানে বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারীকেও দেখা গিয়েছিল। কিন্তু শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের অনুমতি দেননি রাজ‍্যপাল। সিবিআই সূত্রের খবর, যখন ঘটনাটি ঘটে তখন সাংসদ ছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। সেক্ষেত্রে তাঁর বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের জন্য লোকসভার অধ‍্যক্ষের অনুমোদন প্রয়োজন।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in